ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৮ নভেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ের সুবিদপুরে নৌকা প্রতীক দিতে যুবদল নেতা জয়কুমারের নাম সুপারিশ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
নভেম্বর ১৮, ২০২১ ৮:৫৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

তারেক হাবিব :  ছিলেন ইউনিয়ন বিএনপির প্রচার সম্পাদক ও যুবদলের সহ-সভাপতি, গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ভাগিয়ে নিয়ে চেয়ারম্যান হন। তারপর গোপনে আবার আগের দলের নেতাকর্মীদের নিয়েই সামলান স্থানীয় রাজনীতি। তবে এবারও  নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাইছেন তিনি। আর সেই প্রার্থীর মনোনয়ন ঠেকাতে ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এখন একাট্টা।

 

এমনটাই চিত্র বানিয়াচং উপজেলার ১০নং সুবিদপুর ইউনিয়নের। এবারে সুবিদপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আবারও নৌকার প্রার্থী হতে চান এই ইউনিয়নের যুবদলের সাবেক সহ-সভাপতি ও ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক প্রচার সম্পাদক জয়কুমার দাশ। তিনি দল পাল্টিয়ে গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। নৌকা প্রতীক পেয়ে চেয়ারম্যানও হয়ে যান। তবে জেতার পর থেকে গোপনে চালিয়ে যান বিএনপির কার্যক্রম।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ছবি : যুবদলসহ বিএনপির তালিকায় থাকা জয়কুমারের নাম (ইনসেটে জয়কুমার দাশ)

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে তিনি সেখানে বিএনপিপন্থীদের নিয়েই সব কাজ করেছেন বলে অভিযোগ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের। আর সেজন্য এবারে জয়কুমার দাশকে ঠেকাতে অনেকটা একাট্টা হয়েছেন সুবিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতারা।

 

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের হাতে আসা ২০০০ এবং ২০০৩ সালের অনুমোদিত কমিটির কিছু কাগজ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, তৎকালিন যুবদলের সভাপতি মতিউর রহমান মতু ও সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মঞ্জুর হোসেন স্বাক্ষরিত ৭৪ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিতে সিনিয়র সহ-সভাপতি
পদে আছেন জয়কুমার দাশ। তার নামের পাশে ঠিকানা হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে মশাকলি।

 

মোঃ ওয়ারিশ উদ্দিন স্বাক্ষরিত ৫১ সদস্য বিশিষ্ট অন্য আরেকটি কমিটির কাগজ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ১০নং সুবিদপুর ইউনিয়ন বিএনপির প্রচার সম্পাদক পদে ১৩নং ক্রমিকে আছে তার নাম। পূর্বের মতই তার নামের পাশ ব্যবহার করা হয়েছে ঠিকানা মশাকলি।

 

কমিটির অনুমোদনকারী তৎকালিন যুবদলের সভাপতি মতিউর রহমান মতু’র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘ঘটনাটি সত্য! আমি ওই সময়ে নির্বাচিত সভাপতি ছিলাম। জয়কুমার দাশ ইউনিয়ন যুবদলের সহ-সভাপতি ছিলেন।

 

সুবিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলী ইসলাম জানান, জয়কুমার বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন এটা সত্য। কিন্তু আমাদের কিছুই করার নেই। আমাদের উপর চাপ সৃষ্টি করে তার নাম লেখানো হয়েছে।

 

বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইকবাল হোসেন খান জানান, আমি বিষয়টি শুনেছি। কিন্তু এখনো কোন কাগজ পাইনি। তবে বিষয়টি বর্তমানে জেলা পর্যায়ে আছে। জেলা কমিটিকে অবগত করার মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

এদিকে নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের স্থানীয় কয়েকজন ত্যাগী নেতা জানান, সুবিধাভোগী কিছু নামধারী আওয়ামী লীগ নেতারা নিজের পেট পুরতে জয়কুমারদের মত হাইব্রীডদের লালন করে করে আসছেন। যথাযথ সময়ে তাদের প্রতিরোধ না করলে জাতির সামনে ধংস অনিবার্য।

 

জয়কুমার দাশের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন , ‘আমি কখনোই বিএনপি রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলাম না। আমার জনপ্রিয়তা নষ্ট করার জন্য অপ-প্রচার চালানো হচ্ছে’।

Developed By The IT-Zone