ঢাকাশনিবার , ১৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভাল নেই সুরাবই পালপাড়ার মৃৎশিল্পীরা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ১৮, ২০২০ ৬:২৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সৈয়দ  হাবিবুর  রহমান ডিউকঃ   শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়ন এর সুরাবই গ্রামের পালপাড়া মৃশিল্পের জন্য বহুল পরিচিত। কালের বিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসলে ও তাদের পুর্বপুরুষের ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্য এখনো ১৫-২০টি পরিবার মাটির তৈরি হাড়ি, পাতিল, কলস, ডাকনা, মাটির ব্যাংক,  ইত্যাদি বানিয়ে তাদের জীবীকা নির্বাহ করছেন। সারাদেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের আশংকায় লকডাউনের কারণে তাদের পেশায় ও পড়েছে এর প্রভাব, ভাল নেই এলাকার শ্রমজীবী মৃৎশিল্পীরাও।

ছবি : মৃৎশিল্পীদের তৈরী করা মাটি বাসন-কোসন

সরেজমিনের গিয়ে সুরাবই পালপাড়ার মৃশিল্পীদের সাথে কথা বলে উঠে আসে তাদের নানারকম কষ্ট আর হতাশার কথা।  কোনরকম খেয়ে না খেয়েই জীবন চলছে তাদের। শায়েস্তাগঞ্জ এর নসরতপুর থেকে কাঁদা মাটি ১২০০ টাকা গাড়ি হিসেবে কিনে এনে তারা তৈরি করেন মাটির হাঁড়িপাতিল। তাদের প্রথা অনুযায়ী বৈশাখ মাসে তাদের জিনিস বানানোর চাক বন্ধ রাখা হয়।  তাই তারা হাত দিয়েই বানাচ্ছেন মাটির জিনিস। নিঁপুণতার ছোঁয়ায় আর কাঁরুকাজে বাহারি রকমের জিনিস তারা তৈরি করতে পারেন। ওই এলাকায় শুপ্রভা রাণীর সাথে গিয়ে দেখা যায় তিনি মাটির জিনিস তৈরিতে ব্যস্থ আছেন তিনি।তার দুই ছেলে ও তিন মেয়ে নিয়ে এ কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন তিনি। তার দুই ছেলে অজিত ও সুজিত সেলুনের কাজ করে।

ছবি : মাটির তৈরী বাসন-কোসন তৈরীতে ব্যস্ত এক মৃৎশিল্পী

বর্তমানে লকডাউনের কারণে তারা ও কাজ করতে পারছেন না। ফলে অনাহারেই দিন কাটাচ্ছেন তাদের। আরেকজন মৃৎশিল্পী বাসন্তী রাণী। তার স্বাামী অনিল পাল তিনি ঘরবন্দী হয়ে আছেন কয়েকদিন ধরে। তার ও ছোট ছোট তিন ছেলে। তিনি কান্নাজড়িত কন্ঠে এই প্রতিবেদককে বলেন ভাই, ঘরের চাল ফূটো করে পানি পড়ে। কিছু জিনিস বানাই। কিন্তু মেলা বান্নিতেও এবার যাইতে পারিনাই। খুব কষ্টে দিন কাটাচ্ছি আমরা । সুরাবই কুমারহাটির পালপাড়ার বিজন দাস, শ্যমসুন্দর পাল, দুলাল দাস, অনিল দাস, রিকেশ পাল সহ আরো অনেকেই এ পেশার সাথে এখনো জড়িত। সুতাং বাজারের হাটবারে জিনিস বিক্রি করতেন তারা।
এখন বাজারে ও তারা মাটির জিনিস বিক্রি করতে পারেন না। সারাদেশে লকডাউনের কারণে এবার হয়নি বৈশাখী মেলা, চুনারুঘাট এর বান্নি, শায়েস্তাগঞ্জ এর বান্নি, লালচানের শতমুখা বান্নি ও। তাদের সবধরনের আয়ের পথই এখন বন্ধ হয়ে আছে। এদিকে তারা এখনো সরকারি ত্রানের ছোঁয়া ও তাদের ভাগে জুটেনি। দুই একজন দশ টাকা কেজির চাল কিনেছেন বাকিরা অনাহারেই দিন কাটাচ্ছেন।  চলমান সংকট এ এসব সাধারণ নিরীহ মানুষ গুলোর পাশে সরকার তথা বিভিন্ন সংস্থা না দাঁড়ালে করোনায় নয় না খেয়েই অনাহারে মরতে হবে এদেরকে। তাই এ বিষয় এ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন এলাকার সকল স্তরের মানুষ।

Developed By The IT-Zone