ঢাকামঙ্গলবার , ২১ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে চেয়ারম্যান আহাদ মিয়ার বিরুদ্ধে অনাস্থার প্রস্তাব

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ২১, ২০২০ ১০:৪১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

 আমার হবিগঞ্জ ডেস্ক :    বানিয়াচং উপজেলার ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আহাদ মিয়ার বিরুদ্ধে প্রকল্পের অর্থ আত্মসাত, ক্ষমতার অপব্যবহার, দূর্নীতি-স্বজনপ্রীতি, অনুমতি ছাড়া জেলা শহরে নিজস্ব দোকানঘরে ইউপি কার্যালয়, অশালীন আচরণ ও একক ক্ষমতা প্রয়োগ করাসহ নানা অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। তাই এর প্রতিকার চেয়ে ইউনিয়নের ১১ ইউপি সদস্য/সদস্যা জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।অভিযোগকারীরা হলেন, মোঃ কবির মিয়া, মোঃ মহিবুর রহমান চৌধুরী, আব্দুল মন্নান চৌধুরী, মোঃ আরাফাত আলী, মোঃ মুতি মিয়া, মোঃ আজমান মিয়া, মোঃ খাইরুল ইসলাম চৌধুরী, শেখ আব্দুল মমিন, মোঃ আলফু মিয়া, মোছাঃ সাফিয়া আক্তার ও মোছাঃ মমিনচান।

এই অভিযোগের অনুলিপি বানিয়াচং উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান,বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা দূর্নীতি দমন কমিশন, স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় ও সংসদ সদস্য হবিগঞ্জ-২সহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া চেয়ারম্যান আহাদ মিয়া হবিগঞ্জ পৌর এলাকার কামড়াপুরস্থ তার নিজস্ব দোকানঘরকে অস্থায়ী কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার ও ক্ষমতাবলে পরিষদের মালামাল দোকানঘরে রেখে নিজ প্রয়োজনে ব্যবহার, গত বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের একক ভাবে তালিকা প্রণয়ন করে নিজের লোকজনদের অন্তর্ভূক্তির মাধ্যমে নামে মাত্র ৩০ কেজি করে চাউল ও ৫০০টাকা করে বিতরণের নামে লাখ লাখ টাকা আত্মসাত, মাসিক মিটিং না করে ২/৩ জন মেম্বারকে প্রকল্পের কথা বলে ডেকে এনে জোরপুর্বক স্বাক্ষর আদায়, আশালীন আচরণ, দলীয় প্রভাব বিস্তার, মেম্বারদের কাছ থেকে কর্জ টাকা নিয়ে পরে না দেয়া, ভিজিডি, ভিজিএফ, মাতৃত্বকালীন ভাতা, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, টিআর, কাবিখা, এলজিএসপিসহ বিভিন্ন প্রকল্পের  টাকা আত্মসাত, ফসল রক্ষা বাঁধের টাকা আত্মসাত, কর্মসৃজন প্রকল্পের শ্রমিকদের লাখ লাখ টাকা আত্মসাতসহ নানান অভিযোগ রয়েছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

ইউপি সদস্য মমিন মিয়া ও আলফু মিয়া জানান, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের নামের তালিকায় ৭,৮ নং ওয়ার্ডের কোন কৃষকের নাম তালিকায় অন্তরভূক্ত হয়নি। চেয়ারম্যান নিজ উচ্ছেমত নামেমাত্র বিতরণ করে লাখ লাখ টাকা আত্মসাত করেছেন। এছাড়াও খোয়াই নদীর ফসল রক্ষা বাঁধের টাকা চেয়ারম্যান নিজেই সভাপতি হিসেবে থেকে নামেমাত্র কাজ করে আত্মসাত করেছেন। যা নিয়ে বিরুপ পতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। তাই এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্তপূবর্ক ব্যবস্থা গ্রহনের জন্যও অনুরোধ জানান ভোক্তভূগী ইউপি সদস্যবৃন্দ।

Developed By The IT-Zone