ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে মানা হচ্ছেনা লক-ডাউন : হাটবাজারে চলছে অবাধ বিচরণ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ২, ২০২০ ৯:৪৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন :  করোনাভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে ভ্রুক্ষেপ করছেন না বানিয়াচংয়ের মানুষ। উপজেলা সদরসহ আশেপাশের বিভিন্ন এলাকাসহ সরকারের এই নিষেধ অমান্য করে রীতিমতো গণজমায়েতে পরিণত হচ্ছে বাজারগুলো। কার্য়ত সরকারের এই লকডাউন কেউ মানছেনা। হাটবাজার গুলোতে জনসাধারণের অবাধ বিচরণ দেখা গেছে।

গত মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) থেকে হঠাৎ করেই সদরেরর বাজারগুলোতে গত কয়েকদিনের তুলনায় বেড়েছে মানুষের আনাগোনা।বেড়েছে যাত্রী চলাচলের ছোটখাটে গাড়িও। এতে উপজেলাজুড়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়ছে বলে আশঙ্কা করছেন সচেতন মহল।

উপজেলা সদরের হাট-বাজারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নতুন বাজারের পশ্চিমে,হাসপাতাল রোড,বড়বাজার শহীদ মিনার,সাবরেজিস্ট্রার রোড,ব্র্যাক অফিস রোড,আদর্শবাজারের পশ্চিমের রোডসহ বিভিন্ন এলাকার দোকানপাট খোলা।এক দরজা বন্ধ করে দেদারসে তাদের ব্যবসাপাতি চালিয়ে যাচ্ছেন। স্বাভাবিক সময়ের মতোই চলছে বেচাকেনা।

এছাড়া,৪নং ইউনিয়নের ভাঙ্গার পাড়,মহিলা কলেজ রোড,এল আর হাইস্কুল রোডে বিকাল হলেই সর্বত্রই জনসমাগম বাড়ছে।

অথচ করোনাভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে বারবার বলা হচ্ছে ঘরে থাকার কথা। বলা হচ্ছে ভিড় এড়িয়ে চলতে।কিন্তু কে শুনে কার কথা।

 

ছবি : লকডাউনের মধ্যে বাজাগুলোতে চলছে জনসাধারণের অবাধ বিচরণ

উপজেলার একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মী আবুল ফজল বলেন, করোনাভাইরাসের রোধে সরকার ২৬ মার্চ থেকে দেশে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে। বন্ধ করে দিয়েছে সড়ক-নৌ-আকাশপথে যোগাযোগ। মঙ্গলবার সেই ছুটির মেয়াদ ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে মানুষকে বলা হয়েছে ঘরে থাকতে। কিন্তু এই এলাকার মানুষ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছেন না।

শিক্ষক আবুল ফজল বলেন, করোনাভাইরাসের বিস্তার ও সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটিতে ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন শহরে কর্মরত মানুষ এলাকায় ফিরেছেন। তারাও মানছেন না সরকারের সামাজিক দূরত্ব বজায়ের নির্দেশনা। আর গ্রামের বেশিরভাগ মানুষ অসচেতন। সব মিলিয়ে করোনা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে পুরো বানিয়াচং।

বৃহস্পতিবার (২এপ্রিল) সকালে বানিয়াচংয়ের কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রয়োজনীয় কাঁচাবাজার, চাল, ডাল ও মাছ কিনতে নানান বয়সী নারী-পুরুষের ভিড়। এই ভিড় ঠেলে সবাই যে যার মতো কেনাকাটা করছেন। করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে সরকারের পক্ষ থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা বলা হলেও তার ছিঁটেফোঁটাও নেই। অন্যদের মতো বাজারে মাছ কিনতে আসেন মুখে মাস্ক পরে জোবায়ের মিয়া। তিনি বলেন, ভিড়ের মধ্যে ঠেলাঠেলি করে কেনাকাটা করতে হচ্ছে। অধিকাংশ লোকই সচেতন নয়, মুখে মাস্ক নেই। যার ফলে সবার মাঝে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে। আনোয়ার নামের এক লোক চালের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে। তার মুখে মাস্ক ও হাতে গ্ল্যাভস নেই। ‘করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব চলছে, কেন মাস্ক পরেন না?’ জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি বস্তা টানি মাস্ক পরলে শ্বাস নিতে কষ্ট হয়। আল্লাহই ভাইরাস থেকে রক্ষা করবেন।

ছবি : বানিয়াচং এর বাজারগুলোতে যানবাহনসহ সাধারণের চলছে নিয়মিত আসা যাওয়া

করোনাভাইরাসের ঝুঁকি মোকাবেলায় সরকারের পক্ষ থেকে এক মিটার দূরত্ব রেখে চলাচলের নির্দেশনা থাকলেও বাস্তবে তা কাউকে মানতে দেখা যাচ্ছে না। জটলা পাকিয়ে দোকানে আড্ডা দেয়াসহ কাঁচাবাজার, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকানে দেখা যাচ্ছে জনসাধারণের অবাধ বিচরণ। এর ফলে বাড়ছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রঞ্জন কুমার সামন্ত বলেন, প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও সেনাবাহিনীর সহায়তায় পুলিশ করোনাভাইরাসের প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে প্রচার-প্রচারণা অব্যাহত আছে।

তিনি আরও জানান, পুলিশের গাড়ি দেখলেই হাট-বাজারের দোকান-পাট দ্রুত বন্ধ হয়ে যায়। জনগন দৌড়ে সরে যায়। কিন্তু পুলিশ চলে গলে আবারও জমজমাট হয়ে ওঠে হাট-বাজার।

কথা হয় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বানিয়াচং সার্কেল) শেখ মো: সেলিম এর সাথে। তিনি জানান,পুলিশ সব সময় বিভিন্ন এলাকায় টহল দিচ্ছে। করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। জনসমাগমের খবর পাওয়া মাত্রই আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছি।

এ বিষয়ে কথা হয় বানিয়াচংউপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকার মহোদয়ের সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানান,বানিয়াচং উপজেলায় দেশব্যাপী করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে উপজেলায় জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য সেনাবাহিনী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সমন্বয়ে সর্বত্র মাইকিংসহ বিভিন্ন কার্যক্রম অব্যাহত এবং জোরদার করা হয়েছে।

 

Developed By The IT-Zone