ঢাকাবুধবার , ১৫ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাধবপুরে কিছু রাজনৈতিক নেতা ও জনপ্রতিনিধিদের ছত্রছায়ায় চলছে মাদক পাচার

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ১৫, ২০২০ ১:৩৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মাধবপুর প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার সিমান্তবর্তী এলাকার মাদক ব্যবসায়ীরা অভিনব কৌশলে চালিয়ে যাচ্ছে তাদের মাদক ব্যবসা।জনকয়েক রাজনৈতিক নেতা ও জনপ্রতিনিধিরা আড়ালে-আবডালে থেকে এসব ব্যবসায় চালিয়ে যাচ্ছেন বলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে। তবে  মাদকের বিরুদ্ধে প্রশাসন ও স্হানীয় জনপ্রতিনিধি ও সচেতন মহলের কঠোর অবস্থানের কারণে মাদক ব্যবসায়ীরা নতুন নতুন কৌশল অবলম্বন করছে মাদক পাচারের জন্য। কখনো মোটরসাইকেলের সিটের নিচে করে আবার কখনো কখনো বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র কিম্বা গিটারের ভেতরে করে মাদক পাচার করছে তারা। ইদানীং  বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীরা উঠতি বয়সী  কিশোর ও তরুণদের প্রলোভন দেখিয়ে মাদক ব্যবসা ও পরিবহনের কাজে ব্যবহার করছে। এসব কিশোর ও তরুণ যুবকরা গিটার বা অন্য কোন বাদ্যযন্ত্রে মাদক ভরে কখনো কলেজ ব্যাগে মাদক নিয়ে পিঠে ঝুলিয়ে মোটরসাইকেল,প্রাইভেট কার কিম্বা এম্বুলেন্সে করে গন্তব্যে পৌঁছে দিচ্ছে।অনেক মাদক ব্যবসায়ী সিমান্ত এলাকার বাজারে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের আড়ালে চালাচ্ছে তাদের মাদক ব্যবসা।
বিশেষ করে যেসব ব্যবসা করলে নিয়মিত ঢাকা থেকে মালামাল আনতে হয় বা ফেরত দিতে হয় তেমন ব্যবসার প্রতি মাদক ব্যবসায়ীদের আগ্রহ বেশি। বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীরা নিজেরা মাদক পরিবহন না করে অল্প বয়সি কিশোরদের এই কাজে ব্যবহার করার কারণে সবসময় ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে।এসব কিশোর ও তরুণ যুবকরা মাদক পরিবহন করতে গিয়ে হাতের নাগালে পেয়ে নিজেরাও মাদকাসক্ত হয়ে যাচ্ছে। ইদানীং নির্বিঘ্নে মাদক ব্যবসা করার জন্য জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা হিসেবে পরিচিত ব্যক্তিদের প্রলোভন দেখিয়ে মাদক পাচারে জড়িত করছে বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীরা। উপজেলার বেশ কয়েকজন বর্তমান ও সাবেক ইউপি সদস্য ও তাদের পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
গত   ৮ জানুয়ারি মাধবপুর উপজেলার নোয়াপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাইম বিন ইসলাম আশুগঞ্জ পুলিশের হাতে ১০ কেজি গাঁজা সহ আটক হয়।এর কিছু দিন আগে জগদীশপুর ইউনিয়ন পরিষদের দুইবারের নির্বাচিত সদস্য আক্তার মিয়া ভারতীয় ফেনসিডিল সহ এবং মাধবপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর বেনু রায় গাঁজা সহ  পুলিশের হাতে আটক হয়।এছাড়াও ইদানীং বেশ কয়েকজন বর্তমান ও সাবেক ইউপি সদস্যের পরিবারের সদস্য মাদক মামলায় পুলিশের হাতে আটক হয়েছে। এব্যাপারে শাহজাহানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তৌফিক আলম চৌধুরী বলেন, আমার ইউনিয়ন সিমান্ত বর্তি এলাকায় তাই মাদক চোরাচালান বেশি। এসব প্রতিরোধে আমি বেশ কয়েকটি সচেতনতা মূলক সভা করেছি। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে সভার পর মাদক ব্যবসায়ীরা কিছুদিন আড়ালে থাকে তারপর আবার প্রকাশ্যে চলে আসে।বর্তমানে প্রশাসনের কঠোর নজরদারির কারণে মাদক পাচার অনেকটা কমে এসেছে।  মাদক বিরোধী আন্দোলনে অগ্রণী ভুমিকা পালনকারি তেলিয়াপাড়া ক্রীড়া চক্র এর একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, মাদক বিরোধী ভুমিকার জন্য মাদক ব্যবসায়ীরা ক্লাবটির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।
মাদক বিরোধী আন্দোলনে ব্যাপক ভুমিকা পালনকারি আরেকটি সংগঠন  বনগাঁও ইয়ুথ ক্লাব এক সদস্য জানান, মাদক বিরোধী আন্দোলন করায় আমাদের ক্লাবের অনেক সদস্যের বাড়িতে গিয়ে হুমকি দেয়া হয়েছে। এব্যাপারে আমরা ফেসবুকে পোস্ট করে সবাইকে অবগত করেছি। তেলিয়াপাড়া চা বাগানের মাদক বিরোধী আন্দোলনের এক সদস্য জানান, আমরা বেশ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ীকে ধরে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছি।এদের ধরে কোন লাভ হয় না, কারণ অল্প কিছু দিনের মধ্যেই জামিনে মুক্ত হয়ে এরা আবার মাদক ব্যবসা শুরু করে। বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীকে আমরা তাদের ধরতে পারি না, কারণ এরা অনেক প্রভাবশালী । আমরা তাদের ধরতে গেলে   আামাদের ক্ষতি হবে আর পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ আসার আগেই তারা চলে যায়। তেলিয়াপাড়া বাজারের এক ব্যবসায়ী জানান,একটি পত্রিকার মাদক বিরোধী পোস্ট শেয়ার করায় আমি অনেক হুমকির সম্মুখীন হয়েছিলাম। তবে বর্তমানে প্রশাসনের কঠোর নজরদারির কারণে মাদক ব্যবসায়ীরা আতংকের মধ্যে আছে। এখন আর আগের মতো প্রকাশ্যে মাদক পাচার বা সেবন করার সাহস কেউ পায় না।

Developed By The IT-Zone