ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২১ মে ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচঙ্গের গৃহবধু ইলিপ্রভার চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার পলাতক আসামী সূর্য গ্রেফতার

অনলাইন এডিটর
মে ২১, ২০২০ ২:১৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

তারেক হাবিব ॥ বানিয়াচঙ্গের মধুপুরে ইলিপ্রভা হত্যা মামলার অন্যতম আসামী সূর্য লাল দাস (৩৬) কে গ্রেফতার করেছে সুজাতপুর ফাঁড়ি পুলিশ। গতকাল বুধবার দুপুরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বানিয়াচং সার্কেল) শেখ সেলিমের তত্ত্বাবধানে সুজাতপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ ধ্রুবেশ চক্রবর্তীর নেতৃত্বে একদল পুলিশের সাহসী অভিযানে তাকে গ্রেফতার করা হয়।


জানা যায়, গত ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৬ইং তারিখ রবিবার মধ্যরাতে কুমড়ি গ্রামের নুরুল হকের পুত্র রায়হান শাহ (২২), গোড়াখালী গ্রামের কুলিন দাসের পুত্র সূর্য লাল দাস ও চন্দ্র কুমার দাসের পুত্র ধীরেন্দ্র দাসসহ একদল সংঘবদ্ধ ডাকাত মধুপুর গ্রামের গোপাল দাসের এর ঘরে প্রবেশ করে ডাকাতির চেষ্টা করে। এ সময় গৃহবধু ইলিপ্রভা রানী দাসের শোর চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে গৃহবধু ইলিপ্রভা রাণী দাসকে মাথায় চাকু দিয়ে এলোপাতাড়ি আঘাত করে পালিয়ে যাবার সময় গ্রামবাসীর সহযোগীতায় রায়হান শাহ (২২) নামে এক ডাকাত আটক হয়। পরে তাকে উত্তম-মধ্যম দিয়ে সুজাতপুর ফাঁড়ির তৎকালিন ইনচার্জ মুজিবুর রহমানের কাছে হস্তান্তর করা হয়। গুরুতর অবস্থায় গৃহবধু ইলিপ্রভা রাণী দাসকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে সিলেট এমজি ওসমানি মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় গৃহবধু ইলিপ্রভা রাণী’র ছোট পুত্র রুবেল দাস বাদী হয়ে বানিয়াচঙ্গ থানায় একটি লুটপাট ও হত্যা মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় আসামীরা দীর্ঘদিন পালিয়ে থাকার পর গতকাল দুপুরে বানিয়াচং সার্কেলের এএসপি মোহাম্মদ শেখ সেলিমের সার্বিক তত্ত্বাবধানে সুজাতপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ ধ্রুবেশ চক্রবর্তীর নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে মামলার এজারভুক্ত ২নং আসামীকে গ্রেফতার করা হয়।

নিহতের জৈষ্ঠ পুত্র উজ্জ্বল দাস দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন,”ঘটনার দিন আমরা কেউ বাড়িতে ছিলাম না, বাবা ছিলেন গোড়াখালী কীর্তনে, আমি ছিলাম সিলেটে, আমার ছোট ভাই ছিল হবিগঞ্জ। এই সুযোগে আমার ‘মা’কে শারিরীক নির্যাতন করে হত্যা করেছে সূর্য লাল দাস। মৃত্যু শয্যায় মা’ আমাকে সবকিছুর সাথে শারীরিক নির্যাতনের বিষয়টিও বলে গেছেন। মামলা দায়েরকালীন সময়ে আমরা তা প্রকাশ করতে চাইলেও অজ্ঞাত কারনে এ তথ্য এজাহার থেকে তৎকালীন দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসার বাদ দিয়ে দেয়। আমি চাই ঘটনাটির পূর্ণ তদন্ত করে আবার চার্জশীট দেয়া হোক। গ্রেফতারকৃত আসামীকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বেরিয়ে আসতে পারে।”

সুজাতপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ ধ্রুবেশ চক্রবর্তী ফোনে দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, এ রকম একটি চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলার আসামী প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে এই তথ্য পাওয়ার সাথে সাথেই তাকে প্রায় ১ কিঃমিঃ দৌড়ে ধরতে সক্ষম হই। হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনে আমরা কাজ করছি।

বানিয়াচং সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শেখ সেলিম জানান, সুজাতপুর ফাঁড়ির পরিদর্শকের সাহসিকতায় দীর্ঘ দিনের পলাতক আসামীকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে। আশা করছি অধিকতর তদন্ত করে এর সম্পূরক চার্জশীট প্রদান করা হবে।

Developed By The IT-Zone