ঢাকারবিবার , ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে চেয়ারম্যান এরশাদ আলীর বিরুদ্ধে ২০লাখ টাকা আত্নসাতের লিখিত অভিযোগ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০ ৬:২২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

 রায়হান উদ্দিন সুমন :  বানিয়াচং উপজেলার কাগাপাশা ইউনিয়নের একটি গ্রামীন রাস্তায় ৪ বার নাম পরিবর্তণ করে সরকারী বরাদ্দ নিয়ে পুরো ২০ লক্ষাধিক টাকা ইউপি চেয়ারম্যান পকেটস্থ করেছেন মর্মে অভিযোগ উঠেছে। রবিবার (২৩ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৩ টায় বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে এ সংক্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ওই ইউনিয়নের বাগহাতা গ্রামের আব্দুর রহমান মিয়ার পুত্র আব্দুর রউফ।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, কাবিটা প্রকল্প ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে আনন্দ বাজার থেকে সরালিয়া হাটি পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণে” বরাদ্দ হয় ২ লাখ ৯৯ হাজার ১ শত ৪৫ টাকা। কর্মসৃজন প্রকল্প থেকে একই রাস্তার নাম পরিবর্তণ করে একই অর্থ বছরে আনন্দ বাজার উকিল মিয়ার দোকান থেকে চমকপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণে ৬ লাখ টাকা বরাদ্দ হয়। একই রাস্তার নাম পরিবর্তণ করে পূর্বের বরাদ্দ কর্মসৃজন প্রকল্প ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে আনন্দ বাজার হতে সরালিয়া হাটির জামে মসজিদ হয়ে সরালিয়া হাটির পূর্ব মাথা পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণের জন্য ১১ লাখ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ হয়। একই রাস্তার নাম পরিবর্তণ করে চমকপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে সরালিয়া হাটির জামে মসজিদ পর্যন্ত রাস্তা পূনঃনির্মাণে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে টিআর প্রকল্পের ৬১ হাজার ৯ শত ২৭ টাকা বরাদ্দ হয়।

 

২০১৭-১৮ ও ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে একই রাস্তার ৪ বার নাম পরিবর্তণ করে সর্বমোট ২০ লাখ ৮১ হাজার ৭২ টাকা বরাদ্দ নিয়ে ওই রাস্তায় কোন রকম কার্যক্রম না করে সমুদয় টাকা অভিনব কায়দায় আত্মসাৎ করেছেন বানিয়াচং ৬ নং কাগাপাশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ এরশাদ আলী।

এব্যাপারে চেয়ারম্যান এরশাদ আলী জানান, তিনি বরাদ্দ পেয়ে ভিন্ন ভিন্ন রাস্তায় কাজ করিয়েছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মামুন খন্দকার জানান, অভিযোগে কেউ দোষী হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone