ঢাকাসোমবার , ২২ জুন ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাধবপুরে দালালের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে উল্টো মামলা !

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুন ২২, ২০২০ ৫:৩৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  ।।  হবিগঞ্জের মাধবপুরে বিদেশে ভাল কর্মসংস্থানের লোভ দেখিয়ে লোকজনদের বিদেশে নিয়ে গিয়ে প্রতারণা করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দালাল। বিদেশে গিয়ে ওই সব লোকজন কাজ না পেয়ে অনাহারে অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছে। বাংলাদেশের অন্য লোকজন তাদের খাবার যোগাচ্ছে। এই ঘটনায় বিদেশে যাওয়ার লোকজনদের পরিবারের লোকজন প্রতিবাদ করলে দালাল উল্টো তাদের নামে চুরি অভিযোগ করেন। অবশেষে দালালের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করেছে প্রতারনার শিকার একাধিক পরিবারের লোকজন।

লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার জগদীশপুর ইউনিয়নের উত্তর বরগ গ্রামের মৃত আনোয়ারুল ইসলামের ছেলে মোঃ এজল মিয়া সৌদি আরবে থাকেন। এক বছর পূর্বে এজল মিয়া দেশে এসে এলাকায় প্রচার করে সৌদি আরব পাঠানোর জন্য তার কাছে ভাল ভিসা আছে। ভাল ভিসার কথা ও উন্নত জীবনের কথা চিন্তা করে অনেকেই সৌদি আরব যেতে ইচেছ পোষন করে। উত্তর বরগ গ্রামের মোঃ ফরিদ মিয়া, একই গ্রামের সোলেমান মিয়ার ছেলে সুজন মিয়া , মোঃ অনু মিয়া ,সৌদি আরব যেতে ইচ্ছে পোষন করে। সৌদি আরব যেতে হলে ৪ লাখ টাকা দিতে হবে। ফরিদ মিয়া সহ অনেকেই তাতেই রাজি হয়।

ফরিদ মিয়া গ্রামের মেম্বার সহ এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিদের নিয়ে ৪ লাখ টাকা দেয় দালাল এজল মিয়ার কাছে। গত ২০১৯ সালের ১৭ অক্টোবর ফরিদ মিয়া সহ কয়েকজন সৌদি আরবের জেদ্দা বিমানবন্দরে পৌছালে এজল মিয়ার ভাই মোঃ কাজল মিয়া ও তার ভাই মোঃ হাবিব মিয়া ফরিদ মিয়া সহ অন্যদের জেদ্দা বিমান বন্দর থেকে নিয়ে একটি পরিত্যাক্ত বিল্ডিং রাখে। ফরিদ মিয়া সৌদি যাবার ৪ মাস পর্যন্ত পরিবারের সাথে কোন যোগাযোগ করতে পারেনি। এ সময় ফরিদ মিয়ার স্ত্রী তাছলিমা খাতুন এজল মিয়া ও তার পরিবারের লোকজনদের তার স্বামীর খোঁজ দেওয়ার জন্য চাপ দিলে এজল মিয়ার লোকজন তাছলিমাকে পাত্তা দেয়নি।

 

গত ২৬ ফেরুয়ারী ফরিদ মিয়া সৌদি আরব থেকে তার স্ত্রী তাছলিমা কে মোবাইলে জানাই দেশ থেকে যাবার পর মোঃ কাজল মিয়া ও মোঃ হাবিব মিয়া ফরিদ মিয়া সহ কয়েকজন কে অনাহারে ও অর্ধাহারে একটি পরিত্যাক্ত ঘরে আটক করে রাখে। দীর্ঘদিন পার হয়ে গেলেও ফরিদ মিয়া সহ কয়েকজন কে দালাল এজল মিয়া ও তার ভাই কাজ দেয়নি। ফরিদ মিয়া সহ অন্যরা বাইরে বের হতে চাইলে হাবিব ও কাজল তাদের পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার ভয় দেখায়।

এ ঘটনা ফরিদ মিয়া তার স্ত্রীকে জানালে তাছলিমা খাতুন এজল মিয়া কে তার স্বামীকে কাজ দিতে চাপ দেয় কিন্তু কোন লাভ হয়নি।
বিষয়টি এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও ইউপি সদস্যদের জানানো হয়। গত ৩ মার্চ স্থানীয় ভাবে এক শালিস বসে। শালিসে এজল মিয়া ,এনাম মিয়া,ফিরোজ মিয়া বলে ফরিদ মিয়াকে তাদের নিজস্ব খরচে দেশে ফেরত আনিবে এবং ৪ লাখ টাকা ফেরত দিবে।

কিন্তু শালীসে দেওয়া কথাও তারা পালন করেনি। পরে উত্তর বরগ গ্রামের মোঃ ফরিদ মিয়া, একই গ্রামের সোলেমান মিয়ার ছেলে সুজন মিয়া , মোঃ অনু মিয়ার পরিবারের লোকজন এজল মিয়ার বাড়িতে গিয়ে প্রতিবাদ করলে এজল মিয়ার লোকজন ফরিদ মিয়ার স্ত্রী তাছলিমা খাতুন ,অনু মিয়ার স্ত্রী মাহমুদা খাতুন কে আসামী করে একটি চুরির অভিযোগ করেন। অপরদিকে কোন উপায় না দেখে ফরিদ মিয়ার স্ত্রী তাছলিমা খাতুন,অনু মিয়ার স্ত্রী মাহমুদা খাতুন,সুজন মিয়ার বাবা সোলেমান মিয়া পৃথক পৃথক বাদি হয়ে এজল মিয়া ও তার ভাইদের বিরুদ্ধে থানায় থানায় অভিযোগ করেন।

উত্তর বরগ গ্রামের ছোয়াব মিয়া সর্দ্দার জানান, বিদেশে যারা গেছে তাদের পরিবারের লোকজন মেম্বার সহ এলাকার মুরুব্বিদের জানালে এ বিষয়টি নিয়ে একটি শালিস হয়। শালিসে আমরা সমাধান করতে পারিনি। যারা বিদেশ গিয়েছে তাদের পরিবারের লোকজন দালালের বাড়িতে গিয়ে জিজ্ঞাসা করতে গিয়েছিল ।পরে মহিলাদের নামে উল্টো চুরির অভিযোগ করা হয়।

মাধববপুর থানার পরিদর্শক(তদন্ত) গোলাম দস্তগীর আহামেদ জানান, বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

Developed By The IT-Zone