ঢাকাবুধবার , ১৫ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচং স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সাপে কাটার ইনজেকশন থাকলেও নেই পুশ করার মতো প্রশিক্ষিত ডাক্তার

ইমদাদুল হোসেন খান
জুন ১৫, ২০২২ ৮:০৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

৫০ শয্য বিশিষ্ট বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সাপে কাটা রোগীর চিকিৎসার জন্য স্ন্যাক এন্টি ভেনম ইনজেকশন থাকলেও নেই পুশ করার মতো প্রশিক্ষিত ডাক্তার। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের ইউএইচ এন্ড এফপিও ডা. শামীমা আক্তার।

তিনি বলেন, স্ন্যাক এন্ট্রি ভেনম ইনজেকশনের সাপ্লাই আমাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আছে। তবে এটি পুশ করার জন্য জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ডাক্তারের প্রয়োজন হয়, যা আমাদের হাসপাতালে নেই। তিনি বলেন, ৩৯ তম বিসিএস’র যারা আমাদের হাসপাতালে ছিলেন তাদের মধ্যে প্রশিক্ষিত লোক ছিলো।

তারা অন্যত্র বদলী হয়ে গেছেন। এখন যারা আছেন তারা ৪২ তম বিসিএস-এর। তাদের নতুন নিয়োগ হয়েছে। তাদেরকে প্রশিক্ষণে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে।

উল্লেখ্য, গত দু’দিনে বানিয়াচং উপজেলা সদরে পাগলা কুকুরের কামড়ে প্রায় ৩০ জন লোক আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়। তারা চিকিৎসার জন্য বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে তাদেরকে হবিগঞ্জ জেলা সদর আধুনিক হাসপাতাল যাবার পরামর্শ দেয়া হয়।

এনিয়ে কুকুরের কামড়ে আহত তানভীর হাসান শোভন ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে উল্লেখ করেন বানিয়াচং হাসপাতালে কুকুরের কামড়ে ইনজেকশন রেভিক্স ভিসি ও সাপে কাটা রোগীর ইনজেকশন এন্টি ভেনম নেই।

এ প্রসঙ্গে বানিয়াচং হাসপাতালের ইউএইচ এন্ড এফপিও ডা. শামীমা আক্তারের সাথে এ প্রতিবেদক মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, কুকুরের কামড়ের ইনজেকশন রেভিক্স ভিসি উপজেলা লেভেলের হাসপাতালে দেয়া হয়না।

তাই কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে কেউ আমাদের হাসপাতালে আসলে হবিগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়া হয়। এছাড়া বানিয়াচং হাসপাতালে সাপে কাটা রোগীর ইনজেকশন স্ন্যাক এন্টি ভেনম আছে কিন্তু পুশ করার মতো প্রশিক্ষিত লোক নেই বলে জানান।

বানিয়াচং উপজেলা সদরের কালিকাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আঙ্গুর মিয়ার ছেলে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক তানভীর হাসান শোভন ফেসবুক পোস্টে উল্লেখ করেন,”আমি নিজেই জখম হয়েছি কামড়ে!

বানিয়াচং সদরে পাগলা কুকুরের কামড়ে আহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে! আতঙ্কে রয়েছেন এলাকাবাসী। আজ সকাল থেকে বানিয়াচং সদরের বিভিন্ন জায়গায় মিলিয়ে প্রায় ২০/৩০ জনকে পাগলা কুকুর কামড়িয়েছে। মানুষকে কামড়ানোর পাশাপাশি গবাদিপশুকেও কামড়িয়ে আহত করেছে বেশ কয়েকটি পাগলা কুকুর। কুকুরগুলো এক নাকি অভিন্ন তা এখনো সঠিক করে বলা যাচ্ছেনা।

বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিতে পারলেও নেই প্রয়োজনীয় রেবিক্স ভিসি ইনজেকশন। অত্যাবশ্যকীয় এই ভেকসিন কি কারনে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মজুদ নেই তা আমার বোধগম্য নয়। সেই সাথে সাপে কাটা রোগীর জন্য নেই এন্টিভেনমও। কৃষিপ্রধান এলাকা বানিয়াচং। হাওর এলাকায় সাপের পরিমান বেশি থাকাটাই স্বাভাবিক। কামড়ানোও স্বাভাবিক।

কুকুরের পরিমানও কম হবেনা। বিভিন্ন কারনে কুকুর পাগল হয়। তখন কামড়াতেও পারে। এটা স্বাভাবিক। অস্বাভাবিক লাগে যখন দেখি চিকিৎসা ব্যাবস্থাপনা খুব চরম লেভেলে খারাপ হয়।

আমার বুঝে আসেনা যে, চিকিৎসার মত এতো গুরুত্বপূর্ন ব্যাপারে উদাসীন কেন কর্তৃপক্ষ? যাক পরিশেষে বলবো, অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি এসব ব্যাপারেও যথাযথ কর্তৃপক্ষের নজর দেয়া উচিত। বাহিরে ফিটফাট আর ভেতরে সদরঘাট মার্কা অবস্থান থেকে বের হয়ে উঠে আসা প্রয়োজন। আমার একটা প্রশ্ন বরাবরের মতো রয়েই গেলো! বাংলাদেশের জেলা সদরে কি শুধু কুকুর আর সাপ থাকে? আর উপজেলা সদরে কি শুধু মশা মাশি থাকে?”

Developed By The IT-Zone