ঢাকাশুক্রবার , ১০ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে গ্রাহকের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে পালিয়েছে বীমা কর্মী দুদু মিয়া

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ১০, ২০২০ ১:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

হৃদয় হাসান শিশির, বানিয়াচং প্রতিনিধিঃ  বানিয়াচংয়ে বীমার নাম করে গ্রাহকের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে বীম কর্মী দুদু মিয়া। সে উপজেলা সদরের আমিরখানী মহল্লার লস্কর বাড়ির মৃত তাহের মিয়ার পুত্র।দুদু মিয়া গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স নামে একটি বীমার বানিয়াচং বড়বাজার শাখায় কর্মরত ছিলেন।

ছবি : ইনসেটে বীমাকর্মী প্রতারক দুদু মিয়া

খোঁজ নিয়ে জানা যায়,দুদু মিয়া এলাকার সহজ-সরল মানুষের কাছ থেকে ডিপিএস করার নামে মোটা অংকের টাকার লোভ দেখিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পালিয়েছে।বীমা কর্মী দুদু মিয়া দীর্ঘদিন ধরে নানা প্রলোভন দেখিয়ে বীমার নাম করে বাড়ি বাড়ি গিয়ে টাকা সংগ্রহ করত।সেই টাকা বীমার অফিসের জমা না দিয়ে নিজের পকেটস্থ করেন দুদু মিয়া। সম্প্রতি যে সব গ্রাহক দুদু মিয়াকে টাকা দিয়েছিলেন সেই গ্রাহকরা তার যোাগাযোগ করে লাভের টাকা চাইলে দুদু মিয়া দেই দিচ্ছি বলে কালক্ষেপন করতে থাকেন।

 

চতুর দুদু মিয়া এইফাঁকে পরিবারের সবাইকে নিয়ে গাঁ ঢাকা দেয়। কথা হয় গ্রাহক শাহ আলমের সাথে । তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানানা, পলাতক দুদু মিয়া আমাদের কম টাকায় বেশি লাভ দিবে বলে লোভ দেখিয়েছে। সে বলেছে ২৫,০০০ হাজার টাকা দিলে ১২ বছর পর সে ১০০০০০ লক্ষ টাকা দিবে।সে কিস্তির মাধ্যমে তাদের কাছ থেকে টাকা নিত বলে জানান তিনি। পলাতাক দুদু মিয়া তাদেরকে বলেন ১২ বছর পর একসাথে তাদের সব টাকা দেওয়া হবে। এই বলে আশ্বাস দেন পলাতক দুদু মিয়া। তার কাছে শাহআলমের দুটি (ডিপিএস) বীমা রয়েছে বলে ও তিনি জানান। ইদানিং দুদু মিয়ার ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়ে সেটি বন্ধ থাকে বলে ও জানিয়েছেন শাহআলম। একই অভিযোগ করেন-এলাকার গ্রাহক জহুরা খাতুন ও রফেজা থাতুন।

 

বিষয়টি নিয়ে কোনো ধরণের মামলা করা হয়েছে কিনা তাদের কাছে জানতে চাইলে তারা জানান,বিষয়গুলো এলাকার মুরুব্বিদের জানানো হয়েছে। দেশের সার্বিক পরিস্থিত বর্তমানে খারাপ থাকায় মামলা করেনি। তবে বীমা কর্মী দুদু মিয়ার বিরুদ্ধে অচিরেই প্রতারণার মামলা দায়ের করবেন বলে তারা দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানিয়েছেন। এই বিষয়ে দুদু মিয়ার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার ব্যবহৃত নাম্বারটি বন্ধ থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

Developed By The IT-Zone