ঢাকামঙ্গলবার , ২৬ নভেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে প্রতিবন্ধির ৫ বছরের ভাতার টাকা আত্মসাত

অনলাইন এডিটর
নভেম্বর ২৬, ২০১৯ ২:১৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ছবিঃ আত্মসাতকারী ইউপি’র মেম্বার ফজলু মিয়া।

রায়হান উদ্দিন সুমন, বানিয়াচং থেকে॥ বানিয়াচং উপজেলার ১৪নং মুরাদপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি’র মেম্বার ফজলু মিয়ার বিরুদ্ধে হালিমা আক্তার নামে এক প্রতিবন্ধি মহিলার ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন খন্দকারের বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মহিলার স্বামী আলাউদ্দিন মিয়া। অভিযোগে জানা যায়, ইউনিয়নের মাটিকাটা নোয়াহাটি গ্রামের আলাউদ্দিন মিয়ার স্ত্রী হালিমা আক্তারের নামে এক প্রতিবন্ধি মহিলার ভাতার টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেছেন মেম্বার ফজলু মিয়া। গত ৫ বছর ধরে তিনি ওই ভাতার টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করলেও বিষয়টি জানেন না হালিমা আক্তার ও তার স্বামী। সম্প্রতি ভাতাভোগীদের ডাটাবেজ ইউনিয়ন অফিসে প্রেরণ করার পর বিষয়টি জানতে পারেন তারা। পরে সমাজ সেবা অফিস ও ব্যাংক স্টেইটম্যান্ট থেকেও বিষয়টি’র সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়। যার বই নং- ১৩৬০ ও হিসাব নং- ০১০১১১৯৫৮।

তার আগেও মেম্বার ফজলু মিয়ার বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে অনিয়ম, দূর্নীতি ও আত্মসাতের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকারের সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তিনি ট্রেনিংয়ে থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

এই বিষয়ে বানিয়াচং উপজেলা সমাজসেবা অফিসার সাইফুল ইসলাম প্রধান বলেন, নীতিমালার আলোকে উন্মুক্ত বাছাই না হওয়াতে অনেকসময় ভাতাভোগী নিজেও জানেনা যে তার নামে ভাতা হয়েছে; এর ফলেই এমন ঘটছে। ভবিষ্যৎ এ উন্মুক্ত বাছাইয়ের মাধ্যমে প্রকৃত ভাতাভোগী নির্বাচন করে স্থানীয় এসব দুর্বৃত্তায়ন বন্ধ করার চেষ্টা করব। আর প্রতিবন্ধীর ভাতা আত্মসাৎ করলে তার বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা করতে পারে ভূক্তভোগী।

সাইফুল ইসলাম আরো বলেন, প্রাথমিক বাছাই (ইউনিয়ন ) কমিটি থেকে রেজুলেশন আকারে নাম আসলে তখন তাকে উপজেলা পর্যায়ে চুড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়, এর পর থেকে ভাতাভোগী টাকা পেতে থাকে এখন ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন ভাতাভোগী নিজে না করে অন্য কেউ করলে অবশ্যই তা আত্মসাৎ। যে করবে তার বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলা করে উক্ত টাকা উদ্ধার করার ব্যাপারে লাগলে সহযোগিতা করব। আমি চাই সকল দুর্বৃত্তায়ন বন্ধ হোক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ অসহায়দের প্রতি টোকেন অব লাভ সঠিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হোক, প্রকৃত যোগ্য লোক জন যাতে ভাতা পায়! সম্প্রতি ভাতাভোগীর জিটুপি ডাটা ভ্যালিডেশান করতে গিয়ে এসব ধরা পরতেছে। ১০% ভাতাভোগীর এখনো জিটুপি এন্ট্রির বাইরে আছে। আর এদের মাঝে আছে ঐসব গোস্ট ভেনিফিসিয়ারীরা!

Developed By The IT-Zone