ঢাকাসোমবার , ২৩ ডিসেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে পিতা পুত্রের কারাদন্ড

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ডিসেম্বর ২৩, ২০১৯ ৩:৫৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন  :  বানিয়াচংয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের অভিযানে ২টি প্রতিষ্ঠানকে ৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অন্যদিকে কারাদন্ড দেয়া হয়েছে পিতা পুত্রকে। সোমবার (২৩ডিসেম্বর) বেলা এগারটায় বানিয়াচং নতুন বাজারে ভোক্তা অধিকার আইনের বিভিন্ন ধারায় এ জরিমানা ও কারাদন্ড প্রদান করা হয়। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর জেলা কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক আমিরুল ইসলাম মাসুদ এর নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানকালে বানিয়াচং নতুনবাজারে অবস্থিত অরুন রায়ের মুদির দোকানকে পণ্যের মোড়ক ব্যবহার না করা,১৪টি বার্মিজ আচারের প্যাকেটের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৩৭/৫১ ধারায় দুই হাজার টাকা এবং ৯টি মুড়ির প্যাকেট ও ৫০টি বার্মিজ আচারের প্যাকেটে মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় একই ধারায় রণধীর মোদকের মুদির দোকানকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

অন্যদিকে ভেজাল পণ্যের কারখানায় পণ্যে মোড়ক ব্যবহার না করা,ভেজাল পণ্য তৈরী,খাদ্য নিষিদ্ধ দ্রব্যের মিশ্রণ,অবৈধ অস্বাস্থ্যকর প্রক্রিয়ায় উৎপাদন,প্রক্রিয়াকরণ ও নকল পণ্য প্রস্তুুত করায় বানিয়াচং ৪নং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনিয়নের অন্তর্গত সাগরদীঘির দক্ষিণ পাড়ে অবস্থিত ভেজাল কারখানা মালিক নরসিংদী জেলার রায়পুরা উপজেলার সেন্টু মিয়া ও তার পুত্র কাওছার মিয়াকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৩৭/৪২/৪৩/৫০/ও ৫২ ধারায় ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন বানিয়াচং উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি ) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মতিউর রহমান খান।

এই বিষয়ে সহকারি কমিশনার (ভূমি) মতিউর রহমান খান জানান- অনুমোদন বিহীন নিয়মতান্ত্রিক ও হাইজিনিক জিনিস বলতে কোনো কিছুই এখানে নেই। তারপর পণ্যের প্যাকেটে কোন উৎপাদনের তারিখ, মেয়াদ,এমনকি মূল্য পর্যন্ত দেয়া নাই। আবার ভেজাল খাদ্য উৎপাদন করে অন্যান্য কোম্পানির মোড়ক ব্যবহার করে বাজারজাত করছে তারা। এসব খেলে শিশুরা এবং বাচ্চারা অসুস্থ্য হয়ে পড়বে তাৎক্ষনিক। যে খাবে সেই অসুস্থ্য হয়ে পড়বে।

এমতাবস্থায় আমরা ভোক্তা অধিকার ২০০৯ এর বিভিন্ন ধারায় এই কারখানার মালিক ও তার পুত্রকে ৬ মাসের কারাদন্ড প্রদান করেছি। তবে তাদের পারিপার্শ্বিক অবস্থার কথা বিবেচনা করে আর্থিক কোনো জরিমানা করা হয়নি।

শুধুমাত্র কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। পরে এই কারাখানা থেকে জব্দকৃত মুড়ি,আচার,চিপস,মটরশুটি,পলিথিনসহ নানা পণ্য উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী খালি ময়দানে নিয়ে আগুনে পুড়িয়ে নষ্ট করা হয়েছে। নষ্ট করা পণ্যের আনুমানিক মূল্য ধরা হয়েছে ২ লাখ ৩০ হাজার টাকা। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমান আদালতকে সাহায্য করেন বানিয়াচং থানার এসআই আব্দুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ।

Developed By The IT-Zone