ঢাকাশুক্রবার , ৮ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচঙ্গে জমে উঠেছে গরুর হাট : কাপড়-প্রসাধনী-জুতার বিক্রি কম

ইমদাদুল হোসেন খান
জুলাই ৮, ২০২২ ৭:৪৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচঙ্গে শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে গরুর হাট। হাটে প্রচুর গরু, ছাগল, ভেড়া নিয়ে হাজির হয়েছেন বিক্রেতারা। ক্রেতার ভিড়ও যথেষ্ট। দাম বেশি হলেও ঈদের দিন ঘনিয়ে আসায় বাধ্য হয়ে পছন্দের গরু, ছাগল কিনছেন ক্রেতারা।

ইজারাদার ও তার লোকজন হাসিল রেট সাঁটিয়ে না দিয়ে ইচ্ছেমতো হাসিল আদায় করছেন। এনিয়ে ক্রেতাদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করলেও তাকে পাত্তা দিচ্ছেন না ইজারাদার ও তার লোকজন। শুক্রবার (৮ জুলাই) ৫/৬নং বাজার গরুর হাটে গিয়ে দেখা গেছে এ চিত্র।

এদিকে হাসিল নিয়ে ইজারাদার ও তার লোকজনের দৌরাত্ম্যের ফলে অনেকে রাস্তাঘাটে গরু আটকিয়ে কেনার চেষ্টা করছেন। রাস্তাঘাটে ক্রেতা পেয়ে বিক্রেতারা বড়বাজার ও গ্যানিংগঞ্জ বাজারের বিভিন্ন প্রবেশমুখে গরু দাঁড় করছেন।

এতেও বাঁধ সাধছেন ইজারাদার ও তার লোকজন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বড়বাজারস্থ ডাক্তার জমির আলী শপিং কমপ্লেক্সের সামনে ক্রেতাসাধারণের চাপে গরু বিক্রেতারা সারিবদ্ধভাবে গরু নিয়ে দাঁড়ালে ইজারাদার উপজেলা প্রশাসনকে অবগত করে সেখান থেকে তাদেরকে সরিয়ে দেন।

হবিগঞ্জ জেলার সর্বত্র অতিরিক্ত হাসিল আদায়ের ঘটনা নিয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জে লীড নিউজ করা হলেও হাটগুলোতে ইজারাদারদেরকে হাসিল রেট সাঁটিয়ে দিতে বাধ্য করেনি প্রশাসন। একারণে ক্রেতাসাধারণকে ক্ষুব্ধ মন্তব্য করতে শোনা গেছে।

বাগ মহল্লার একজন গত বৃহস্পতিবার ৫/৬ বাজার গরুর হাট থেকে একটি গরু ক্রয় করেছিলেন। যার রশিদ নং-২১। তার কাছ থেকে ২ হাজার টাকা হাসিল আদায় করা হয়েছে। তার কাছ থেকে জোরপূর্বক অতিরিক্ত হাসিল আদায় করার অভিযোগ করে তিনি পরদিন শুক্রবার গরুর হাটে গিয়ে সাংবাদিকদের রশিদ দেখান এবং এর প্রতিকার চান।

এসময় ইজারাদার চক্রের লোক যুবলীগ নেতা ছায়েব আলী ও কৃষকদল নেতা আব্দুল মালিক ওই ক্রেতাকে বাড়তি আদায়কৃত টাকা ফেরত দেয়ার আশ্বাস দিয়ে রাতে হাট শেষ হওয়ার পর তাদের সাথে দেখা করতে বলেন।

সরেজমিন হাট পরিদর্শনকালে এ প্রতিবেদককে অনেকেই বলেন, আন্দাজি সবার কাছ থেকে ২ হাজার, ৩ হাজার, ৫ হাজার করে হাসিল আদায় করে রশিদ ধরিয়ে দেয়া হচ্ছে। নিয়ম অনুযায়ী যাদের কাছ থেকে দেড়শ/দুইশত টাকা হাসিল আদায় করার কথা তাদের কাছ থেকে গড়ে ২ হাজার/৩ হাজার টাকা করে আদায় করা হচ্ছে।

বানিয়াচং উপজেলা সদরের একমাত্র পশুর হাট ৫/৬ নং বাজারে গরু, ছাগল, ভেড়া নিয়ে বিক্রেতাদেরকে সারিবদ্ধ লাইন বাঁধতে দেখা যায়। বানিয়াচং সদরের নন্দীপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সাংবাদিক সাহিদুর রহমান গরু কিনতে গিয়ে দরাদরি করে জানান, এবার গরুর দাম অনেক বেশি। ক্রেতাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত হাসিল আদায়ের ঘটনা সত্য বলেও জানান তিনি।

সাগর দিঘীর পূর্বপাড়ের বাসিন্দা বিশিষ্ট পল্লী চিকিৎসক শফিকুর রহমান ঠাকুর জানান, তিনি ৬৫ হাজার টাকা দিয়ে একটি গরু ক্রয় করেছেন। তার কাছ থেকে এক হাজার টাকা হাসিল আদায় করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমি পরিচিত মুখ হওয়ায় এক হাজার। কিন্তু অন্যদের কাছ থেকে ইচ্ছেমতো হাসিল আদায় করা হচ্ছে। যাকে যত দিতে বলেছে ততই দিতে হচ্ছে; এক টাকাও কম মানতেছেনা।

এদিকে উপজেলা সদরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে এবং সদরের বাহিরের বিভিন্ন বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কাপড়ের দোকানগুলোতেও অন্যান্য বছরের মতো ক্রেতাদের ভিড় নেই।

একই চিত্র প্রসাধনী ও জুতার দোকানগুলোতেও। দোকানিদের সাথে আলাপকালে জানা যায়, এবার বন্যার প্রভাব পড়েছে ঈদের বাজারে। তাই এ বছর আশানুরূপ বেচাকেনা নেই।

বড়বাজারের লাকী বস্রালয় ও ছিটঘরের মালিক সুভাষ বৈদ্য বলেন, ঈদের বাজারে এবার বন্যার যে প্রভাব পড়েছে করোনার লকডাউনের সময়ও এমন প্রভাব পড়েনি।

তিনি জানান, লকডাউন চলাকালে সরকারি নিষেধাজ্ঞার কারণে দোকানের সামনের দরজা তালাবদ্ধ করে রাখতে হলেও ক্রেতাদের চাপে পিছনের দরজা খুলে ব্যবসা করতে হয়েছে। প্রসাধনী ব্যবসায়ী তহুরুজ্জামান শুভ্র ও জুতা ব্যবসায়ী মওদুদ হাসানের মুখেও শোনা গেছে একইরকম প্রতিক্রিয়া।

Developed By The IT-Zone