ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৮ অক্টোবর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আহাদ মিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবসার প্রলোভনে ১৬ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
অক্টোবর ২৮, ২০২১ ৯:১২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার :   বানিয়াচং উপজেলার ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহাদ মিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবসার প্রলোভন দেখিয়ে ১৬ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

 

পাশাপাশি প্রশাসনসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগের অনুলিপি দায়ের করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সংযুক্ত আরব আমিরাত শাখার সভাপতি বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, সিআইপি ব্যক্তিত্ব রাখাল কুমার গোপ।

 

অভিযোগ ঘেটে জানা যায়,বিগত ২০২০ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে ব্যবসার জন্য রাখার কুমার গোপের পিসাতু ভাই চিত্ত রঞ্চন গোপের মাধ্যমে ঢাকা ব্যাংকের হবিগঞ্জ শাখা হতে ১৬ লাখ টাকা উত্তোলন করে ব্যাংকে থাকা অবস্থায় ই উত্তোলনকৃত টাকা চেয়ারম্যান আহাদ মিয়ার হাতে তুলে দেন। টাকা দেয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন রাখাল কুমার গোপের ম্যানেজার ধীরেন্দ্র গোপসহ এরশাদ নামের এক ব্যক্তি।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ছবি : ১১ নং মক্রমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহাদ মিযার ফাইল ছবি

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

চেয়ারম্যান আহাদকে টাকা দেয়ার সম্পুর্ণ ভিডিও ওই ব্যাংকের সিসিটিভিতে সংরক্ষিত আছে। কিছুদিন পর চেয়ারম্যান আহাদ মিয়া জানান তিনি ব্যবসা করবেন না এই মর্মে টাকাগুলো ফেরত দিয়ে দিবেন। পরবর্তীতে রাখার কুমার গোপের ভাই ও ম্যানেজার আহাদ মিয়ার কাছে টাকা চাইলে তিনি টাকা না দিয়ে একের পর এক সময় নিয়ে টাকা না দেয়ার জন্য কালক্ষেপণ করতে থাকেন।

 

তাকে ফোন দিলেই দেই দিচ্ছি বলে এড়িয়ে যান। বিষয়টি রাখাল কুমার গোপ সুনামগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য জয়া সেনগুপ্তকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে অবগত করেন। একপর্যায়ে সাংসদ জয়া সেনগুপ্ত চেয়ারম্যান আহাদকে টাকা ফেরত দিতে বলেন। প্রতি উত্তরে আহাদ মিয়া কিছুদিনের মধ্যেই দিয়ে দিবে বলে সাংসদ জয়া সেনগুপ্তকে আশ্বস্ত করেন।

 

কিন্তু আজ পর্যন্ত রাখাল গোপের টাকা ফেরত দেন নাই আহাদ মিয়া। পরে একাধিকবার তার মোবাইলে ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। তাদের এই মোবাইলের কথপোকথন রেকর্ড সংরক্ষিত আছে বলে জানান ম্যানেজার ধীরেন্দ্র কুমার গোপ। তিনি আরো জানান,আহাদ একেক সময় একেক কথা বলেন। তবে টাকা নেয়ার কথা অস্বীকার করেনি।

 

রাখার গোপের অভিযোগের কপি প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল অফিসার-২, বাংলাদেশ পুলিশের বিভাগীয় পুলিশ মহাপরিদর্শক, র‌্যাবের মহাপরিচালক,হবিগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ খান হবিগঞ্জ- ৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আবু জাহির,জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডা: মুশফিক হোসেন চৌধুরী,উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা,বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এমরান হোসেন এর বরাবরে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্যদিকে গত বুধবার (২৭অক্টোবর) আরেকটি লিখিত অভিযোগ রাখার গোপের পক্ষে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি’র বরাবরে দেয়া হয়েছে।

 

এই বিষয়ে অভিযুক্ত বানিয়াচং উপজেলার ১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহাদ মিয়ার সাথে কথা হলে তিনি দৈনিক “আমার হবিগঞ্জ”কে জানানা, রাখাল বাবু যদি টাকা দিয়ে থাকেন তাহলে তিনি তো আমাকে বলতে পারতেন ফোন করতে পারতেন। তিনি আমাকে বলছেন না কেন। টাকা রাখাল বাবু দেন নি। টাকা দিয়েছিলেন তার ভাই।

 

আমি সেই টাকা ফেরতও দিয়ে দিয়েছি। এটা নিয়ে পরে কথা বলব। দেখা হলে সরাসরি বসে কথা বলব। এসব বলে ফোনের লাইন কেটে দেন আহাদ মিয়া। তবে কার কাছে টাকা ফেরত দিয়েছেন এই প্রশ্ন করলে এটা তিনি বলতে অনিহা প্রকাশ করেছেন।

 

Developed By The IT-Zone