ঢাকাশুক্রবার , ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভাষা আন্দোলনের পটভূমি

অনলাইন এডিটর
ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২০ ৬:২৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক

নির্বাহী সম্পাদক

সক্রিয় ভাষা আন্দোলনের আরম্ভ ১৯৪৮সালের মার্চ মাসে হলেও এই আরম্ভেরও আরেকটি আরম্ভ ছিল, সেটি করেছিলেন লেখক সম্প্রদায় ।ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসগুলির বিবরণ অনুযায়ী বাঙালি লেখকগণ বাংলা রাষ্ট্রভাষার সপক্ষে পত্রপত্রিকায় লিখতে আরম্ভ করেছিলেন ১৯৪৭ সালের জুলাই মাসে এবং এই প্রয়াসের সূচনা ঢাকায় । কিন্তু তা সঠিক নয় । এই প্রচেষ্টার শুরু আরো আগে এবং কোলকাতায় ।উল্লেখ্য, কোলকাতা শুধু অখন্ড বাংলাদেশের নয়,কিছুদিন খন্ডিত পূর্ববঙ্গেরও রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক রাজধানী ছিল আগস্টের মাঝামাঝি পর্যন্ত । মাইন্টব্যাটেন ঘোষণার পরে পরেই আসন্ন পাকিস্তানের বিভিন্ন সমস্যা তাদের দৈনন্দিন উত্তেজনাময় আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল ।

এই সব আলোচনার একটা প্রধান বিষয় ছিল রাষ্ট্রভাষার প্রশ্ন,কেননা ইতিমধ্যে প্রচারিত হয়ে গিয়েছিল ছিল যে, উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার চেস্টা চলছে । সচেতন লেখকবৃন্দ তখনই এই প্রয়াসের বিরোধিতা করার এবং বাংলার দাবি প্রতিষ্ঠিত করার সংকল্প নিয়েছিলেন ।দৈনিক ইত্তেহাদে ১৯৪৭ সালের ২২জুন এবং ২৯জুন তারিখে দুই কিস্তিতে ‘বাংলা ভাষা বিষয়ক প্রস্তাব’ নামে একটি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছিল । বাঙালির ভাষাগত স্বাতন্ত্র্য ঘোষণায় ছিল এর লক্ষ্য ।উক্ত প্রবন্ধের লেখক ছিলেন বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক,নাট্যকার ও প্রাবন্ধিক আবদুল হক । ঐ প্রবন্ধ প্রকাশিত হওয়ার একদিন পর ৩০শে জুন দৈনিক আজাদের সম্পাদকীয় পৃষ্ঠায় প্রকাশিত হয়েছিল একই লেখকের ‘পাকিস্তানের রাস্ত্রভাশা’ শীর্ষক প্রবন্ধ । সূচনায় বলা হয় –পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা কী হবে তা এখন স্থির করার সময় এসেছে । যে ভাষাকেই আমরা রাষ্ট্রভাষারুপে গ্রহণ করি, তার আগে আমাদের বিশেষভাবে ভেবে দেখতে হবে, কোন্  ‌  ভাষাকে রাষ্ট্রভাষারূপে গ্রহন করলে স্পব থেকে বেশি সুবিধা হবে, কোন্ ভাষায় পাকিস্তানের সবচেয়ে বেশি সংখ্যক লোক কথা বলে ,পাকিস্তানের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ সৃস্টি হয়েছে এবং কোন্  ভাষা ভাব প্রকাশের পক্ষে সব থেকে বেশি উপযোগী ।যেদিক থেকেই বিবেচনা করা যাক না কেন, পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে বাংলা ভাষার দাবিই সবচেয়ে বেশি ।

 

২৭জুলাই তারিখে দৈনিক ইত্তেহাদে প্রকাশিত একই লেখকের ‘উর্দু রাষ্ট্রভাষা হলে’ শীর্ষক প্রবন্ধে ভাষাগত স্বাধীনতার উল্লেখ করে বলা হয়েছিল, ভাষাগত স্বাধীনতা না পেলে বদ্ধমুখ অবস্থাতেই স্বাধীনতা পাওয়া যাবে । আসন্ন পাকিস্তান রাষ্ট্রের রুপ কেমন হবে তার আলোচনা প্রসঙ্গে ১৯৪৭সালের ২৭জুন তারিখে সাপ্তাহিক মিল্লাতের সম্পাদকীয় নিবন্ধে বলা হয়েছিলঃ পুর্ব পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা যে বাংলা ভাষাই হইবে ,ইহা বলাই বাহুল্য । মাহবুব জামাল জাহেদী ২০জুলাই তারিখে দৈনিক ইত্তেহাদে প্রকাশিত ‘রাষ্ট্রভাষা বিষয়ক প্রস্তাব’ শীর্ষক প্রবন্ধে বাংলা ও উর্দু উভয় রাষ্ট্রভাষা গ্রহনের প্রস্তাব করেন ।

আশ্বিন সংখ্যা ১৩৫৪ সওগাত এ কবি ফররুখ আহমদ ‘পাকিস্থানঃ রাষ্ট্রভাষা ও সাহিত্য’ শীর্ষক প্রবন্ধে পুর্ব পাকিস্তানে বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষা প্রবর্তনের সপক্ষে অভিমত প্রকাশ করেন । সওগাত এর অগ্রাহায়ন সংখ্যায় প্রকাশিত ‘রাষ্ট্রভাষা পুর্ব পাকিস্তানের ভাষা সমস্যা’ শীর্ষক প্রবন্ধে কাজী মোতাহার হোসেন বলেছিলেন বাংলা এবং উর্দু উভয় ভাষাকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করা উচিতঃ পশ্চিম পাকিস্তানে উর্দু (অথবা পশতু) এবং পুর্ব পাকিস্তানে বাংলা । মোহাম্মদ ওয়াজেদ আলী সওগাত এর পৌষ সংখ্যায় ‘শিক্ষার কথা’ শীর্ষক প্রবন্ধে বলেনঃ ক) বাংলা হবে পুর্ব পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা ও শিক্ষার মাধ্যম ; এবং খ) উর্দু নিঃসন্দেহে হবে নিখিল পাকিস্তানের আন্তপ্রাদেশিক রাষ্ট্রভাষা এবং কেন্দ্রীয় গর্ভনমেন্টের সরকারি ভাষা।

 

এদিকে জুলাই মাসে ঢাকায় মুসলিম লীগের বামপন্থীদের নিয়ে ‘গণ আজাদী লীগ’ নামে একটি ক্ষুদ্র সংস্থা গঠিত হয় । এই সংস্থার ম্যানিফেস্টোতে বলা হয়, ‘বাংলা হইবে পুর্ব পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা’ । তাদের এ প্রস্তাব ছিল গঠন উন্মুখ রাষ্ট্রের প্রার্থমিক রুপরেখার একটি অংশ মাত্র । কিন্তু এর পরেই রাষ্ট্রভাষা প্রশ্নটি একটি বিতর্কিত বিষয় হয়ে ওঠে আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ডঃ জিয়াউদ্দীনের একটি বিবৃতির ফলে । জুলাই এর শেষ দিকে দৈনিক আজাদ এ প্রকাশিত এক প্রবন্ধে ডঃ শহীদুল্লাহ এই প্রস্তাবের বিরোধীতা করেন ।রাষ্ট্রভাষা প্রশ্নে সক্রিয় আন্দোলন আরম্ভ হবার পূর্বে প্রতিষ্ঠানগত ভাবে তমদ্দুন মজলিশ বাংলার দাবির সপক্ষে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকায় ছিল । ১৯৪৭ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর তমদ্দুন মজলিশ ‘পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা বাংলা নাকি উর্দু ?’ নামে একটি পুস্তিকা প্রকাশ করে যেখানে বাংলাকে পাকিস্তানের একটি রাষ্ট্রভাষা হিসেবে ঘোষণা করার দাবি করা হয় । এতে কাজী মোতাহার হোসেন, আবুল মনসুর আহমদ এবং তমদ্দুন মজলিশের প্রধান কর্মকর্তা আবুল কাসেমের রচনা সংকলিত হয় ।তমদ্দুন মজলিশের ভাষা বিষয়ক প্রস্তাবের মূল কথা ছিল পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হবে বাংলা এবং উর্দু এবং পুর্ব পাকিস্তানের অফিস ও আদালতের ভাষা অর্থাৎ সরকারি ভাষা ও শিক্ষার বাহন হবে বাংলা । অতএব একমাত্র উর্দু রাষ্ট্রভাষার বিরুদ্ধে সর্বপ্রথম লেখক সম্প্রদায়ই প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন এবং সতর্ক বানী উচ্চারন করেছিলেন , প্রথমে কোলকাতা থেকে, তারপর ঢাকা থেকে । প্রধানত তাদেরই প্রয়াসে শিক্ষিত ও ছাত্রসমাজ বাংলা ভাষার দাবি সম্পর্কে সচেতন হয়েছিলেন এবং এভাবেই ভাষা আন্দোলনের ক্ষেত্র প্রস্তুত হয়েছিল ।

প্রথম পর্যায়ে রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন দানা বাধে কতকগুলি সরকারী প্ররোচনার প্রতিক্রিয়া হিসেবে । ১৯৪৭ সালের আগস্ট মাসে পাকিস্তান অস্তিত্বে আসে আর সে বছরেরই নভেম্বর মাসে শাসকরা পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ বাঙালির ভাষা বাংলা বাদ দিয়ে গৌরবে বহুবচনের মতো উর্দুর সাথে ইংরেজিতে লেখা খাম,পোস্ট কার্ড, ডাকটিকেট,রেলটিকেট, মানি অর্ডার ফর্ম ইত্যাদি ছেপে চালু করে দেয় । পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় পাবলিক সার্ভিস কমিশনের তদানীন্তন সচিব মিঃ গুড ইন ১৯৪৭ সালের ১৫নভেম্বর তারিখে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চতর সিভিল সার্ভিস পরীক্ষার বিষয়াদী সম্পর্কে একটি সার্কুলার প্রেরণ করেন । এই সার্কুলারে ঐ পরীক্ষার জন্য সর্বমোট ৩১টি বিষয় দেয়া হয়, যার মধ্যে নয়টি ছিল ভাষা ; এই সকল ভাষার মধ্যে হিন্দি, উর্দু, ইংরেজি,জার্মান, ফরাসি এমনকি ল্যাটিন ও সংস্কৃতও স্থান পায় কিন্তু স্থান পায় না পাকিস্তানের অধিকাংশ জনগণের মাতৃভাষা বাংলা ।এই পটভূমিতে ১৭-১১-১৯৪৭তারিখে বাংলাকে পুর্ববঙ্গের সরকারী ভাষা করার দাবি জানিয়ে পুর্ব্বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর নিকট এক স্মারকলিপি পেশ করা হয় ।

ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে তৎকালীন রাজধানী করাচীতে একটি গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। পাকিস্তানের তৎকালীন কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী ফক্লুর রহ্মানের ভাষায় এই শিক্ষা সম্মেলনের মূল উদ্দেশ্য ছিল To create an elete that will determine the quality of new civilization.৬-১২-১৯৪৭ তারিখে ‘মর্নিং নিউজ’ এ এই শিক্ষা সম্মেলনে উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার জন্য একটি সর্বসম্মত প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে মর্মে সংবাদের প্রতিবাদে ঐদিনই দুপুর দুইটার সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা ইন্টারমিডিয়েট কলেজ, জগন্নাথ ইন্টারমিডিয়েট কলেজ ও অন্যান্য কলেজসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এক প্রতিবাদ সভা করে । এতে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক তমদ্দুন মজলিশের সম্পাদক জনাব আবুল কাসেম ।বক্তৃতা করেন মুনীর চৌধুরী, এ কে এম আহসান প্রমুখ এবং প্রস্তাব পাঠ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের ভিপি ফরিদ আহমদ ।প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এটাই ছিল সর্ব প্রথম ছাত্রসভা । বাংলাদেশের অন্য সকল অন্দোলনের মত রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের সূতিকাগারও তাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ।সভাশেষে এক শোভাযাত্রা সচিবালয়ের সম্মুখে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে । সেখানে কৃষিমন্ত্রী মুহাম্মদ আফজল শিক্ষার্থীদের সামনে বক্তৃতা করেন এবং তাদের আন্দোলন সমর্থন করেন । এরপর মিছিল প্রাদেশিক মন্ত্রী নূরুল আমিন, হামিদুল হক চৌধুরী এবং প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দীনের বাসভবনেও গমন করে এবং বাংলআর প্রতি মৌখিক সমর্থন ও প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে লিখিত আশ্বাস দায় করে । মিছিলটি ‘মর্নিং নিউজ’ পত্রিকা অফিসের সামনেও বিক্ষোভ করে ।

১৯৪৭ সালের ডিসেম্বরের শেষের দিকে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার সমর্থনে প্রথম রাষ্ট্রভাষা সংরাম পরিষদ গঠন করা হয় । তমদ্দুন মজলিশের অধ্যাপক নুরুল হক ভূইয়া এই কমিটির আহবায়ক ছিলেন । এদিকে পূর্ব পাকিস্তানের জনগনের ভয়াবহ ভবিষ্যৎ অনুধাবন করে এর প্রতিকারের জন্য ১৯৪৮সালের ৪জানুয়ারী নিম্নলিখিত ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে গঠিত হয় পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগঃ আহবায়ক নঈমুদ্দীন আহমদ । সদস্যঃ আবদূর রহমান চৌধুরী, শেখ মুজিবুর রহমান, অলি আহাদ প্রমুখ । ছাত্রলীগের উদ্যোগে জানুয়ারীতে ঢাকায় ৭দিন ব্যাপী একটি ওয়ার্কাস ক্যাম্প করা হয় যাতে মুসলিম লীগের বাংলা সংস্কৃতিকে হিন্দুয়ানী সংস্কৃতি এবং বাংলাকে হিন্দুয়ানী ভাষা এবং সেই সুবাদে উর্দু অপেক্ষা নিচুস্তরের প্রমান করার জন্য ধর্মের আড়ালে যে প্রচারণা চালানো হচ্ছিল তার বিপক্ষে কার্যকর প্রতিরোধ গড়ার কৌশল আলোচিত হয় ।

১৯৪৮সালের ২৩ফেব্রুয়ারী পাকিস্তান গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন করাচীতে শুরু হয় । অধিবেশনে পূর্ব বাংলার অন্যতম প্রতিনিধি ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা বিষয়ে একটি সুংশোধণী প্রস্তাব উত্থাপন করেন । প্রস্তাবটি ছিল , উর্দু ইংরেজির সঙ্গে বাংলাকেও গণপরিষদের অন্যতম ভাষা হিসেবে ব্যবহার করা হোক । সংসদ সদস্য প্রেমহরি বর্মন,ভূপেন্দ্র কুমার দত্ত এবং শিরিষ চন্দ্র চট্রপাধ্যায় এই প্রস্তাবে সমর্থন দেন । তমিজুদ্দিন খানের নেতৃত্বে পরিষদের সকল মুসলমান সদস্য (সবাই মুসলিম লীগের)এই প্রস্তাবের বিরোধীতা করেন । ৫ ফেব্রুয়ারী সুংশোধণী প্রস্তাবের উপর আলোচনা শুরু হলে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান বলেন পাকিস্তানের অধিবাসীদের মধ্যে বিরোধ সৃস্টি করা এবং একটি সাধারণ ভাষার দ্বারা ঐক্যসূত্র স্থাপনের প্রচেস্টা হইতে মুসলমানদের বিচ্ছিন্ন করাই এই প্রস্তাবের উদ্দেশ্য ।পূর্ব বাংলার প্রাধানমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিন সদম্ভে ঘোষণা করে বলেন যে, পূর্ব বাংলার অধিকাংশ অধিবাসীরই এই মনোভাব যে, একমাত্র উর্দূকেই রাষ্ট্রভাষা রূপে গ্রহন করা যাইতে পারে । নাজিমুদ্দীনের এই বক্তব্যের প্রতিবাদে ঢাকাসহ পূর্ব পাকিস্তানের সর্বত্র প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ শুরু হয় । আন্দোলন চলতে থাকে ।এ সময় তমদ্দুন মজলিশ, গণ আজাদী লীগ, পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ ও বিভিন্ন ছাত্রাবাসের যৌথ উদ্যোগে ২মার্চ ফজলুল হক হলে সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক কর্মীদের এক সভায় সর্ব দলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হয় ।  সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক মনোনিত হন শামসুল আলম ।

১১ মার্চ সাধারণ ধর্মঘট পালিত হয় । ভোরে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল থেকে ছাত্ররা বের হয়ে আসে । ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পূর্ণ ধর্মঘট পালিত হয় । ছাত্র ও ছাত্রনেতারা সেকেরেটারিয়েট এর সামনেও শ্লোগান দিয়ে অফিস বর্জনের অনুরোধ জানিয়ে পিকেটিং করছিলেন । শামসুল হোক, শেখ মুজিবুর রহমান, অলি আহাদ প্রমুখ আবদুল গনি রোডের প্রথম গেটে এবং কাজী গোলাম মাহবুব , শওকত আলী, বরকত (ইনি ১৯৫২সালের একুশে ফেব্রুয়ারীর শহীদ আবুল বরকত নন ) প্রমুখ তোপখানা রোডে দ্বিতীয় গেটে পিকেটিং করেন । পুলিশের সাথে সংঘর্ষ হলে কাজী গোলাম মাহবুব ও শওকত আলী তখনি গ্রেফতার হন । তাদের থানায় নিয়ে গেলে দেখা যায় শামসুল হোক,শেখ মুজিবুর রহ্মান,অলি আহাদ ও অন্য অনেককে আগেই গ্রেফতার করে আনা হয়েছে । পুলিশি জুলুমের প্রতিবাদে দুটো আড়াইটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে বিরাট সভা হয় । সভা শেষে ছাত্ররা বিভিন্ন পথে মিছিল করে সেক্রেটারিয়েটের সামনে পৌছলে পুলিশ তাদের বাধা দেয় । সেদিনের ধর্মঘটে ছাত্রদের সঙ্গে কিছু সেক্রেটারিয়েট ও রেল কর্মচারী যোগদান করেন ।১২মার্চ সকালের দিকে জগন্নাথ কলেজে পূর্ব দিনের সরকারী নির্যাতনের প্রতিবাদে সভা হয় । ১৩মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও শহরের অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট পালন করা হয় । ১৪মার্চ পুর্ব বাংলার সর্বত্র বিপুল উদ্দীপনার সঙ্গে ধর্মঘট পালন করা হয় । ১৫মার্চের ধর্মঘটে সেক্রেট্রায়েটের বাঙালি কর্মচারীরা যোগদান করেন । দুপুরর দিকে রেল কর্মচারীরাও ধর্মঘটে অংশ নেন । এভাবেই সমস্ত দেশ গর্জে উঠেছিল রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই ।

১৫ মার্চ সকাল সাতটার শোমোয় খাজা নাজিমুদ্দীনের পোক্ষ ঠেকে মোহাম্মদ আলী ও জনাব খাজা নসরুল্লাহ জনাব কমরুদ্দীনের সঙ্গে সাক্ষাত করেন এবং বলেন যে, কর্ম পরিষদের সদস্যদের সঙ্গে খাজা নাজিমুদ্দীন সাহেব আলোচনা করতে চান এবং কর্ম পরিষদের নির্দেশ তিনি মানতে প্রস্তুত আছেন । সকাল সাড়ে আটটায় কর্মীদের ডাকা হয় ফজলুল হক হলে । বেলা এগারটায় খাজা নাজিমুদ্দীনের সঙ্গে আলোচনা আরম্ভ হয় । বহুক্ষন তর্ক বিতর্কের পর নাজিমুদ্দীন সব কটি শর্ত মেনে নিতে সম্মত হন । জেলে গিয়ে আবুল কাসেম, কমরুদ্দীন প্রমুখ ভাষা আন্দোলনের বন্দীদের চুক্তির শর্তগুলি দেখান । শামসুল হোক, শেখ মুজিবুর রহমান, অলি আহাদ, শওকত আলী, কাজী গোলাম মাহবুব প্রমুখ তাদের সমর্থন জ্ঞাপন করেন । পরিষদের সদস্যরা বর্ধমান হাউজে ফিরে সরকারের পক্ষে প্রধানমন্ত্রী নাজিমুদ্দীন এবং সংগ্রাম পরিষদের পক্ষে কমরুদ্দীন আহমদ চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন ।সংগ্রাম পরিষদের সঙ্গে নাজিমুদ্দীনের চুক্তি করতে বাধ্য হবার কারণ জিন্নাহ ১৯মার্চ ঢাকা শহরে আসছিলেন । ১৫মার্চ ভাষা আন্দোলনে গ্রেফতারকৃত সকলকে মুক্তি দেয়া হয় । সংগ্রাম পরিষদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় পুলিশী জুলুমের প্রতিবাদ স্বরুপ ১৭ মার্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে ধর্মঘট ও সভা হবে কিন্তু কোনো মিছিল হবে না । ১৭মার্চ ঢাকার সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট পালিত হয় । বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনের ছাত্রসভায় অন্যান্যের মধ্যে শামসুল হক ও অলি আহাদ বক্তৃতা করেন । (সম্পাদিত চুক্তি মোতাবেক)জিন্নাহর ১৯ মার্চ ঢাকায় আগমন উপলক্ষ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে ধর্মঘট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় । ২১ মার্চ ১৯৪৮ রেসকোর্স ময়দানে এক সমাবেশে জিন্নাহ বলেনঃ “উর্দুই পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হইবে, অন্য কোনো ভাষা নহে । যে কেহ অন্যপথে চালিত হইবে সেই পাকিস্তানের শ্ত্রু” ।পাকিস্তানি নাগরিকদের শতকরা ৫জনের মাতৃভাষাও উর্দূ ছিল না, ৫৬জনের মাতৃভাষা ছিল বাংলা ।নিজেকে গণতন্ত্রে বিশ্বাসী বলতে যিনি কখনো ক্লান্ত হতেন না, দেখা গেল এক্ষেত্রে তিনি গণতন্ত্রের ত্রিসীমানার মধ্যেও নেই । ২৪ মার্চ তারিখে কার্জন হলে অনুষ্ঠিত ঢাবি’র সমাবর্তনে তিনি পুনরায় ঘোষণা করেন –Urdu and Urdu alone shall be the state language of Pakistan. জিন্নাহর বক্তব্য সমাবর্তন স্থলে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে এবং ছাত্ররা দাঁড়িয়ে নো নো বলে প্রতিবাদ করেন । একইদিনে রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের একটি প্রতিনিধিদল জিন্নাহর সাথে সাক্ষাত করেন । এই প্রতিনিধিদলে ছিলেন শামসুল হক,কমরুদ্দীন আহমদ, আবুল কাশেম, তাজউদ্দিন আহমেদ,মোহাম্মদ তোয়াহা,আজিজ আহমদ, অলি আহাদ,নঈমুদ্দীন আহমদ, শামসুল আলম এবং নজরুল ইসলাম । কিন্তু জিন্নাহ খাজা নিজিমুদ্দীনের স্বাক্ষ্রিত চুক্তিকে একপেশে এবং চাপের মুখে সম্পাদিত বলে প্রত্যাখান করেন । জিন্নাহ কঠোর ভাষায় তাদেরকে শাসিয়ে দেন, যে কোন অসাংবিধানিক আন্দোলন কঠোর হস্তে দাবিয়ে রাখা হবে । ২৮মার্চ জিন্নাহ ঢাকা ত্যাগ করেন এবং সেদিন সন্ধ্যায় রেডিওতে তার দেয়া বক্তব্যে তার অবস্থানের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন । এই ভাবে ১৯৪৭-৪৮সালে সমগ্র দেশের ছাত্র ও জনগনের সম্ররথিত বিরাট সম্ভাবনাময় ভাষা আন্দোলনের দুঃখজনক পরিসমাপ্তি ঘটে ।

১৯৪৮সালের নভেম্বর মাসে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান পূর্ব পাকিস্তান সফরে আসেন । ২৭ নভেম্বর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের এক সমাবেশে ভাষণ দেন । সেখানে ঢাবি এক্সহাত্র সংসদের পক্ষ থেকে তাকে একটি মানপত্র দিয়ে তাতে বাংলা ভাষাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্র ভাষা করার দাবি জানানো হয় । এই মানপত্রটি পাঠ করেন ছাত্র সংসদের জিএস গোলাম আজম । আসলে এটি পাঠ করার কথা ছিল ছাত্র সংসদের ভিপি অরবিন্দ বোসের । কিন্তু লিয়াকত আলীকে ভাষা আন্দোলনের দাবি সংবলিত মানপত্র পাঠ একজন হিন্দু ছাত্রকে দিয়ে করালে তার মনে বিরুপ প্রতিক্রিয়া হবে এবং মুসলিম লীগ সরকার এ নিয়ে নানা প্রকার বিরুপ প্রচার শুরু করবে এই আশ্নগকা থেকেই একজন মুসলমান ছাত্র হিসেবে সেক্রেটারি গোলাম আজমকে সেটা পাঠ করতে দেয়া হয়েছিল । উল্লেখ্য গোলাম আজম রাজনৈতিকভাবে মুসলিম লীগ সরকারের নীতির একনিষ্ঠ সমর্থক ছিলেন । রাজনৈতিক অবস্থানের বিপরীতে ডাকসুর জিএস পদের কারনে সমাবেশে দাবিনামা পাঠের মধ্য দিয়েই গোলাম আজমের ভাষা আন্দোলনে ভূমিকার অবসান হয় । এরপর থেকে ১৯৫২ পর্যন্ত কোন আন্দোলনে গোলাম আজমের অংশগ্রহন বা কোন ভূমিকা রাখার কথা কোথাও জানা যায় না ।

১৯৪৮ সালের পর বাংলা ভাষা আন্দোলন কিছুটা স্থিমিত হয়ে পড়লেও পাকিস্তানের শাসকশ্রেণির বাংলা ভাষা বিরোধী ষড়যন্ত্র থেমে থাকেনি । ১৯৪৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর করাচীতে অনুষ্ঠিত নিখিল পাকিস্তান শিক্ষা সম্মেলনে বাংলা ভাষা আরবী হরফে লেখার প্রস্তাব উত্থাপন করেন শিক্ষামন্ত্রী ফজলুর রহমান । অতঃপর ৭ ফেব্রুয়ারী ১৯৪৯ তারিখে পেশোয়ারে অনুষ্ঠিত শিক্ষা উপদেস্টা বোর্ডের সভায় তিনি বাংলা হরফকে বাদ দিয়ে আরবী হরফে বাংলা লেখা প্রবর্তনের ঘোষণা দেন । তার এই ঘোষণার প্রতিবাদে ২৪ ফেব্রু্যারি ১৯৪৯তারিখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের ছাত্রছাত্রীরা মোস্তফা নূরুল ইসলামের সভাপতিত্বে এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করেন এবং নজরুল ইসলাম, আশরাফ সিদ্দিকী, ইলা দাসগুপ্ত, নূরুল ইসলাম , মমতাজ বেগম, রিজিয়া সিদ্দিকী, খলিলুর রহমান প্রমুখের সমন্বয়ে একটি বর্ণমালা সাব কমিটি গঠন করা হয় । এদিকে আরবী হরফে বাংলা লেখা প্রস্তাব নিয়ে কাজ করার জন্য ৯মার্চ ১৯৪৯ মৌলানা আকরাম খাকে চেয়ারম্যান করে ১৬সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয় এবং তাদের এই বিষয়টি নিয়ে একটি রিপোর্ট প্রস্তুত করতে বলে । আরবী হরফে বাংলা লেখা প্রবর্তনের এই প্রয়াসের মূল উদ্দেশ্য ছিল, বাংলা ভাষার স্বাতন্ত্র্য স্বকীয়তা ও বাঙালি সংস্কৃতিকে ধবংস করা এবং রাষ্ট্র ভাষার দাবি থেকে বাংলাকে দূরে সরিয়ে রাখা । পাকিস্তান আমলে সরকারি তরফে আরবী হরফে বাংলা লেখা প্রবর্তনের দার্শনিক ও মূল প্রবক্তা ছিলেন কেন্দ্রীয় বাঙালি মন্ত্রী ফজলুর রহমান । তার সমর্থন , সাহায্য ও প্রেরণায় বুদ্ধিজীবী শিক্ষাবিদ সরকারি কর্মচারীসহ অনেকেই প্রকাশ্যে বা গোপনে এই প্র্য়াসে যুক্ত হন । তবে বহুকাল ধরে এই বিষয়ে সক্রিয় ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন চট্রগ্রামের মওলানা জুলফিকার আলী । তিনিই এই নিস্ফলা জমিতে সবচেয়ে বেশি অর্থহীন শ্রম দিয়েছিলেন । আরবী হরফে বাংলা লেখার পক্ষে সরকারি উদ্যোগ, রাজনীতিবিদ ও আলেম সমাজের প্রচেষ্টার পাশাপাশি বুদ্ধিজীবীরাও নীরব থাকেননি । কবি গোলাম মোস্তফা, সাহিত্যিক মোহাম্মদ ওয়াজেদ আলী, অধ্যক্ষ শাইখ শরফুদ্দিন, সাংবাদিক মুজিব্র রহমান খা,সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন, ডঃ সৈয়দা ফাতেমা সাদেক প্রমুখ খ্যাত অখ্যাত বুদ্ধিজীবী পত্রপত্রিকায় প্রবন্ধ লিখে এই বিষয়ে তাদের সমর্থন পেশ করেন । অপরপক্ষে কিছু বাস্তব বুদ্ধি ও মুক্তমনের পন্ডিত –বুদ্ধিজীবী শিক্ষাবিদ হরফ পরিবর্তনের যুক্তি খন্ডন ও প্রস্তাব অগ্রাহ্য করে এর বিপক্ষে মত দেন । তাদের মধ্যে ডঃ মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, ডঃ মুহম্মদ এনামুল হক, আবদুল হক,মোহাম্মদ ফেরদাউস খান ও আবদুল গফুরের নাম বিশেষভাবে উল্লেখ করতে হয় । প্রিন্সিপাল ইব্রাহিম খাঁ,ডঃকাজী মোতাহার হোসেন, কবি জসীমউদ্দীন প্রমুখও আরবী হরফে বাংলা লেখার বিপক্ষে ছিলেন এবং এই প্রয়াসের বিরোধিতা করেন ।

১৯৫০সালের ১১মার্চ কমিউনিস্ট ভাবধারার ছাত্রনেতা আবদুল মতিনের নেতৃত্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গঠিত হয় Dhaka University State Language Movement Committee. এই কমিটি ভাষা আন্দোলনের বিভিন্ন পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে । বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন পূর্ব পর্যন্ত কমিটির কর্মকান্ড ছিল নিম্নরুপঃ

১৯৫০

১১মার্চঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাস্ট্র ভাষা সংগ্রাম কমিটি গঠন ।

এপ্রিলঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংগ্রাম কমিটির পতাকা দিবস পালন ।

১৯৫১

১১মার্চঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাস্ট্র ভাষা সংগ্রাম কমিটির দেশব্যাপী ১১মার্চ পালনের আহবান ।

এপ্রিলঃ পাকিস্তান গণপরিষদের সদস্যদের কাছে বাংলাকে পাকিস্তানের রাস্ট্র ভাষার দাবিতে স্মারকলিপি প্রেরণ ।

সেপ্টেম্বরঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাস্ট্র ভাষা সংগ্রাম কমিটির স্কুল, কলেজ ও স্তানীয়ভাবে দেশের সর্বত্র সংগ্রাম কমিটি গঠনের আহবান ।

ভাষা আন্দোলন পুনরায় জোরালো হবার পেছনে ২৭ জানুয়ারি ১৯৫২ তারিখে খাজা নাজিমুদ্দীনের ভাষণ প্রধান নিয়ামক হিসেবে কাজ করে । ২৭ জানুয়ারি ১৯৫২ তারিখে ঢাকার পল্টন ময়দানে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দীন ‘পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হবে এমাত্র উর্দূ’ এবং ‘উর্দূ হরফে বাংলা লিখনের প্রচেস্টা সাফল্যমন্ডিত হচ্ছে’ বলে উক্তি করেন । তার বক্তৃতায় প্রদেশব্যাপী বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয় । ২৯ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদের এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয় ।৩০জানুয়ারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাস্ট্র ভাষা সংগ্রাম কমিটির আহবানে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতীকি ধর্মঘট পালন করা হয় ও ৪ ফেব্রুয়ারী নাজিমুদ্দীনের বক্তব্যের প্রতিবাদে ঢাকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘটের আহবান করা হয় । বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রদের সহযোগে এক বিরাট শোভাযাত্রা বের করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হয় । ৩১তারিখে নাজিমুদ্দীনের বক্তব্যের প্রতিবাদে আন্দোলন গড়ে তোলার উদ্দেশ্যে পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগের উদ্যোগে বার লাইব্রেরী হলে আহুত এক সর্বদলীয় সভা অনুষ্ঠিত হয় ।সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী মুসলিম লীগের সভাপতি মওলানা ভাসানী ।সভায় আরবি লিপিতে বাংলা লেখার সরকারি প্রস্তাবের তীব্র বিরোধিতা করা হয় এবং ৩০জানুয়ারীর সভায় গৃহীত ধর্মঘটে সমর্থন দেওয়া হয় । পরিষদ ২১ ফেব্রুয়ারী হরতাল, সমাবেশ ও মিছিলের বিস্তারিত কর্ম পরিকল্পনা গ্রহন করে । এই সভায় আন্দোলন পরিচালনার জন্য সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা কর্মপরিষদ নামে একটি কমিটি গঠন করা হয় । কমিটির আহবায়ক নির্বাচিত হন কাজী গোলাম মাহবুব । কর্ম পরিষদের সদস্য ছিলেন মওলানা ভাসানী, আবুল হাশিম, শামসুল হক, আবদুল গফুর, আবুল কাশেম, আতাউর রহমান খান, কমরুদ্দিন আহমদ, খয়রাত হোসেন, আলমাস আলী, আবদুল আওয়াল, অলি আহাদ, মোহাম্মদ তোয়াহা, শামসুল হক চৌধুরী, খালেক নেওয়াজ খান, মীর্জা গোলাম হাফিজ, মজিবুল হক, হেদায়েত হোসেন চৌধুরী,শামসুল আলম, আনোয়ারুল হক খান, গোলাম মাওলা, সৈয়দ নুরুল আলম, নুরুল হুদা, শওকত আলী, আবদুল মতিন, আখতারুদ্দিন আহমদ ।

৩ফেব্রুয়ারী শ্নিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে রাষ্ট্র ভাষা প্রসঙ্গে খাজা নাজিমুদ্দীন বলেন যে, পল্টনের জন্সভায় তিনি এই সম্পর্কে কেবল্মাত্র কায়েদে আজম মরহুমের উক্তির পুনরাবৃত্তি করেছেন । চূড়ান্তভাবে এই সম্পর্কে সিদ্ধান্তগ্রহন করার ক্ষমতা কেবলমাত্র গণপরিষদেরই আছে । উর্দুকে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা এবং আরবী অক্ষরে বাংলা ভাষার প্রচলন করার বিরুদ্ধে ৪ ফেব্রুয়ারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং শহরের সকল স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীগন ধর্মঘট পালন করেন । বেলা ১১টা হতে শহরের বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা শোভাযাত্রা সহকারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে জমায়েত হোন । জনাব গাজীউল হকের সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে ছাত্রছাত্রীদের এক সভা হয় । সভা শেষে প্রায় দশ হাজার ছাত্রছাত্রী এক বিরাট শোভাযাত্রা সহকারে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গন হতে বের হয়ে প্রাদেশিক প্রধানমন্ত্রী জনাব নুরুল আমীনের বাসভবন হয়ে হাইকোর্টের সম্মুখ দিয়ে নবাবপুর রোড, পাটুয়াটুলি, আর্মেনিটোলা ও নাজিমুদ্দীন রোড অতিক্রম করে । ছাত্রছাত্রীগন ‘রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই’, ‘আরবী হরফে বাংলা লেখা চলবে না’ প্রভৃতি শ্লোগান দেয় । শহরের ৩ শতাধিক ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয় হতে মূল শোভাযাত্রার সাথে বের হয়ে সেক্রেটারিয়েট ভবনের নিকট হতে তাদের নিজস্ব শোভাযাত্রা সহকারে বিক্ষোভ করতে করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে সমবেত হয়ে ছত্রভঙ্গ হয় । ২০ ফেব্রুয়ারী বুধবার ধাকার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ১৪৪ধারার আদেশ জারি করে এক মাসের জন্য ঢাকা শহরে সভা,শোভাযাত্রা প্রভৃতি নিষিদ্ধ করেন । এমতাবস্থায় ২০ফেব্রুয়ারী রাতে ৯৪ নবাবপুর রোডে অবস্থিত আওয়ামী মুসলিম লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আবুল হাশিমের সভাপতিত্বে সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা কর্ম পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত হয় । বৈঠকে ১৪৪ধারা ভঙ্গ করা না করা প্রসঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা ও বাগবিতন্ডার পর রাত নয়টার দিকে ভোটাভুটির দ্বারা সিদ্ধান্ত গ্রহনের প্রস্তাব গৃহীত হয় । ফজলুল হক হলের প্রতিনিধি শামসুল আলম, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক অলি আহাদ, মেডিকেল কলেজ ইউনিয়নের সভাপতি গোলাম মওলা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক আবদুল মতিন ১৪৪ধারা ভঙ্গের পক্ষে ভোট দেন ।যুবলীগের মোহাম্মদ তোয়াহা ভোটদানে বিরত ছিলেন ।বাকি সবাই (১১জন) ১৪৪ধারা ভঙ্গ না করার পক্ষে ভোট দেন । এভাবে ১৪৪ধারা ভঙ্গ না করার সিদ্ধান্ত জয়যুক্ত হয় । এমতাবস্থায় অলি আহাদ তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার দ্বারা পুরো পরিস্থিতি পালটে দেন ।আবদুল মতিনের জবানীতেঃ “১৯৪৭-৪৮সালের ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্বের মধ্যে একজন অলি আহাদ সব সময় বলতেন,১৪৪ ধারা ভঙ্গ না করে একুশ তথা ভাষা আন্দোলনকে এগিয়ে নেয়া সম্ভব না ।জাতিসত্তা, বাঙালি জাতিসত্তা, সে সত্তার জন্য প্রয়োজনে বাঙ্গালিদের ভিন্ন রাষ্ট্র গঠন ইত্যাদির ভিত্তিতে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার আন্দোলনকে জনাব অলি আহাদ কতখানি দেখতেন সে বিষয়ে আমার প্রশ্ন থাকলেও একটি বিষয়ে আমার কোনও সন্দেহ নেই যে, সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের ২০ফেব্রুয়ারী ১৯৫২তারিখের বৈঠকে জনাব অলি আহাদের ভুমিকা ও সহযোগিতা ছাড়া সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের ১৪৪ধারা ভঙ্গ করার প্রাসঙ্গিক দুইটি মত -১)একুশ তারিখে ১৪৪ধারা ভঙ্গ করা, ২)একুশ তারিখে ১৪৪ধারা ভঙ্গ না করা , ২১ ফেব্র্যারী বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনের ছাত্রসভায় উপস্থিত করার সিদ্ধান্ত গ্রহন সম্ভব হতো না’’।সিদ্ধান্ত হয় যে, একুধ তারিখ জনসভায় ১৪৪ধারা ভঙ্গ করার পক্ষে বক্তব্য রাখবেন আবদুল মতিন এবং বিপক্ষে বক্তব্য রাখবেন শামসুল হক । কর্মীদের ইঙ্গিতেই শহরের

সকল অঞ্ছলের দোকানপাট,গাড়িঘোড়া, যানবাহন,স্কুল,কলেজ বন্ধ হয়ে যেতে লাগল । বেলা ১২টার মধ্যে স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা বিছিন্নভাবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে এসে হাজির হয় । প্রায় সাড়ে ১২টার সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে গাজীউল হকের সভাপতিত্বে সভা অনুষ্ঠিত হয় । ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক জনাব আবদুল মতিন আন্দোলনের পূর্বাপর পর্যায় ও ১৪৪ধারা প্রবর্তনের ফলে উদ্ভুত বিশেষ সঙ্কটজনক পরিস্থিতির পর্যালোচনা করেন এবং সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের উপরেই ১৪৪ধারা সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহনের দায়িত্ব ছেড়ে দিলেন । তখনই সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা কর্ম পরিষদের পক্ষ থেকে জনাব শামসুল হক ১৪৪ ধারা ভঙ্গ না করে শান্তিপুর্নভাবে আন্দোলন চালানোর জন্য বক্তৃতা দেন । কিন্তু আন্দোলন সম্পর্কিত ছাত্রদের বিভিন্ন প্রশ্নের সম্মুখে বিপর্যস্ত হয়ে তিনি তার সহকর্মীগনসহ সভা থেকে বেরিয়ে যেতে বাধ্য হলেন । অতঃপর ব্যাপকতর পর্যালোচনার পর ভাষার দাবিকে সুপ্রতিষ্ঠিত করার জন্য পরিস্থিতির মোকাবিলা করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয় । ছাত্ররা ১৪৪ধারা ভঙ্গের পক্ষে অভিমত দেন । বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে সভা চলার সময় হতে বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার চতুর্দিকে রাইফেলধারী পুলিশ মোতায়েন ছিল ।বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ও বিভাগীয় ডীঙ্গন এ সময় উপস্থিত ছিলেন । এ সময় ছাত্রনেতা আব্দুস সামাদ প্রস্তাব করলেন , ছাত্ররা দশজন দশজন করে বের হবে । এটা এক ধ্রনের সত্যাগ্রহ । এতে একদিকে ১৪৪ ধারা উপেক্ষা করা হবে, অপরদিকে ব্যাপক আকারের গোলযোগ এড়ানো সম্ভব হবে । ছাত্ররা এ প্রস্তাব মেনে নিল শেষ পর্যন্ত । সঙ্গে সঙ্গে সভা ভঙ্গ করে দশজনী মিছিল বের করার জন্য ছাত্ররা শ্লোগান দিতে দিতে গেটের দিকে অগ্রসর হতে থাকে । এ সময় লুলিশ বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে কাঁদানো গ্যাস নিক্ষেপ করার ফলে কিছু সংখ্যক ছাত্র দৌড়িয়ে গিয়ে রাস্তার অপর পাশের বিশ্ববিদ্যালয় ময়দানে আশ্রয় গ্রহন করে এবং কিছু সংখ্যক ছাত্রকে দৌড়িয়ে মেডিকেল কলেজের দিকে যেতে দেখা যায় । বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে সমবেত ছাত্ররা কাঁদানো গ্যাস নিক্ষেপের প্রতিবাদে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে । এসময় ভিসি পুলিশের নিকট বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গনে কাঁদানো গ্যাস নিক্ষেপের প্রতিবাদ জানান । এরপর ভিসির অনুরোধক্রমে ছাত্ররা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দলে বিভক্ত হয়ে শান্তিপূর্নভাবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গন ত্যাগ করতে শুরু করে । রাস্তায় বের হলেই ১৪৪ধারা অমান্য করা হয়েছে বলে পুলিশ অনেক ছাত্রকে গ্রেফতার করে এবং বহু ছাত্রকে মটরে করে তেজগাও নিয়ে ছেড়ে দেয় । ৬২জনকে পুলিশ গ্রেফতার করে ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে আটক রাখে । গ্রেফতারের ফলে ছাত্রমহলে উত্তেজনার সৃষ্টি হয় । এমতাবস্থায় ডাকসু জি এস শাফিয়া খাতুন, সুফিয়া আহমেদ, রওশন আরা বাচ্চু, হালিমা খাতুন প্রমুখের নেতৃত্বে ছাত্রীরা মিছিল করে রাস্তায় বেরিয়ে আসেন। এদিকে মেডিকেল কলেজের সামনে সমাবেশের প্রস্তুতি চলছিল । বেলা অনুমান ২ঘটিকার সময় গণপরিষদের সদস্যগন পরিষদ অভিমুখে গমনকালে ছাত্ররা পথ রোধ করে পরিষদে রাষ্ট্র ভাষা সম্পর্কে আলোচনা করার ও পুলিশী জুলুমের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোর জন্য অনুরোধ জানায় । এ সময় রাস্তায় ছাত্রদের সমাবেশ হতে থাকে । পুলিশ ছাত্রদের চলে যেতে বললে তারা যেতে অস্বীকার করে । এরপর পুলিশ কাঁদানো গ্যাস নিক্ষেপ করে ও লাঠিচার্জ করে এবং ছাত্ররা পুলিশের উপর প্রস্তরখন্ড নিক্ষেপ করতে থাকে । ছাত্ররা যতই শ্লোগান দেয় মিছিলে একত্রিত হয় ততই পুলিশ হানা দেয় । কয়েকবার ছাত্রদের উপর কাঁদানো গ্যাস ছেড়ে তাড়া করতে করতে মেডিকেল কলেজ হোস্টেলের ভেতরে ঢুকে পড়ে । হোস্টেল প্রাঙ্গনে ঢুকে ছাত্রদের উপর আক্রমন করায় ছাত্ররা বাধ্য হয় ইট পাটকেল ছুড়তে । একদিকে ইট পাটকেল আর অন্যদিক থেকে তার পরিবর্তে কাঁদানো গ্যাস আর লাঠি চার্জ আসে । পুলিশ তখন দিগবিদিগ জ্ঞানশুণ্য হয়ে ছাত্রদের দিকে লক্ষ্য করে গুলি চালায় । ঘটনাস্থলেই আবদুল জব্বার ও রফিকুদ্দিন আহমদ শহীদ হন । আর ১৭জনের মত আহত হন । তাদের হাসপাতালে নেয়া হয় । তাদের মধ্যে রাত আটটার সময় আবুল বরকত শহীদ হন । পুলিশের গুলি চালানোর সংবাদ দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে শহরের প্রান্তে প্রান্তে । তখনি অফিস আদালত সেক্রেটারিয়েট ও বেতার কেন্দ্রের কর্মরচারীরা অফিস বর্জন করে বেরিয়ে আসে । শহরের সমস্ত লোক তখন মেডিকেল হোস্টেল প্রাঙ্গনে এসে হাজির হতে থাকে । মাইক দিয়ে তখন শহীদদের নাম ঠিকানা ঘোষণা করা হয় । মেডিকেল হোস্টেলের ভিতর গায়েবানা জানাজা পড়া হয় । জানাজা শেষে এক শোভাযাত্রা বের হয় । শোভাযাত্রায় কর্মী ও যুবকগণ সহদের রক্তাক্ত জামা কাপড় লাঠির অগ্রভাগে বেধে মাতম করতে থাকে । পথ পার্শের জনতা এই মর্মান্তিক দৃশ্য দেখে তাদের অনুসরন করে । শোভাযাত্রার মাঝে পুলিশ হঠাত লাঠিচার্জ করার পরও ছাত্রজনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে না পেরে গুলি চালায় । এখানেই হাইকোর্টের কেরানী শফিউর রহমান শহীদ হন । ছত্রভঙ্গ ছাত্রজনতা তখন হাইকোর্ট আর কার্জন হলের দিকে আশ্রয় নেয় । শোভাযাত্রার এই অংশ সদরঘাট এলে পুনরায় তাদের উপর লাঠিচার্জ করা হয় । অনেকেই আহত হয়ে পড়ে রইল রাস্তার দুপাশে । মিছিল মিটফোর্ড হয়ে চকবাজার দিয়ে মেডিকেল হোস্টেলে গিয়ে শেষ হয় । পূর্ব্বঙ্গ সরকারের এশতেহারে বলা হয়-কার্জন হল, হাইকোর্ট, নবাবপুর, বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা প্রভৃতি রথানে উচ্ছৃংক্ষল জনতাকে বিচ্ছিন্ন করার জন্য পুলিশের লাঠিচার্জ ও গুলি চালনার ফলে আহত মোট ৪৫জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় । ২ ব্যক্তি নিহত হয় । আজাদের অপর এক প্রতিবেদন অনুযায়ী ৪জনের বেশি লোক শহীদ হয় । সৈনিকের প্রতিবেদন অনুযায়ী শহিদানের সংখ্যা ৮জন । এদিন ব্যবস্থা পরিষদে সর্ব সম্মতিক্রমে গৃহীত এক প্রসাতবে গণপরিষদের নিকট বাংলাকে পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা করার সুপারিশ করা হয় । প্রধানমন্ত্রী জনাব নুরুল আমীন প্রস্তাবটি উত্থাপন করেন । এদিন আজাদ পত্রিকার সম্পাদক জনাব আবুল কালাম শামসুদ্দিন পূর্ব পাকিস্তান পরিষদের সদস্যপদ থেকে ইস্তফা দেন । ২৩ ফেব্রুয়ারী শহরের সর্বত্র পূর্ণ হরতাল ও বিক্ষোভ চলতে থাকে ।বহু মিলিটারি শহরের রাস্তাগুলিতে ঠল দিতে থাকে । সেক্রেটারিয়েটসহ সকল অফিস আদালতে ধর্মঘট অব্যাহত থাকে । রাত ৮টা হতে ভোর ৫টা পর্যন্ত সান্ধ্য আইন জারি থাকে । সরকারি স্বৈরাচারের প্রতিবাদে এদিন মওলানা ভাসানী এক বিবৃতি দেন । তমদ্দুন মজলিশও বিবৃতি দেয় । এদিনে সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা কর্মপরিষদকে আন্দোলন চালানোর জন্য আবার পূর্ণ কর্তৃত্ব দেয়া হয় । বেলা প্রায় ৩টার সময় জনাব আবুল হাশিমের সভাপতিত্বে কর্ম পরিষদের সভা বসে । সভায় নয় দফা দাবি স্থিরিকৃত হয় । রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে যেসব শহীদ বীর ২১ ও ২২ তারিখে পুলিশের গুলিতে শহীদ হয়েছেন তাদেরকে স্মরনীয় করে রাখার উদ্দেশ্যে ঢাকা মেডিকেল কলেজের হোস্টেল প্রাঙ্গনে নিজ হস্তে একরাত্রির মধ্যে ১০ফুট উচ্চ ও ৬ফুট চওড়া একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মান করেন । আপাত বিচারে নিস্প্রান সেই স্থাপত্য ঢাকাবাসী মানুষের সংগ্রামী চেতনার প্রতীক হয়ে ওঠে ।

২৪ ফেব্রুয়ারী ইসলামপুর রোড ও ঢাকা রেল স্টেশনের আরএমএস অফিসের নিকট জনতার উপর পুলিশ লাঠিচার্জ করে । ফলে কয়েক ব্যক্তি আহত হয় । এদিন শফরের নানা স্থানে সরকারের সমালোচনামূলক নানা নতুন ধরনের প্রচারপত্র বিলি করা হয় । ২৫ ফেব্রুয়ারী ঢাকা শহরে পূর্ন হরতাল পালিত হয় । এদিন পুলিশ তিনবার যুবলীগ অফিসে হানা দেয় । এদিন পূর্ব্বঙ্গ সরকারের এক এশতেহারে বলা হয়, প্রদেশে আইন ও শৃংখলা ভঙ্গের ষড়যন্ত্রের কয়েকজন নেতা এবং ষড়যন্ত্রের সাথে জড়িত আরও কয়েক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে । আজাদ পত্রিকার এক প্রতিবেদন অনুযায়ী গ্রেফতারকৃতরা হলেন , জনাব আবদূর রশীদ তর্কবাগীশ এমএলএ, জনাব খয়রাত হোসেন এমএলএ,জনাব আবুল হাশিম , মিঃমনোরঞ্জন ধর এমএলএ এবং মিঃ গোবিন্দ লালা ব্যানার্জি এমএলএ । ক্রমাগত ধর্মঘটে অপেক্ষাকৃত দরিদ্রদের আর্থিক সংকটের আশংকা থাকায় এদিন সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা কমিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ব্যতীত অপরাপর প্রতিষ্ঠানের ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হয় । কমিটির ৯দফা দাবি মেনে নেয়ার জন্য সরকারকে ৯৬ঘন্টার সময় দেয়া হয় এবং ৫ মার্চ প্রদেশের সর্বত্র শহীদ দিবস পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয় ।

নেতৃত্বের দিক থেকে আন্দোলনের কর্মপদ্ধতি সম্পর্কে উপযুক্ত সিদ্ধান্ত ঘোষি্ত না হবার ফলে এবং নেতৃত্বের প্রতি জনসাধারণের পর্যাপ্ত আস্থার অভাবে আন্দোলনে ধীরে ধীরে ভাটা আসতে থাকে । ২৫ ফেব্রুয়ারী অনির্দিস্টকালের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয় এবং ছাত্রদের হল ছেড়ে যেতে বাধ্য করা হয় । আন্দোলনের নামে প্রকাশ্যে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারি করা হয় । আর ছাত্র ও রাজনৈতিক কর্মীদের যথেচ্ছ গ্রেফতার চলতে থাকে । প্রধানত নেতৃত্বের দুর্বলতার কারনেই পূর্ব বাংলার জনগনের ১৯৫২সালের ফেব্রুয়ারী অভ্যুত্থান তখন কোনও সাফল্যজনক যৌক্তিক পরিনতি লাভ করতে পারেনি । নানা কৌশলে নুরুল আমীন সরকার এই গণঅভ্যুত্থান দমনে সক্ষম হয় ।

তবে কি বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন ব্যর্থ ছিল ? অবশ্যই নয় । এটা ঠিক আন্দোলনের তাতক্ষনিক কোন ফল পাওয়া যায়নি কিন্তু ভাষা আন্দোলনের সুদূর প্রসারি ফল অনস্বীকার্য । এই আন্দোলনের ফলে সরকারি দল মুসলিম লীগ জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে ১৯৫৪এর নির্বাচনে শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয় যুক্তফ্রন্টের কাছে । বাংলাকে পাকিস্তানের দ্বিতীয় রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে সংবিধানে পরিবর্তন আনা হয় ২৯ফেব্রুয়ারী ১৯৫৬সালে । সংবিধানের ২১৪(১)অধ্যায়ে রাষ্ট্র ভাষা সম্পর্কে লেখা হয়ঃ The state language of Pakistan shall be Urdu and Bengali.

বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলন বিশ্বের মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাসে এক অনন্য ঘটনা । বস্তুত ভাষা আন্দোলন ছিল পশ্চিম পাকিস্তানি ঔপনিবেশিক শাসন শোষণের বিরুদ্ধে পূর্ব বঙ্গের শোষিত জনগনের সুদীর্ঘ সংগ্রামের সংগঠিত সূচনা । এটি ছিল দেশের প্রথম গণতান্ত্রিক ও সাংস্কৃতিক আন্দোলন । সেক্যুলার এই আন্দোলনে পূরব্ব বাংলায় জিন্নাহর দ্বিজাতিতত্ত্বের ধবংসের বীজ রোপিত হয় ।

Developed By The IT-Zone