ঢাকামঙ্গলবার , ২৩ মার্চ ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে সরকারের দায়ের করা মামলায় এফআইআরভুক্ত আসামি হুমায়ুন কবীর রেজা এখনো অধরা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মার্চ ২৩, ২০২১ ১১:০৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন : সরকারি ভূমিতে অনধিকার প্রবেশ,ভূমিহীনদের নামে বন্দোবস্ত সরকারি খাস ভূমি প্রতারণামূলকভাবে আতœসাত,ওই ভূমি থেকে মাটি খনন করে বিক্রি,গাছ কর্তন করে বিক্রি এবং মাছ বিক্রিসহ সর্বমোট ৩ কোটি ৩২ লাখ ৬৮ হাজার সরকারি রাজস্ব আতœসাত করার অভিযোগে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি দায়ের কার মামলায় বানিয়াচং উপজেলার ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান,জেলা কৃষকলীগের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সদস্য হুমায়ুন কবীর রেজা’র বিরুদ্ধে করা মামলাটি এফআইআর ভুক্ত করা হয়।

 

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি সোমবার এই মামলাটি এফআইআর’এ অন্তর্ভুক্ত করেন বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ এমরান হোসেন ও তদন্ত ওসি প্রজিত কুমার দাস। মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য বানিয়াচং থানার ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) সাইফুল ইসলামকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এফআইআরভুক্ত হলেও অদ্যবধি পর্যন্ত তাকে আটক করেনি পুলিশ।

 

 

ছবি : জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজার ফাইল ছবি

 

 

অন্যদিকে মামলাটি এফআইআর হওয়ায় মামলার আসামি হুমায়ুন কবীর রেজাকে যে কোন সময় আটক করে আদালতে সোপর্দ করা হবে মর্মে পুলিশ-এমনটা ই দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানিয়েছিলেন বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমরান হোসেন। তিনি আরো জানিয়েছিলেন আসামি হুমায়ুনকে ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। যে কোনো সময় তাকে আটক করা হবে। কিন্তু কি কারণে তাকে আটক করা হয়নি কিংবা পুলিশ কেন তাকে ধরতে গড়িমসি করছে বিষয়টি সাধারণ জনগণকে ভাবিয়ে তোলেছে।

 

এদিকে এফআইআরভুক্ত আসামি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সভা সমাবেশে সরকারের দায়ের করা এই মামলা সম্পর্কে বিরুপ মন্তব্যসহ টাকা দিয়ে স্থানীয় বেশ কয়েকটি পত্রিকার তার পক্ষে সংবাদ প্রকাশ করিয়ে যাচ্ছে হুমায়ুন কবীর রেজা। সরকারের কোটি কোটি টাকা আতœসাতের অভিযোগ বানিয়াচং থানায় গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বরাবরে এই মামলাটি দায়ের করেন খাগাউড়া ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মো: দিদার হোসেন।

 

সরকারের কোটি টাকা আত্নসাতের মামলায় এফআইআরভুক্ত আসামি হুমায়ুন কবীর রেজার মামলা কি অবস্থায় আছে সে সম্পর্কে জানতে কথা হয় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) সাইফুল ইসলামের সাথে। তিনি জানান,একমাস হল আমাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এখনো মামলাটি প্রাথমিক তদন্তে আছে।

 

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরান হোসেনের সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, মামলাটি অনেক দিনের পুরনো। তথ্য-উপাত্ত হাতে পেতে অনেক সময় লাগছে। তবে পুলিশ বসে নেই। আটকের জন্য অনেকবার রেইড দেয়া হয়েছে। তাকে ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। যে কোন সময় ধরতে সক্ষম হবে পুলিশ।

 

প্রসঙ্গত, বানিয়াচং উপজেলার ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত সুলতানপুর মৌজার এসএ জেএল নং-২০০ আরএস জেএল নং-২০৫, খতিয়ান নং-১ এর দাগ নং ৯১, ৯৩ ও ১৩৩ এর মোট ১৪ একর ৪৫ শতক ভূমি বিগত ১৯৮৮ সনে এলাকার ভূমিহীনদের নামে লিজ প্রদান করে বানিয়াচং উপজেলা ভূমি অফিস। কিন্তু লিজ দেয়ার পর এ ভূমিতে কোনো ধরনের স্থাপনা নির্মাণ না করে পতিত ফেলে রাখেন ভূমিহীনরা। পরে ২০১০ সালে এলাকাবাসী ও ভূমিহীনদের মধ্যে এই ভূমি নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। এই সংঘর্ষে শফিক মেম্বার নামে এক ব্যক্তি নিহত হন।

 

ঘটনায় আসামি করা হয় এই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা কৃষকলীগের সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজাকেও। হত্যার ঘটনার বিষয়টি পরবর্তীতে সমাধান হলে এলাকার নিরীহ ভূমিহীনদের নানা প্রলোভন, ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের কাছে পুরো ভূমিসহ কাগজপত্র নিয়ে নেন জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজা।

 

সরেজমিনে ওই ভূমিতে গিয়ে দেখা যায়,হুমায়ুন কবীর রেজার ছোট ভাই মরহুম সামায়ুন কবীরের নামে “সামায়ুন কবীর হাফিজিয়া মাদ্রাসা” নির্মাণ করেছেন। পাশাপাশি ওই মাদ্রাসার জন্য আরেকটি নতুন ভবন গড়ে তোলার জন্য কাজ শুরু করেছেন তিনি। অন্যদিকে পুকুরের দক্ষিণ অংশে মাছ চাষ ও পুকুরের পাড়ে রোপন করা নানা জাতের গাছ বিক্রি করে হুমায়ুন কবীর রেজা হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা।

 

আংশিক জায়গায় মাদ্রাসা নির্মাণ করে পুরো ১৪একর জায়গা দখল করে রেখেছন জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজা। এটা নিয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জসহ বিভিন্ন খবরের কাগজে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর পুরো জেলা জুড়ে রসালো আলোচনার সৃষ্টি হতে থাকে। সংবাদ প্রকাশের পর হুমায়ুন কবীর রেজা নিজেকে রক্ষা করতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করতে থাকেন বিভিন্ন জায়গায়। ঝঁড় উঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও।

 

Developed By The IT-Zone