ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৬ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে শিক্ষা কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম সরকার স্ট্যান্ড রিলিজ : স্বস্তির নি:শ্বাস শিক্ষকদের মধ্যে

স্টাফ রিপোর্টার
জুন ১৬, ২০২২ ৯:১৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচং উপজেলার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম সরকারকে তাৎক্ষনিক অবমুক্ত বা স্ট্যান্ড রিলিজ করে আদেশ প্রদান করেছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন-১) মো: আব্দুল আলীম।

গত সোমবার (১৩ জুন) এক অফিস আদেশের মাধ্যমে প্রশাসনিক কারণ দেখিয়ে এই আদেশ জারি করা হয়। শফিকুল ইসলামকে সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় বদলির আদেশ দেয়া হয়েছে।

আদেশ ঘেটে জানা যায়,শফিকুল ইসলাম সরকার তার বর্তমান কর্মস্থলের দায়িত্বভার ১৫জুনের মধ্যে হস্তান্তর করবেন। অন্যথায় ১৬জুন থেকে তাৎক্ষনিক অবমুক্ত বা স্ট্যান্ড রিলিজ বলে গণ্য হবেন । এ বিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন রয়েছে বলেও আদেশে উল্লেখ করা হয়।

অফিস আদেশের অনুলিপি পরিচালক প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর,প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর একান্ত সচিব,প্রাথমিক ও
গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবের একান্ত সচিব সিলেট বিভাগের বিভাগীয় উপপরিচালক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হবিগঞ্জ /সুনামগঞ্জ এর বরাবরে প্রেণ করা হয়েছে । তার এই বদলি বা স্ট্যান্ড রিলিজের খবর শুনে উপজেলার সকল শিক্ষকরা স্বস্তি ফিরে পেয়েছেন

প্রসঙ্গত,বানিয়াচং উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম সরকারের বিরুদ্ধে ঘুষ দাবী,দুর্নীতি,হুমকি প্রদান ও বিজ্ঞপ্তি না দিয়ে নীতিমালা লঙ্ঘন করে জুনিয়র শিক্ষককে প্রধান শিক্ষকে প্রস্তাব প্রেরণ সংক্রান্ত নানা অনিয়মের অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছিলেন তদন্তকারী কর্মকর্তা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আমিরুল ইসলাম। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত প্রতিবেদন জমাও দেন তিনি।

তার আগে শফিকুল ইসলাম সরকারের বিরুদ্ধে ১৪নং শরীফখানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাদির বখত সোহেলী ও ৯নং ঘাগড়াকোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জ্যোাতিরীন্দ্র হোম ঘুষ দাবী,হুমকি প্রদান ও বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ না করে নীতিমালা লঙ্ঘন করে জুনিয়র প্রধান শিক্ষক প্রস্তাবকরণ সংক্রান্তসহ দুইটি অভিযোগ দাখিল করেন।

এ ছাড়াও বক্তারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক বাবুল তালুকদার শিক্ষা অফিসার শফিকুল ইসলাম সরকারের বিরুদ্ধে ইএফটি’র কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য চাঁদা আদায়ের অভিযোগের বিষয়টিও একই দিন তদন্ত করেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ আমিরুল ইসলাম।

সেটাও তদন্ত করে পেশ করা হয়েছে বলে একটি সুত্র নিশ্চিত করেছে। অন্যদিকে ইএফটি বাস্তবায়ন,উত্তোলিত টাকা লেনদেন,শিক্ষকদের অন্যত্র বদলির সুপারিশ,শিক্ষকদের নিয়ে অফিসে বসে অযথা আড্ডা,অফিসের মেইল ফরওয়ার্ডসহ নানা অভিযোগ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে দাখিল করা হয়েছিল।

পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে উপরোক্ত বিষয়ে তদন্ত করেছিলেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক প্রশাসন-১ মো: আব্দুল আলীম। এসব নিয়ে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি দৈনিক “আমার হবিগঞ্জ” পত্রিকার অনলাইন ও প্রিন্ট ভার্সনে একটি সচিত্র সংবাদ প্রকাশ হয়েছিল।

 

Developed By The IT-Zone