ঢাকাশুক্রবার , ৩ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচঙ্গে ভূয়া ওয়ারিশান সনদ দিয়ে দলিল রেজিস্ট্রি ও নামজারীর অভিযোগ

ইমদাদুল হোসেন খান
জুন ৩, ২০২২ ১১:১৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচঙ্গে ভূয়া ওয়ারিশান সনদপত্র ব্যবহার করে অন্যের জমি নিজের নামে রেজিস্ট্রি দলিল ও নামজারী করে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। দলিল নং – ৬৪৮৩/২১ ও নামজারী নং-২৮৩১/২১-২২।

বানিয়াচং উপজেলা সদরের ৪নং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনিয়নের শরীফখানী মহল্লার আব্দুল মালিক মিয়ার পুত্র আব্দুল্লা মিয়ার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ পাওয়া যায়।

ভূয়া সনদ দিয়ে নামজারী করার প্রমাণ পাওয়ায় বানিয়াচঙ্গের এসিল্যান্ড ইফফাত আরা জামান উর্মি এই নামজারীটি বাতিল করে দেন।

এদিকে দলিল বাতিলের জন্য আদালতে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন আমীরখানী মহল্লার মৃত শফিক মিয়ার পুত্র সাংবাদিক হৃদয় হাসান শিশির ওরফে হৃদয় মিয়া।

জানা যায়, বানিয়াচং উপজেলার খাগশ্রী মৌজায় অবস্থিত জে.এল.নং এসএ-১১০, আরএস-১১৬, খতিয়ান এসএ-৩৪৫, খতিয়ান আরএস-৩০৯ এবং দাগ নং এসএ-৩৪৮ ও দাগ নং আরএস-৩৯৮ এতে ৬০ শতক আমন জমি রয়েছে। রেকর্ড পর্যালোচনা করে দেখা যায়, এই ভুমি আফিয়া খাতুন, স্বামী-সৈয়দ আব্দুল মতিন, সাং-মজলিশপুর নামে আরএস রেকর্ড বিদ্যামান।

কিন্তু মন্তব্য কলামে জোর দখল আয়মনা খাতুন, স্বামী-নুর মোহাম্মদ মিয়া, সাং-আমীরখানি ১৩৯৭ বাংলা সন হতে লিখা রয়েছে।

জানা যায়, এই ভূমির মালিক আফিয়া খাতুন ১৯৭৫ ইং সনে তার জমি শওকত আলী, পিতা নাজিম উল্লা, সাং আমীরখানি এর কাছে ১০০৫/৭৫ নং দলিলে বিক্রি করে দেন।

পরবর্তীতে শওকত আলী আয়মনা খাতুনের কাছ থেকে খরিদকৃত জমিটি আয়মনা খাতুনের কাছে বিক্রি করে দেন।

বিগত ৪০ বছর যাবত আয়মনা খাতুনের ওয়ারিশিয়ান তার ছোট ছেলে মৃত শফিক মিয়া এবং মেজো ছেলে আজিজুর রহমান ভোগ দখল করে আসতেছেন।

সহজ-সরল মানুষ হওয়ায় আয়মনা খাতুনের ওয়ারিশানগন অবহেলায় এই জমিটি তাদের নামে নামজারী করেননি।

ফলে এসএ এবং আরএস রেকর্ড সাবেক মালিক আফিয়া খাতুনের নামেই রয়ে যায়। আফিয়া খাতিম মৃত্যুকালে তার চারজন ওয়ারিশিয়ান রেখে যান।

বিগত ২১ সালের ২৯শে নভেম্বর আব্দুল্লা মিয়া আফিয়া খাতুন এর রেখে যাওয়া চারজন ওয়ারিশান সৈয়দ উবেদুল হক, সৈয়দ ফয়জুল হক, সৈয়দ ইমদাদুল হক ও সৈয়দ নুরানি বেগম এই তিনজনের মধ্যে একজন উবেদুল হককে বাদ দিয়ে ভুয়া ওয়ারিশান সনদ তৈরি করে নিজনামে একটি দানপত্র দলিল করে নেয় এবং তার নামে নামজারী করার জন্য আবেদন করে।

আরএস রেকর্ডে আয়মনা খাতুন জোর দখল উল্লেখ থাকায় তার ওয়ারিশান আব্দুল্লা মিয়ার মা মনোয়ারা বেগম এবং মনোয়ারা বেগম এর একমাত্র ওয়ারিশান আব্দুল্লা মিয়া দাবি করে আরেকটি ভুয়া ওয়ারিশিয়ান সনদ তৈরি করে।

এই ভূয়া সনদ দিয়ে তার নামে নামজারী করে নেয়। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে আয়মনা খাতুনের প্রকৃত অংশীদার তিন ছেলে এবং তিন মেয়ে থাকায় এবং তাদের সবার ঘরে অনেক ছেলে মেয়ে থাকায় তারা সবাই জমির অংশীদার।

তাছাড়া আয়মনা খাতুনের মেয়ে মনোয়ারা বেগম একমাত্র ওয়ারিশান আব্দুল্লা দাবি করলেও প্রকৃতপক্ষে মনোয়ারা বেগম এর মোট নয়জন ছেলেমেয়ে রয়েছে।

এসব জালিয়াতির খবর পেয়ে আয়মনা খাতুনের ছোট ছেলে মৃত শফিক মিয়ার ছেলে হৃদয় মিয়া ওরফে সাংবাদিক হৃদয় হাসান শিশির আব্দুল্লা মিয়ার ভুয়া নামজারী বাতিলের জন্য বানিয়াচং উপজেলা ভূমি অফিসে একটি মিসকেস দায়ের করেন। যার নং-১৪৯/২১-২২।

পরে এসিল্যান্ড ইফফাত আরা জামান উর্মি দুই পক্ষকে তাদের কাগজপত্রসহকারে গত ১৩ এপ্রিল তাঁর অফিসে হাজির হওয়ার জন্য নির্দেশ দেন।

উল্লেখিত তারিখে আবেদনকারী হৃদয় মিয়া তার সপক্ষে সকল কাগজপত্র দেখাতে পারলে ও প্রতিপক্ষ আব্দুল্লা মিয়া দেখাতে পরেননি।

এসিল্যান্ড সবকিছু পর্যালোচনা করে আব্দুল্লা মিয়ার নামজারী বাতিলের আদেশ দেন। পরে আদেশের কপি বাদী-বিবাদী উভয়পক্ষের কাছে সরবরাহ করা হয়।

এ ব্যাপারে আব্দুল্লা মিয়ার সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি কথা বলতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন এবং পরে যোগাযোগ করবেন বলে ফোন কেটে দেন।

Developed By The IT-Zone