ঢাকাবুধবার , ১৫ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে ইউপি চেয়ারম্যান এরশাদ আলীর বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের টাকা আত্নসাতের অভিযোগ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ১৫, ২০২০ ৮:০৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন  ॥ হবিগঞ্জের বানিয়াচং ৬ নং কাগাপাশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এরশাদ আলী স্থানীয় একতা উচ্চ বিদ্যালয়ের লক্ষাধিক টাকা আত্নসাতে করেছেন মর্মে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উঠেছে। ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে এলজিএসপি থেকে বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র ক্রয় বাবৎ বরাদ্দকৃত ১ লাখ টাকা পুরোটাই তার পকেটস্থ করেছেন তিনি। ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে একই বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র ক্রয় বাবদ ১ লাখ টাকা বরাদ্দ পেয়ে আসবাবপত্র ক্রয়ের বদলে বিদ্যালয়ে মাটি ভরাট করেছেন মর্মে চেয়ারম্যান এরশাদ আলীর নিজে স্বীকার করেছেন। অনুসন্ধানকালে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন ৩ বছরের মধ্যে বিদ্যালয়ে কোন রকম উন্নয়নমুলক কাজ করা হয়নি।

এ ব্যাপারে একতা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মন্নান চকদার জানিয়েছেন, বিগত ৩ বছরে এলজিএসপির কোন উন্নয়নমুলক কাজ বিদ্যালয়ে করা হয়নি। তবে তাকে চেয়ারম্যান জানিয়েছেন কিছু অর্থ বরাদ্দ আছে যা দিয়ে বিদ্যালয়ে কাজ করানো হবে। বরাদ্দকৃত টাকা চেয়ারম্যা সাহেবের কাছে জমা আছে।

ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মকবুল হোসেন খান জানিয়েছেন বিগত ৩ বছরের মধ্যে বিদ্যালয় আঙ্গিনায় যতসামান্য মাটি ভরাটের কাজ করানো হয়েছে।তবে কোনো ধরণের আসবাবপত্র কেনার বিষয়টি চোখে পড়েনি।

বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মামুন খন্দকার ”আমার হবিগঞ্জকে” জানিয়েছেন, প্রধান শিক্ষক যেহেতু বলেছেন ৩ বছরে কোন উন্নয়নমুল কাজ হয়নি। সেহেতু প্রশ্ন হলো ২ লাখ টাকা গেল কোথায়। তিনি জানান দ্রুত এর তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে এবং বরাদ্দকৃত অর্থ দিয়ে বিদ্যালয়ের উন্নয়ন করতে চেয়ারম্যানকে বাধ্য করা হবে। অন্যতায় আইনগত পদেক্ষপ নেয়া হবে ওই চেয়ারম্যানের বিরেুদ্ধে।

এ সব নিয়ে কথা হয় ইউপি চেয়ারম্যান এরশাদ আলীর সাথে। তিনি দুইবার দুই রকম বক্তব্য দিয়েছেন। প্রথমে তিনি জানিয়েছেন শুধু এক লাখ টাকা আসবাবপত্র না ক্রয়  করে এই টাকা দিয়ে মাটি ভরাট করিয়েছেন। এছাড়া কোন বরাদ্দ তিনি পাননি। পরবর্তীতে তিনি বলেছেন আসবাবপত্রও নাকি তিনি ক্রয় করেছেন। তাহলে এখন প্রশ্ন থেকে যায়-আসবাবপত্র যদি চেয়ারম্যান এরশাদ আলী ক্রয়ই করে থাকেন তাহলে সেই ক্রয় করা আসবাবপত্রগুলো গেল কোথায় ? নাকি বরাদ্দকৃত পুরো টাকাই তিনি তার পকেটস্থ করে নিয়েছেন। বিষয়টি বিশদভাবে খতিয়ে দেখতে প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানিযেছেন এলাকাবাসীসহ ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা।

Developed By The IT-Zone