ঢাকারবিবার , ৫ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ের হাটবাজারে বাড়েনি শাকসবজির দাম : তবে মানা হচ্ছেনা সামাজিক দুরত্ব

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ৫, ২০২০ ৪:১৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

জসিম উদ্দিন, বানিয়ায়চংঃ হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে করোনা মোকাবিলায় প্রশাসনের বেঁধে দেয়া সময় সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকছে বানিয়াচংয়ের সবজি বাজার। তবে ক্রেতা-বিক্রেতারা মানছেন না সামাজিক দূরত্ব। সবজির বাজারগুলোতে দেখা গেছে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়।

রোববার (৫ এপ্রিল) সকালে বানিয়াচংয়ের বড়বাজার, আদর্শবাজার ও গ্যানিংগঞ্জ বাজার ঘুরে দেখা যায় সবজির বাজার গুলোতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড়। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছেন না তারা।

বাজারে সবজির ব্যাপক সরবরাহ দেখা গেছে। শীতকালীন সবজির পাশাপাশি আগাম গ্রীষ্মকালীন সবজির উপস্থিতিও লক্ষ্য করা গেছে। করোনা পরিস্থিতিতে দাম বাড়ার আশংকা থাকলেও বাড়েনি সবজির দাম।

ছবি : বানিয়াচংয়ে কাঁচা বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে নিরাপদ সামাজিক দুরত্ব বজায় চোখে পড়েনি

বাজারগুলো ঘুরে দেখা যায় আলু ২০ টাকা, বেগুন ২০ টাকা, পুঁইশাক ৩০ টাকা, ঢেঁড়স ৩০-৩৫ টাকা, টমেটো ১০ টাকা, চিচিঙ্গা ৩০ টাকা, বরবটি ৩৫-৪০ টাকা, করলা ৪০ টাকা, কাঁচামরিচ ৩০ টাকা, ডাঁটা প্রতি আঁটি ২০-৩০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে মাছ বাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার ঘুরে দেখা গেছে দাম স্থিতিশীল রয়েছে। বাজারে পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৩৫-৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া অন্যান্য পণ্যের দামও রয়েছে সহনীয় পর্যায়ে।

বড়বাজারের সবজি বিক্রেতা নাসিমুল মিয়া জানান, করোনা পরিস্থিতিতে প্রশাসনের বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যেই আমরা ব্যবসা করছি। বাজারে কোনো শাকসবজির দাম বাড়েনি। বরং কিছু কিছু সবজির দাম কমেছে। যেমন টমেটো কয়েকদিন আগেও প্রতিকেজি ২০-৩০ টাকা দরে বিক্রি করেছি। কিন্তু আজ বিক্রি করছি ১০ টাকা দরে। তাছাড়া, কাচামরিচসহ আরও কিছু সবজির দাম কমেছে বলে জানান নাসিমুল।

ছবি : বানিয়াচংয়ের হাটবাাজারে শাকসবজিতে ভরপুর দামও হাতের কাছেই

বাজার থেকে ডাঁটা কিনেছেন সৈদরটুলা মহল্লার নান্নু মিয়া। পেশায় শিক্ষক নান্নু মিয়া বলেন, যে ডাঁটা আজ ৩০ টাকা দিয়ে কিনেছি কিছুদিন আগেও সেই পরিমান ডাঁটা ৪০-৫০ টাকায় কিনতে হয়েছে। তবে করোনা পরিস্থিতিতে ক্রেতাদের সামাজিক দূরত্ব বজায় না থাকায় আশংকা প্রকাশ করেন তিনি।

বড়বাজারে বাজার করতে এসেছেন সাংবাদিক ও সমাজকর্মী আব্দুল হক মামুন। তিনি আমার হবিগঞ্জকে বলেন, বাজারে পণ্যের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। তবে বাজারে এসে দেখলাম যেভাবে ক্রেতা-বিক্রেতারা গিজগিজ করছেন তাতে ভয় হচ্ছে কারও শরীরে যদি করোনার সংক্রমণ থেকে থাকে তাহলে তা খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়বে সবার মধ্যে। প্রশাসনের উচিৎ সবজির বাজার ও মাছের বাজার নিয়মিত তদারকি করা।

বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মামুন খন্দকার আমার হবিগঞ্জকে বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত সবজি বাজার খোলা রাখার কথা বলা হয়েছে। তবে অবশ্যই ক্রেতাদেরক সামজিক দূরত্ব বজায় রেখেই বাজার করতে হবে। এ ব্যাপারে ইতিমধ্যে বড়বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি জয়নাল মিয়াকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

প্রয়োজনে সবজি বাজারে যৌথ বাহিনীর অভিযান পরিচালনা করা হবে বলে জানান মোঃ মামুন খন্দকার।

Developed By The IT-Zone