ঢাকাMonday , 16 December 2019
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে বিজয় দিবসে পতাকা নেই আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে

Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন :  একাত্তর সালের এই দিনে কাঙ্খিত বিজয় সত্যি হয়ে দেখা দিয়েছিল বাঙ্গালি জাতির জীবনে। ৪৮ বছর আগে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে এই দিনে এসেছিল বাংলার স্বাধীনতা। এই দেশে উদিত হয়েছিল নতুন এক সুর্যের। সে সুর্য কিরণে লেগে ছিল রক্ত দিয়ে অর্জিত বিজয়ের রঙ। সেই রক্তের রঙ সবুজ বাংলায় মিশে তৈরী করেছিল বাংলার লাল সবুজ পতাকা। সোমবার (১৬ডিসেম্বর) ছিল বিজয়ের সেই দিন।  মহান বিজয় দিবসে সূযোর্দয়ের সাথে সাথে দেশের সর্বত্র অফিস আদালত,সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা,বিভিন্ন দলীয় অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হলেও খোদ বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে মহান বিজয় দিবসে উত্তোলন করা হয়নি দলীয় পতাকা এমনকি জাতীয় পতাকাও। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বানিয়াচং উপজেলার শাখার এই কার্যালয়টি উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বাসভবন সংলগ্ন স্থানে হওয়ার ফলেও বিষয়টি যেন সবার অগোচরেই রয়ে গেছে। দলীয় নেতাকর্মীদের চোখেও বিষয়টি ধরা পড়েনি। সরেজমিনে সোমবার ( ১৬ ডিসেম্বর) সকাল ৯ বেজে ৪৫ মিনিটে গিয়ে দেখা যায় কার্যালটি সম্পুর্ণ তালাবদ্ধ। কার্যালয়ের সামনে উত্তোলন করা হয়নি জাতীয় পতাকা।

বিষয়টি নিয়ে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শিক্ষক জানান,মুক্তিযুদ্ধে যে দলটির অবিস্মরণীয় অবদান রয়েছে সেই দলটির কার্যাালয়ে আজকের এই দিনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন না হওয়ায় তা দেখে খুব কষ্ট পেয়েছি। তেমনিভাবে উপজেলা পরিষদে আসা অনেক সাধারণ মানুষকেই উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন না করায় এ নিয়ে কানাঘুষা করতে দেখা গেছে।

এ বিষয়টি নিয়ে কথা হয় বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আমির হোসেন মাষ্টারের সাথে-তিনি জানান,নিজেদের মধ্যে একটু ফাঁকফোঁকর আর সমন্বয়হীনতার অভাবে এমনটা হইছে। সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন খান বলেন,এই বিষয়ে আমি কিছু জানিনা। বিস্তারিত জানতে সভাপতির সাথে কথা বলেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহজাহান মিয়া আমার হবিগঞ্জকে জানিয়েছেন,কার্যালয়েল চাবি কার কাছে আছে সেটা ঠিক মতো বলা যাচ্ছেনা। চাবি না পাওয়াতে এমনটা হইছে।

*** ছবিগুলো সকাল ১০টা বেজে ৪৪ মিনিটে ক্যামেরাবন্দি করে আমার হবিগঞ্জ।