ঢাকাশুক্রবার , ২৯ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচঙ্গের বাজারে কাঁচা মরিচ শাকসবজি ও মাছের দাম চড়া

ইমদাদুল হোসেন খান
জুলাই ২৯, ২০২২ ৭:২৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচঙ্গের বাজারগুলোতে কাঁচা মরিচ, শাকসবজি ও মাছের দাম অত্যন্ত চড়া। বাজারে গিয়ে চড়া দাম শুনে কৃচ্ছসাধন করতে হচ্ছে নিম্ন আয়ের মানুষদেরকে।

তবে বর্ষা মৌসুমেও মাছের চড়া দাম শুনে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন অনেকেই। কাঁচা বাজারের চড়া দাম নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করে কেউ কেউ ফেসবুকে পোস্ট দিচ্ছেন।

ফেসবুকে  বিএনপি নেতা তোফা খান শুক্রবার (২৯ জুলাই) কাঁচা মরিচের ছবিসহ একটি পোস্ট দিয়ে বাজার দরের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে লিখেছেন, ‘কাঁচা মরিচ ২০০ টাকা কেজি।তরীতরকারীর মূল্যও খুব চড়া।

তার ফেসবুক পোস্টের সূত্র ধরে বানিয়াচং উপজেলা সদরের কয়েকটি বাজার ঘুরে জানা গেছে, কাঁচা মরিচের দাম এক সপ্তাহ পূর্বে ছিল ১৬০টাকা। সপ্তাহের ব্যবধানে যার দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২শত টাকায়। কাঁচা মরিচের সাথে পাল্লা দিয়ে প্রত্যেক জাতের শাকসবজি এবং লতা জাতীয় কাঁচামালের দামও কেজিতে এক/দুই টাকা করে বেড়েছে বলে ক্রেতারা জানিয়েছেন।

তবে কাঁচামাল ব্যবসায়ীরা কাঁচা মরিচের দাম বৃদ্ধির কথা স্বীকার করলেও অন্যান্য শাকসবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে বলে জানান।

বানিয়াচংয়ের সবচেয়ে বড় কাঁচামাল ব্যবসায়ী (পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতা) জাতীয় পার্টির নেতা হবিবুর রহমান হবিব বলেন, এক সপ্তাহ পূর্বে বানিয়াচংয়ের বাজারগুলোতে কাঁচা মরিচ খুচরা ১৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হতো; বর্তমানে তা ২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

অন্যান্য কাঁচামালের দাম অপরিবর্তিত জানিয়ে তিনি বলেন, আলু ৩০ টাকা কেজি, ঝিংগা ৩০ টাকা কেজি, মুকি ৩৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। পটল ৩০ টাকা থেকে নেমে ২৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

এদিকে বর্ষা মৌসুমে যখন প্রাকৃতিক উৎস হাওড়-বাওড়, নদী-নালা, খাল-বিল হতে বিনামূল্যে মৎস্যজীবীরা অবাধে ছোট-বড় ধরে এনে বিক্রি করতে পারছেন তখনও তারা হেমন্ত মৌসুমের মতোই মাছের চড়া দাম হাঁকছেন বলে অমৎস্যজীবী ক্রেতাসাধারণ অভিযোগ করে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন।

মাছের বাজার ঘুরে দেখা যায় মৎস্যজীবীরা সিন্ডিকেট করে একই হারে সকল প্রকার মাছের দাম হাঁকছেন। কেউই নিজেদের নির্ধারিত রেট ছাড়া বিক্রি করতে নারাজ।

এতে বিভিন্ন মৎস্যজীবীর সামন ঘুরে অবশেষে নিরূপায় হয়ে মৎস্যজীবীদের হাঁকা রেটেই মাছ কিনতে বাধ্য হচ্ছেন। ভুক্তভোগী অমৎস্যজীবী ক্রেতাসাধারণ এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন

Developed By The IT-Zone