ঢাকাশনিবার , ২৫ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাধবপুরে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন শ্রমিকরা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ২৫, ২০২০ ৯:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এস এম রাকিব,মাধবপুর থেকেঃ   করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত ২৬ মার্চ থেকে দেশের সকল গণপরিবহণ বন্ধ রয়েছে। সরকারি এ সিদ্ধান্ত মেনে হবিগঞ্জের মাধবপুরের পরিবহণ শ্রমিকরাও তাদের গাড়ি বন্ধ রেখেছেন।
তবে গাড়ির চাকা বন্ধ হবার সাথে সাথেই বিপাকে পড়েছেন উপজেলায় কয়েক হাজারের মতো পরিবহন শ্রমিক। প্রথমদিকে সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ ছিলো গণপরিবহন। পরে পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় চার দফা বাড়িয়ে ছুটি ৫ মে পর্যন্ত ঘোষণা করা হয়।
এদিকে ছুটির মেয়াদ যতই বাড়ছে ততই খাদ্য সংকটে পড়ছেন শ্রমিকরা। প্রথম দিকে খাদ্য সহায়তা পেলেও বর্তমানে তাও মিলছেনা। এতে করে পরিবার নিয়ে দু:চিন্তায় আছেন উপজেলায় শ্রমিকরা।
তবে উপজেলা প্রশাসন বলছে, সিএনজি ও অন্যান্য পরিবহণ শ্রমিকদের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের মাধ্যমে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। এছাড়া সম্প্রতি উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ১০০ শ্রমিককে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে হয়তো আরও শ্রমিকদের সহায়তা দেয়া হবে।
তবে শ্রমিকরা বলছেন, মাধবপুর মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিয়নে (রেজি নং ১৪৪০) সদস্যই আছেন ৩০০ জন। এর বাইরে এ কাজে সম্পৃক্ত শ্রমিকের সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৫ শ’। এর বাইরেও উপজেলার বিভিন্ন গাড়ি আরও কয়েক হাজার শ্রমিক রয়েছেন। তাদের বেশিরভাগই নিত্য রোজগার করে সংসার চালান। কিন্তু বর্তমানে গাড়ির চাকা বন্ধ থাকায় বন্ধ হয়ে যায় আয়ের পথ। অথচ এ আয় দিয়েই বেশিরভাগ শ্রমিকের ঘরের চুলায় আগুন জ্বলে।

ছবি : অনলাইন থেকে নেয়া

মাধবপুর মাইক্রোবাস সমিতির সম্পাদক রোমান মিয়া জানান, ‘শ্রমিকের এ বিরাট অংশ পরিবহন বন্ধ থাকায় আজ অভুক্ত থাকছে। আমাদের প্রায় ৩০০ সদস্যসহ খেটে খাওয়া এ শ্রমিকদের বরাদ্দের জন্য আমাদের সভাপতি এবং সকলের মতে উপজেলা প্রশাসন বরাবর আমরা আবেদন করতে যাচ্ছি। করোনা প্রভাব শুরু হওয়া পর্যন্ত আমাদের শ্রমিক ভাইদের এখনো কোন সহযোগিতা করা হয়নি। আমরা আশা করি বাংলাদেশ সরকার শ্রমিকদের সহযোগিতা হাত বাড়িয়ে দিবে।’
মাধবপুর মাইক্রোবাস সমিতির সাবেক সম্পাদক মোহন মিয়া জানান, ‘বর্তমানে জরুরি অবস্থায় দেশজুড়ে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। এখন ঘরে বসেই শ্রমিকরা দিন কাটাতে হচ্ছে। সরকারি নির্দেশে ও দেশের প্রয়োজনে ঘরে থাকতে গিয়ে শ্রমিকরা কর্মহীন হওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। বিরাট এ শ্রমিকগণ আজ খাদ্য সামগ্রী সহায়তার আশায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দিকে তাকিয়ে আছেন।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসনুভা নাশতারান বলেন, আমরা সম্প্রতি উপজেলার ১০০ শ্রমিককে খাদ্য সহায়তা দিয়েছি। যদি আমাদের কাছে কেউ খাদ্য সহায়তার জন্য আবেদন করেন তাহলে আমরা তাদেরকে সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো। কারণ বিচ্ছিন্নভাবে খাদ্য সহায়তা দিলে দেখা যায় একজন কয়েকবার পায় আর কেউ একেবারেই পাচ্ছে না।
তিনি আরও বলেন, আমাদের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা শ্রমিকদের তালিকা করে খাদ্য সহায়তা দিচ্ছেন। এছাড়াও বিভিন্নভাবে শ্রমিকদের সহায়তা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

Developed By The IT-Zone