ঢাকামঙ্গলবার , ১৪ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে ৪ হাজার হেক্টর বোরো জমি পতিত

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ১৪, ২০২০ ৮:৩৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

জসিম উদ্দিন, বানিয়াচংঃ বানিয়াচংয়ে গত কয়েক বছর ধরে জমিতে ধান চাষ করে লোকসান আর লোকসান গুণছেন হাওরের কৃষক। এবার ফ্রিতে দিলেও কেউ নিলেন না বোরো ধানের জমি। হাজার হাজার হেক্টর পতিত বোরো জমিতে এখন গরু-ছাগল দৌড়াচ্ছে। যেন বোরো জমিতে চর জেগেছে।

বুকচাপা কষ্ট নিয়ে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন বানিয়াচংয়ের কৃষক দেওয়ান শোয়েব রাজা। তার মতো হাওরের অনেক কৃষকের হাজার হাজার হেক্টর জমি এখন অনাবাদি অবস্থায় পতিত হয়ে পড়ে রয়েছে।

অধিক উৎপাদন খরচ, ধানের ন্যায্যমূল্য না পাওয়া, আগাম বন্যা ও শিলাবৃষ্টি ইত্যাদি বোরো ধান আবাদের ক্ষেত্রে প্রধান অন্তরায় হিসেবে উল্লেখ করেছেন বানিয়চংয়ের কৃষকেরা। গত কয়েক বছর যাবত বোরো ধান চাষে অব্যাহত লোকসানের ফলে ধান চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন এখানকার কৃষকেরা। তাছাড়া প্রতিবছরই শিলাবৃষ্টি এবং আগাম বন্যায় ধান ধান নষ্ট হয়ে যাওয়া সবচেয়ে বড় হুমকি বলে মনে করছেন তারা।

হবিগঞ্জ জেলার মধ্যে বানিয়াচং উপজেলাকে বলা হত বোরো ধানের এলাকা। একসময় জেলায় বোরো ধান সবচেয়ে বেশি ধান উৎপাদন হতো বানিয়াচং উপজেলায়। কারন জেলার ৯ টি উপজেলার মধ্যে এ উপজেলাটি সবচেয়ে বড় এবং এখানে রয়েছে বড় বড় হাওর। যেখানে হাজার হাজার হেক্টর বোরো জমি রয়েছে। এই এলাকার প্রধান ফসল হলো বোরো ধান।

ছবি : বানিয়াচংয়ের হাওরে পতিত হওয়া জমি

গত কয়েক বছর আগেও হাওরে মাঠের পর মাঠ জুড়ে ছিল সোনালী ফসল ধান আর ধান। আর এ বছরে যতদূর চোখ যায় অনাবাদি (পতিত) জমি চোখে পড়ে। যেন গরু, ছাগল চড়ানোর মাঠ। গত কয়েক বছরে আগাম বন্যা ও শিলা বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এ অঞ্চলের কৃষক। গত বছর ধানের ফলন ভালো হলেও ধানের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় হতাশ হয়ে পড়েছেন কৃষকেরা। আর এ লোকসানের কারণে এ বছর অসংখ্য জমি পতিত রয়েছে এ অঞ্চলে।

বানিয়াচং উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়,  চলতি বছরে বানিয়াচংয়ে ৩৫ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু চাষ হয়েছে ৩১ হাজার হেক্টর জমি। বাকি ৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়নি। যদিও সরকারি এ হিসাবের সাথে একমত নন এখানকার কৃষকেরা। তারা জানান, হাওরের প্রায় এক তৃতীয়াংশ বোরো জমিই পতিত রয়েছে এ বছর।

উপজেলার তাম্বলীটুলার কৃষক রেজোয়ান নওশাদ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হাওরে আমার ১৫ একর জমি রয়েছে। এ বছর এক একর জমিও কোনো বর্গাচাষি পত্তন নেয়নি। আমার সম্পূর্ণ জমি পতিত হয়ে পড়ে রয়েছে। কারণ হিসেবে তিনি চাপা ক্ষোভ নিয়ে বলেন, কৃষকরা এক একর জমিতে ধান চাষ করতে যে খরচ হয় ফসল বিক্রি করে তাও ওঠে না। উল্টো তাদের লোকসান গুণতে হয়। তারা ঋণ করে চাষাবাদ করে, কিন্তু ধান পেয়েও ঋণ পরিশোধ করতে পারে না। তাহলে কেন ধান চাষ করবে?

সরকার যদি ধানের ন্যায্যমূল্য না দেয় তাহলে আগামী বছর হাওরের সকল জমিই পতিত থাকবে বলে জানান রেজোয়ান।

আমীরখানী মহল্লার কৃষক আরজু মিয়া বলেন, অন্যান্য বছর জমি করতাম ৩০ একর। কিন্তু এ বছর আমার পরিবারের খোঁড়াকের জন্য ৩ একর জমি করেছি। বাকি ২৭ একর জমিই পতিত পড়ে রয়েছে। সেধে দিলেও পানির দামেও কেউ জমি নেননি। তিনি বলেন, কৃষক প্রতিবছরই ধানের দাম না পেয়ে অনেক ক্ষয়-ক্ষতির শিকার হয়েছেন। তারা ধান চাষ করে লাভের মুখ দেখা দূরের কথা, ঋণও শোধ করতে পারেননি। অনেকেই ঋণ খেলাপি হয়ে এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছেন। তাই খাওয়ার জন্য অল্প জমি চাষ করে বেশিরভাগ জমিই অনাবাদি রেখেছেন অনেকে।

 

৬ নং ইউনিয়ন কাগাপাশা ইউনিয়নের কৃষক মোঃ তাজ উদ্দিন বলেন, অন্যান্য বছর আমার ১০ একর জমি বর্গাচাষ করত কৃষকেরা। খোঁড়াকের জন্য আমি নিজের কিছু জমি চাষ করতাম। কিন্তু এবছর আমি নিজেও জমি চাষ করিনি। এক একর জমিও কেউ নেয়নি। তিনি জানান,  আমাদের গ্রামের প্রায় ১০০টিরও অধিক পরিবার বোরো চাষ করে ঋণগ্রস্ত হয়ে দুই বছর ধরে এলাকা ছেড়ে ঢাকাসহ বিভিন্ন ইটখলায় গিয়ে কাজ করছেন। এলাকায় কয়েকশ হেক্টর জমি অনাবাদি হয়ে পড়ে রয়েছে।

 

বানিয়াচং উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ দুলাল উদ্দিন আমার হবিগঞ্জকে বলেন, এ উপজেলার অধিকাংশ এলাকা হাওর বেষ্টিত। এখানকার কৃষকের বোরো ধানই একমাত্র প্রধান ফসল। এখানে প্রতিবছরই বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়ে আসছে। কিন্তু গত কয়েকবছর ধরে বিভিন্ন কারণে এ এলাকার কৃষকরা ধানের সঠিক মূল্য পাচ্ছেন না। যদি তা পেতেন কৃষক ধান চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতেন না। অনেক কৃষক আবার রবিশস্য আবাদের দিকে ঝুঁকছেন। কৃষকরা যাতে লাভবান হয় তার জন্য বিকল্প ফসল হিসেবে মৌসুমি শাকসবজি, গম, ভুট্টা, ও সূর্যমুখী আবাদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

এবছর বানিয়াচংয়ে প্রায় ১ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে মৌসুমি শাকসবজি চাষ করা হয়েছে এবং কৃষকরাও এতে লাভবান হচ্ছেন বলে জানান দুলাল উদ্দিন।

 

Developed By The IT-Zone