ঢাকাশুক্রবার , ৬ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিয়ের পিঁড়িতে বসা হলনা নবীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত প্রবাসী ইমন খানের !

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মার্চ ৬, ২০২০ ৮:৪১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোঃ হাসান চৌধুরী, নবীগঞ্জ প্রতিনিধি:   ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নবীগঞ্জের কান্দিগাওঁ এলাকায় গতকাল শুক্রবার (৬ মার্চ) ভোর ৬ টায় সড়ক দূর্ঘটনায় একই পরিবারের একই পরিবারের ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাস্থলে ৮ জনের মৃত্যু হলেও পরবর্তীতে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সুমনা বেগম (৩৫) এবং তার ৪ বছরের শিশু কন্যা খাদিজার মৃত্যু হয়।


মাত্র কয়েক দিন পরই বিয়ের পিড়িতে বসার কথা ছিল কাতার প্রবাসী ইমন খাঁনের। পরিবারের বড় ছেলের বিয়ের আয়োজনে খুশির বন্যা বইছিল তার পরিবারে। বিয়ের দিন তারিখ ঠিক করতে ভোর রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে মাইক্রোবাস যোগে রওনা দিয়েছিলেন ইমনের বাবা মোঃ আব্বাস উদ্দিন। যাত্রা রাতে হওয়ায় ঠিক মত ঘুমাতেও পারেননি সবাই, তাই গাড়িতে অসপূর্ণ ঘুমটা সেড়ে নিতে চেয়েছিল তারা। কিন্তু সেই যাত্রা থেমে গেলো হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের কান্দিগাঁও এলাকায়। পরানো হলো না আর ইনগেজমেন্টের আংটি। সড়ক দুর্ঘটনায় কেড়ে নিল হবু বরসহ ১০টি তাজা প্রাণ। নিহত ১০ জনের মধ্যে ১০ জনেরই পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন- হবু বর মোঃ ইমন খাঁন (২৬), তার পিতা মোঃ আব্বাস উদ্দিন (৬০), তার ভাই রাব্বি (২৩), তার বন্ধু ইমরান (১৯), তার মামাতো ভাই রাজিব (২২), মহসিন(২১), তার মামী আসমা (২৮), তার মামাতো সুমনা (৩৫), তার মেয়ে খাদিজা (৪) এবং আকুব উদ্দিন (২৭)। নিহতরা সবাই কাছের আত্মীয়। এদের মধ্যে সুমনা ও তার মেয়ে খাদিজা’র মৃত্যু হয় সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়। অপর ৮ জনের মৃত্যু হয় ঘটনাস্থলেই। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানা ও শেরপুর হাইওয়ে থানার পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করে।

 

পুলিশ ও আহত সুত্রে জানাযায়, বরিশাল জেলার এয়ারপোর্ট থানার দক্ষিন বকশীরচর গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা বর্তমানে নারায়নগঞ্জ জেলার ফতুল্লা উপজেলার মুসলিমপাড়া কুসুমবাগ এলাকার বাসিন্দা আইএফসিআই ব্যাংক মতিঝিল শাখার কর্মচারী মোঃ আব্বাস উদ্দিনের পুত্র মোঃ ইমন খাঁন মধ্য প্রাচ্যের দেশ কাতারে বসবাস করতো। সেখান থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের মাধ্যমে সুনামগঞ্জ উপজেলার দিরাই উপজেলার জনৈক এক মেয়ের সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে উঠে। ৫ বছর প্রবাসে থেকে প্রায় ২ মাস পূর্বে কাতার থেকে দেশে এসে তার এ প্রেমের সর্ম্পককে স্থায়ী করতে ইমনের পরিবারের সম্মতিতে শুক্রবার রাতে খাবার খাওয়া শেষে ফতুল্লা থেকে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার উদ্দেশ্যে যাওয়ার পথে সকাল ৬ টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুর ইউপির কান্দিগাঁও নামক স্থানে মাইক্রোবাসটি পৌঁছামাত্র সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। মাইক্রোবাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে ধাক্কা খেয়ে ধুমড়ে মুছড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থালেই নিহত হন কাতার প্রবাসী ইমন খাঁন ও তার বাবা আব্বাস উদ্দিন, ভাই রাব্বিসহ একই পরিবারের ৮ জন।

 

মাইক্রোবাস চালক নাদিম জানায়, শুক্রবার ভোর রাতে নবীগঞ্জ উপজেলার কান্দিগাঁও নামকস্থানে পৌঁছামাত্র এনা পরিবহনের একটি গাড়িকে সাইড দিতে গিয়ে মহাসড়কের পাশ্ববর্তী একটি গাছের সাথে ধাক্কা লাগলে মাইক্রোবাসটি ধুমড়ে মুছড়ে যায়। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আজিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই একই পরিবারের ৮ জন নিহত হন। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সুমনা বেগম ও তার শিশু কন্যা খাদিজার মৃত্যু হয়।

 

শেরপুর হাইওয়ে থানার ওসি এরশাদুল হক ভূইয়া জানান, নিহতদের মৃতদেহ গুলো উদ্ধার করে থানায় রাখা হয়েছে। নিহতদের আত্মীয় স্বজন আসার পর মৃতদেহ সনাক্ত করে পরবর্তী আইনী কার্যক্রম গ্রহন করা হবে।
আহত নারায়নগঞ্জ ফতুল্লার কুসুমবাগ এলাকার বাসিন্দা সুমনা বেগম (৩৫), তার মেয়ে খাদিজা (৪), রফিকুল ইসলামন (৪০), আবুল (৫০) এবং গাড়ি চালক নাদিম মাহমুদকে (৩৬) আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সুমনা ও তার মেয়ে খাদিজা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

শেরপুর হাইওয়ে থানার ওসি মোঃ এরশাদুল হক ভূঁইয়া আরো জানান, নিহতদের পরিবারের সদস্যরা মোবাইল ফোনে পুলিশকে জানিয়েছেন তারা ইমনের সঙ্গে বিয়ের জন্য ঠিক করা মেয়েকে আংটি পরাতে সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে যাচ্ছিলেন। পথে দুর্ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ফতুল্লা থেকে নিহতদের স্বজনরা নবীগঞ্জের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছেন। তারা এলেই মরদেহ হস্তান্তর করা হবে। ঘটনার খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পাল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

Developed By The IT-Zone