ঢাকাসোমবার , ১৩ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ে ইউনিয়ন পর্যায়ে করোনা প্রতিরোধ কমিটি : নামে আছে কাজে নাই

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ১৩, ২০২০ ১১:৩৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

রায়হান উদ্দিন সুমন : বানিয়াচং উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে করোনা প্রতিরোধ ও মোকাবেলায় গঠিত হওয়া কমিটি বাস্তবে কোনো ধরণের কর্মকান্ড করছে না বলে সর্বত্র আওয়াজ উঠেছে। এই কমিটি শুধু মাত্র কাগজ-কলমে ই সীমাবদ্ধ।এলাকার সচেতনমহল এমনটাই জানিয়েছেন।   সম্প্রতি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবেলা লক্ষ্যে ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটি গঠন করার জন্য গত ১৬-০৪-২০২০ তারিখে প্রজ্ঞাপন জারি করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিব মো: আবু রায়হান মিয়া।

ছবি : ইউনিয়ন পর্যায়ে করোনা প্রতিরোধ ও মোকাবেলায় কমিটি গঠন করার জন্য স্বাস্থ্য বিভাগের প্রজ্ঞাপন জারির কপি

এই প্রজ্ঞাপন ঘেটে দেখা যায়,করোনা প্রতিরোধ ও মোকাবেলা করার জন্য ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটি গঠনের লক্ষ্যে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের সচিবকে সদস্য সচিব এবং বেসরকারি কলেজের প্রতিনিধি (যদি থাকেন),বেসরকারি হাইস্কুলের প্রতিনিধি,প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুইজন প্রধান শিক্ষক,স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি দুইজন,স্বাস্থ্য পরিদর্শক,ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য (সকল),ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য (সংরক্ষিত) সকলকে নিয়ে কমিটি করে ইউনিয়নে পর্যায়ে কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য।

ছবি : একটি ইউনিয়নের কমিটি গঠনের তালিকা

এই প্রজ্ঞাপন মোতাবেক বানিয়াচং উপজেলার ১৫টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানগণ গত ২২-৩-২০২০ তারিথে ২০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করেন ইউনিয়ন চেয়ারম্যানগণ। কিন্ত কমিটি গঠনের পর থেকে ২০ দিন পেরিয়ে গেলেও অদ্যবধি পর্যন্ত এই কমিটির কোনো ধরণের কার্যক্রম চোখে পড়েনি। শুধু কাগজে কলমেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। অন্যদিকে দিকে হাসির কথা হলো-এই কমিটিতে যাদের স্থান দেয়া হয়েছে তারা নিজেই জানেন না যে তারা এই কমিটিতে আছেন। কয়েকটি ইউনিয়ন কমিটির সদস্যদের সাথে আলাপকালে এসব জানা গেছে। এমনকি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবেলায় কমিটির কি কি কাজ রয়েছে সেদিকে তাদের কোনো ধারণা ই নেই।

প্রজ্ঞাপনে আরো দেখা যায়,এই কমিটি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত জাতীয় কমিটির নির্দেশনা বাস্তবায়ন প্রণয়ন,করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের লক্ষ্যে সচেতনতা সৃষ্টি,প্রয়োজনে কোয়ারেন্টাইনসহ আর্থিক ও লজিস্টিক সহায়তার বিষষে পদক্ষেপ গ্রহন করবে।এই কমিটি করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত যে কোনো তথ্য পাওয়া গেলে তাৎক্ষনিক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণসহ জাতীয় কমিটির পরামর্শ গ্রহন করবে এবং ঐ ব্যক্তি ও তার পরিবারের সদস্যগণের চলাফেরাা উপর নজরদারিসহ প্রযোজনীয় ব্যবস্থাগ্রহণ এবং কমিটির প্রয়োজনে কোনো সদস্য কো-অপ্ট করতে পারবে। মজার বিষয় হলো–গঠন হওয়া কমিটি সদস্যদের করোনা ভাইরাস সচেতনতা নিয়ে কাজ করা তো দুরের কথা তারা নিজেরাই লকডাউন হয়ে আছেন। পুরো উপজেলা জুড়ে এই কমিটি নিয়ে সাধারণ জনগণের মধ্যে রসালো আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

ছবি : নামে ই করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবেলায় কমিটি গঠন । বাস্তবে এই কমিটির কোনো কাজ চোখে পড়ছেনা বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

এটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও চলছে আলোচনা-সমালোচনা। বানিয়াচংয়ে কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীরা বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ জানিয়েছেন।

কথা হয় বানিয়াচং উপজেলার ৫নং দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমানের সাথে । তিনি এই প্রতিবেদককে জানিয়েছেন,আমাদের কমিটির কাজ চলমান। কমিটির প্রত্যেকটি সদস্যদের নিয়ে দুইটি মিটিং ও করেছি। মিটিংয়ে কমিটি সব সদস্য উপস্থিত ছিল। একই রকম তথ্য দিয়েছেন ২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওয়ারিশ উদ্দিন খান,৪নং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রেখাছ মিয়াসহ আরো কয়েকজন চেয়ারম্যান। তবে মাঠে ময়দানে এই কমিটির কোনো ধরণের কার্য়ক্রম চোখে পড়েনি বলে জানিয়েছেন এলাকার সচেতনমহল।

বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রঞ্জন কুমার সামন্ত’র সাথে কথা হলে তিনি জানান,ইউনিয়ন পর্যায়ে এই কমিটিটা মন্ত্রণালয় কর্তৃক ক্ষমতা সম্পন্ন একটি কমিটি ।এই কমিটি যদি যথাযথ ভাবে কাজ না করে তাহলে সরকারের যে নীতি নির্ধারনী কাজগুলো আছে সেগুলো বাস্তবায়নে ব্যাঘাত ঘটবে এবং সরকার জনগণের কাছে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়বে। তারা যদি  কোনো কাজ না করে তাহলে এখনো সময় আছে যেহেতু এটা দীর্ঘমেয়াদী প্রবলেম।কমিটিতে নতুন সদস্য কো-অপ্ট করার এখনো সুযোগ আছে। তাই সমাজের গ্রহনযোগ্য ব্যক্তিদের নিয়ে কমিটি পুনর্গঠন করে  সরকারের এই কর্মকান্ড জোরালে ভাবে পরিচালনা করলে পাশাপাশি সরকারের ও ভাবমুর্তী বাড়বে বলে আমি মনে করি।

ইউনিয়ন পর্যায়ে করোনা প্রতিরোধ ও মোকাবেলা কমিটির কার্যক্রম এর বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাইলে কথা হয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকার মহোদয়ের সাথে। তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ কে জানান, কমিটি গঠন করা হইছে,কমিটি মিটিং করবে কাজ করবে এটাতো তাদের বলে দেয়া হযেছে। যদি তারা কোনো কাজ না করে তাহলে তো বিষয়টি নিয়ে অন্য চিন্তাভাবনা করতে হবে।

বিস্তারিত জানতে করোনা প্রতিরোধ ও মোকাবেলা কমিটির  উপজেলা সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরীর সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলে তিনি ব্যস্ত থাকায় তা সম্ভব হয়নি।

Developed By The IT-Zone