ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৮ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাধবপুরে চাঞ্চল্যকর গৃহিনী খুশনাহার হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন মূল আসামীসহ গ্রেফতার ২

জালাল উদ্দিন লস্কর
আগস্ট ১৮, ২০২২ ৭:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মাধবপুরে চাঞ্চল্যকর খুশনাহার ( ৪৫) হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িত তাজুল ইসলাম ও সালেমা খাতুনকে চট্টগ্রামের ভুজপুর থানার প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে মাধবপুর থানা পুলিশ।

বুধবার (১৭ আগস্ট) তাদের গ্রেফতার করা হয়।গ্রেফতারকৃত মুল আসামী তাজুল ইসলাম হবিগঞ্জ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাসুমা আক্তারের আদালতে হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার বিষয়ে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দী প্রদান করেছেন।

ঘটনার বিবরণে জানা যায় গত ৮ জুলাই রাতে মাধবপুর উপজেলার শাহজাহানপুর ইউনিয়নের ফরহাদপুর গ্রামের নুর আলীর মেয়ে খুশনাহার আক্তার তার মায়ের সাথে খাওয়া দাওয়া শেষে নিজঘরে ঘুমিয়ে পড়ে।

তার মা পৃথক একটি ঘরে ঘুমাতে যায়। পরদিন ৯ জুলাই সকালে ঘুম থেকে জেগে প্রতিবেশী ধনু মিয়া খুশনাহার আক্তারকে ঘরের বাইরে মৃত অবস্থায় দেখতে পেয়ে চিৎকার শুরু করলে আত্মীয় স্বজন ভাইবোন ও পাড়া প্রতিবেশীরা এসে খুশনাহারের লাশ দেখতে পায়।

খবর পেয়ে মাধবপুর থানা পুলিশ এসে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে।

এ ঘটনায় খুশনাহারের ভাই মছরব আলী মাধবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করলে এ সংক্রান্তে একটি হত্যা মামলা রুজু হয়।

মাধবপুর থানার ওসি মোঃ আব্দুর রাজ্জাক এসআই মোঃ জাকারিয়াকে মামলার তদন্তভার অর্পণ করেন।

ঘটনার পর হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার এসএম মুরাদ আলীর নির্দেশনা ও সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার(মাধবপুর-চুনারুঘাট সার্কেল) মহসিন আল মুরাদের তত্বাবধানে ওসি মোঃ আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে স্থানীয়ভাবে ও তথ্যপ্রযুক্তির সাহায্যে অনুসন্ধান চালিয়ে দ্রুততত সময়ের মধ্যে মামলাটির রহস্য উদঘাটনে সক্ষম হন এবং ঘটনার সাথে জড়িত পলাতক আসামী নিহত খুশনাহারের স্বামী তাজুল ইসলাম(৪৫) ও খোশনাহারের সতীন সালেমা খাতুনকে(৩৮) চট্রগ্রাম জেলার ভুজপুর থানার একটি প্রত্যন্ত এলাকা থেকে গ্রেফতার করেন।

আটককৃত আসামীদের বর্ণামতে পুলিশ হত্যান্ডে ব্যবহৃত একটি রশি আসামী তাজুলের বাড়ির পিছনের জংগল থেকে উদ্ধার করেছে।আটককৃত আসামীদের হবিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাসুমা আক্তারের আদালতে সোপর্দ করা হলে আসামী তাজুল ইসলাম হত্যাকান্ডের দায় স্বীকার করে জবানবন্দী দিয়েছে বলে মাধবপুর থানার ওসি মোঃ আব্দুর রাজ্জাক জানিয়েছেন।

Developed By The IT-Zone