ঢাকাশনিবার , ২২ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাহুবলে প্রথমবারের মতো ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ নিয়ে উদ্বিগ্ন ভোটাররা

নাজুমল ইসলাম হৃদয়,বাহুবল
জানুয়ারি ২২, ২০২২ ৪:০৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আগামী ৩১জানুয়ারি ষষ্ঠ ধাপে বাহুবল উপজেলার ৭ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ করতে যাচ্ছে বাহুবল উপজেলা নির্বাচন অফিস।

ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে ব্যাপক কর্মতৎপরতার সৃষ্টি হলেও ইভিএম’কে সাধারণ ভোটারদের মাঝে পরিচিত করার কোনো প্রয়াস এখন পর্যন্ত লক্ষ্য করা যায়নি। ফলে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোট দিতে অভ্যস্থ উপজেলার সাধারণ ভোটারদের মাঝে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট প্রদান নিয়ে উদ্বিগ্নের সৃষ্টি হয়েছে।

ওই মেশিনের মাধ্যমে ভোট দিলে সেটি পছন্দের প্রার্থী পাবে কিনা তা নিয়েও ভোটারদের মধ্যে সংশয় দেখা দিয়েছে। তবে মক ভোটিং প্রোগ্রামের মাধ্যমে সব উম্মুক্ত হবে বলে নির্বাচন অফিসের দাবী।

জানা গেছে, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ষষ্ঠ দফায় আগামী ৩১ জানুয়ারী সোমবার বাহুবল উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে প্রথমবারের মতো ইভিএম পদ্ধতিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে নির্বাচন অফিসে ব্যাপক কর্মতৎপরতা দেখা গেলেও ইভিএম’কে সাধারণ ভোটারদের মাঝে পরিচিত করার কোনো প্রয়াস না থাকায় ভোটারদের মাঝে দ্বিধাদ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়েছে।

ব্যালট পেপারের পরিবর্তে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট প্রদান নিয়ে সর্বত্র আলোচনা-সমালোচনা চলছে। ভোটের আগে মক ভোটিং প্রোগ্রামের মাধ্যমে সাধারণ ভোটারদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে বলে জানিয়েছে নির্বাচন অফিস।

প্রসঙ্গত,আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের ষষ্ঠ ধাপে বাহুবল উপজেলার ৭ ইউনিয়নে এবার ৪০ চেয়ারম্যান, ১০২ সংরক্ষিত নারী সদস্য ও ৩২৬ সাধারণ সদস্য প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন । ৩১ জানুয়ারি সোমবার বাহুবল উপজেলায় প্রথম ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এ অবস্থায় ভোটদানের পদ্ধতি সম্পর্কে ব্যাপক কোনো প্রচার-প্রচারণা বা অধিকতর প্রশিক্ষণের আয়োজনও নেই নির্বাচন কমিশনের। ফলে ভোটপ্রদানে ঘটতে পারে সময় ক্ষেপন, কমে যেতে পারে কাস্টিং ভোটের হার এমন আশঙ্কা করছেন সচেতন মহল।

সাধারণ ভোটারদের অভিমত,ইভিএম মেশিনে কেমন করে ভোট দিতে হয় তারা তা জানেন না। ফলে ইভিএম এর সুফল-কুফল নিয়ে সর্বত্র আলোচনা সমালোচনা চলছে।

গ্রাম-গঞ্জের অনেক সাধারণ ভোটার জানান, ‘ইভিএম’ সম্পর্কে তাদের নূন্যতম কোনো ধারণাই নেই। এমন অনেক ভোটার আছেন বাস্তবে-তো দূরের কথা, ছবিতেও দেখেননি ‘ইভিএম’ মেশিন। কিভাবে ভোট দিতে হয়, পছন্দের প্রার্থীর বাক্সে ঠিকমত ভোট পৌছবে কি-না, ভোটের গোপনীয়তা থাকবে কি-না? এসব বিষয় নিয়ে শঙ্কিত বেশিরভাগ ভোটার। কেউ কেউ আবার এমনও বলছেন ‘ভোট আবার চুরি হয়ে যায় কি-না?

এ বিষয়ে অনেক প্রার্থীরা অভিযোগ করে জানান, গ্রামের অধিকাংশ মানুষ নিরক্ষর বা অল্প শিক্ষিত। যুগ যুগ ধরে তারা ব্যালটেই ভোট দিয়ে অভ্যস্থ। হঠাৎ করে ‘ইভিএম’ পদ্ধতি চালু করায় বিপাকে পড়েছেন তারা।

একসাথে একটি ইউনিয়নের সকল কেন্দ্রে ‘ইভিএম’ পদ্ধতি চালু করা সময়োপযোগী হয়নি। প্রতি ইউনিয়নের সদর কেন্দ্রে অথবা প্রতি উপজেলা সদর কেন্দ্রে পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা উচিৎ ছিল। ধীরে ধীরে মানুষকে সচেতন করা যেত।

তাছাড়া ‘ইভিএম’ এ ভোটদানের পদ্ধতি সাধারণ মানুষকে জানাতে তেমন কোনো প্রশিক্ষণ বা প্রচার-প্রচারণাও নেই নির্বাচন কমিশনের। উচিত ছিল রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ গ্রামে-গঞ্জে বিশেষ প্রচার-পাবলিসিটি করা। শুধু কয়েক ঘন্টার ‘মক’ (প্রশিক্ষণ) ভোটের আয়োজন করেই দায় সাড়ছে নির্বাচন কমিশন।

প্রার্থীরা আরও জানান, গ্রামে এখনও অনেক মানুষ আছে যারা বাটন মোবাইল-ই চালাতে জানেন না। সেইসব মানুষ হুট করে ‘ইভিএম’ এ ভোট প্রদান করবেন কিভাবে? বিষয়টি নিয়ে চরম বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখিন হয়েছেন ভোটাররা। বিশেষ করে মহিলা ভোটারদের নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন অভিভাবকরা। ইতিমধ্যেই অনেক মহিলা ভোটার ভোটকেন্দ্রে যেতে অনিহা প্রকাশ করছেন। ফলে আশঙ্কাজনকভাবে কমে যেতে পারে ভোটের কাস্টিং হার।

শুধু তাই নয়, ‘ইভিএম’ সম্পর্কে ধারণা নেই খোদ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট অনেক কর্মকর্তাদেরও। তাদেরকে সাময়িকভাবে অল্প কিছু প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। তবে টেকনিক্যাল কোনো ধারণাই নেই তাদের। প্রার্থীর এজেন্টদের অবস্থাও একই। কাছে থেকেও বুঝতে পারবেন না, কি হচ্ছে ‘ইভিএম’ এ। এ অবস্থায় এজেন্ট থাকা না থাকা সমান ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এ বিষয়ে বাহুবল উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরউজ্জামান বলেন, ‘ইভিএম-এ ভোটপ্রদান সম্পর্কে ভোটারদেরকে প্রশিক্ষণ দিতে আগামী ২৯ জানুয়ারি উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের সবকটি কেন্দ্রে ‘মক ভোট’ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরও প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। এ নিয়ে শঙ্কার কিছু নেই।

Developed By The IT-Zone