ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৮ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বানিয়াচংয়ের নির্বাচন অফিসে টাকা ছাড়া কোনো কাজ হয়না : সেবাগ্রহীতাদের ভোগান্তি চরমে

রায়হান উদ্দিন সুমন
আগস্ট ১৮, ২০২২ ৮:৫১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বানিয়াচং উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সেবাগ্রহীতাদের ভোগান্তি দিন দিন বেড়েই চলেছে। রীতিমতো অঘোষিতভাবে দালাল নিয়োগ দিয়ে সেখানে সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে অফিসের কর্মচারীরা।

দালাল ছাড়া কেউ অফিসে সেবা নিতে গেলে শুরু হয় নানা টালবাহানা ও হয়রানি। চাহিদা মতো টাকা না দিলে হয়রানির যেন শেষ নেই। এককথায় টাকা ছাড়া কোনো কাজ হয়না এই অফিসে।

খোদ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ নির্বাচন কর্মকর্তার কাজে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

সরেজমিনে বুধবার (১৭আগস্ট) বেলা ১১টার দিকে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় ঘুরে দেখা যায়, নির্বাচন অফিসের সামনে ও ভেতরে সেবা গ্রহীতাদের ভিড়। নির্বাচন কর্মকর্তা ভিড় ঠেকাতে অফিসের ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে রেখেছে। বারান্দার দরজা সম্পুর্ণ বন্ধ। নির্বাচন কর্মকর্তা আরমান ভুইয়া অফিসে নেই।

অন্যদিকে ভিতরের দরজা রয়েছে খোলা। আইডি কার্ডে নানা সমস্যা নিয়ে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে সেবাগ্রহীতা এসেছেন। কিন্তু তারা এসে কাজ তো করাতে পারছেন ই না উল্টো শিকার হচ্ছেন হয়রানির। নিজেরা কাজ করাতে না পারলে অফিসের লোকদের মাধ্যমে কাজ করালে সেটা দ্রুত ই হয়ে যাচ্ছে।

অপরদিকে নির্বাচন কর্মকর্তার সাথে এলাকার বেশ কিছু মানুষের ভালো সম্পর্ক থাকায় কার্যত তাদের মাধ্যমে কাজ করাতে চাইলে সেটা নিমিষে ই হয়ে যায়। তবে দিতে হয় মোটা অংকের টাকা। এই অঘোষিত দালালদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেই মেলে কাজের রাস্তা।

বয়স কম হলেও দালালের মাধ্যমে সেটা ঠিক করে দেয়া হয়। এমনকি নতুন ভোটার হতে চাইলেও টাকা ছাড়া সেটা করা হয়না বলেও জানা যায়। উপজেলা সদরের তাজউদ্দিন নামের এক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, আমি আমার ছেলের আইডি কার্ড ঠিক করতে নির্বাচন অফিসে আসি।

নির্বাচন কর্মকর্তা শত শত সেবা গ্রহীতার কার্ড আটকে রেখে টাকা আদায় করতে হয়রানি করছে। হয়রানির কারণ জানতে চাইলে নির্বাচন কর্মকর্তা অফিসের লোকেরা আমার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে।

ছবি : নির্বাচন অফিসের প্রধান দরজা ,এটা সার্বক্ষনিক ই বন্ধ থাকে

শরীফখানী গ্রামের বাসিন্দা জনি মিয়া অভিযোগ করে বলেন, আমি বিদেশ যেতে দ্রুত আইডি কার্ড করতে অফিসে আসি। কিন্তু নির্বাচন কর্মকর্তা আমার সব কাগজ দেখে বলেন, আইডি কার্ড ঠিক করা যাবেনা সার্ভার সমস্যা। কবে ঠিক হবে বলা যাচ্ছেনা। তবে শুনেছি এর জন্য নাকি নির্বাচন অফিসারকে টাকা দিতে হয়। টাকা দিলেই কাজ হবে।

সদরের আবু হুরায়রা নামে এক যুবক নাম সংশোধনী করার জন্য গত ৩ তারিখ আবেদন জমা দিয়েছিলেন কিন্ত এখন পর্যন্ত কোন কিছুই হয়নি। অফিসে এসে নির্বাচন কর্মকর্তাকে পাননি তিনি । অথচ এটা নাকি মাত্র ২ মিনিটের কাজ।

বলাকীপুরের মনুসর আহমেদ জানান,ফিঙ্গার আর সাইন দেয়ার জন্য আমি এই অফিসে ১ সপ্তাহ যাবত আসা-যাওয়া করছি। কিন্তু আমি এসে নির্বাচন অফিসারকে একদিনও পায়নি। আমাকে আজ বলা হয়েছে অফিসে নাকি ফিঙ্গার নেয়ার মেশিন নাই।

বানিয়াচং নতুন বাজারের ব্যবসায়ী সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন জানান,চাকরির সুবাদে আমি সুনাগঞ্জে ছিলাম। বিগত রমজান মাসে ভোটার আইডি কার্ড স্থানান্তরের জন্য আবেদন করেছি নির্বাচন অফিসে। আবেদন করার পর এসএমএস দেয়ার কথা বলেছিল কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনো এসএমএস আসেনি। অফিসের যাওয়ার পর কর্মকর্তারা নানা অজুহাত দেখিয়ে শুধু তারিখ দিয়ে দেয়।

বিষয়টি নিয়ে সরেজমিনে গিয়ে ভুক্তভোগী সাজ্জাদ হোসেনের ফাইল কি অবস্থায় আছে সেটা জানতে চাইলে দ্রুত বের করে তাৎক্ষনিক অনলাইনে আপলোড করেছে অফিসের কম্পিউটার অপারেটার। এতো দিন কেন সেটা আপলোড করা হয়নি জানতে চাইলে অপারেটার জানান,কাজের ঝামেলায় কারণে করা হয়নি। তারপর অফিসেও লোকবল কম।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেম চৌধুরী ক্ষোভ প্রকাশ করে এই প্রতিনিধিকে জানান,নির্বাচন অফিসার ঠিক মতো অফিসে আসেন না। তাকে আমরা প্রশাসনের মাসিক সভায়ও আনতে ব্যর্থ হয়েছি। প্রতিদিন শত শত সেবা প্রত্যাশীরা তাদের নানা সমস্যা নিয়ে আসে কিন্তু এসে তাকে না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে। আমি এই বিষয়টা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। এভাবে তো একটা সরকারি অফিস চলতে পারে না।

অন্যদিকে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নিয়মিত অফিসে না আসারও অভিযোগ রয়েছে। সপ্তাহে ১ দিন বা ২দিন আসেন বলে একটি সুত্র জানায়। সপ্তাহে ৫ দিন ই নাকি তার ট্রেনিং থাকে। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রয়োজনে বক্তব্য নেয়ার জন্য গণমাধ্যমকর্মীদেরও কোন ফোন রিসিভ করেন নি তিনি।

গত বুধবার তার অফিসে গিয়ে নির্বাচন কর্মকর্তা আরমান ভুইয়াকে পাওয়া যায়নি। অফিসিয়ালি কোন ছুটি না নিয়েই তার ব্যক্তিগত কাজে তিনি শায়েস্তাগঞ্জে রয়েছেন বলে জানা যায়।

অনিয়ম ও হয়রানি বিষয়ে জানতে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আরমান ভুইয়ার সাথে তার ব্যবহৃত নাম্বারে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে একাধিক বার ফোন দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম জানান,বানিয়াচং উপজেলা নির্বাচন অফিসার আরমান ভুইয়া সপ্তাহে ৫ দিনই অফিস করেন না এই কথাটা ঠিক না। যতটুকু জানি কিছুদিন পূর্বে তার একটি অপারেশন হয়েছিল এইজন্য হয়তো অফিসে আসতে পারেন নি। আজকে (বুধবার) তো সে অফিসে নাই! যতটুকু জানতে পেরেছি অফিস টাইমে তিনি শায়েস্তাগঞ্জে রয়েছেন আপনি কি এই বিষয়ে অবগত ? এই প্রশ্নের জবাবে সাদেকুল ইসলাম জানান,অফিসিয়ালি তিনি কোন ছুটির আবেদন করেননি। ছুটি না নিয়ে হয়তো বা সেখানে গিয়েছেন। বিষয়টা আমি খোঁজ নিয়ে দেখবো।

তাছাড়া এই নির্বাচন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আপনি বলার আগে অনেক অভিযোগ আমার কানে আসছে। সেগুলোও খতিয়ে দেখা হবে। ইতিমধ্যে তার বিরুদ্ধে উঠা কিছু অভিযোগ আমাদের তদন্তনাধীন আছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদ্মাসন সিংহ দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান,তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠার পর আমি নিজে একদিন তার অফিসে গিয়েছি। কিন্তু সেখানে যাওয়া পর তাকে গিয়ে পাইনি। দেখলাম বারান্দার দরজা বন্ধ। ভিতরেরটা খোলা রয়েছে।

অসংখ্য মানুষ সেবা নেয়ার জন্য নির্বাচন কর্মকর্তার অপেক্ষা করছে। আর কোন সরকারি কর্মকর্তা যদি ব্যক্তিগত কাজে কোথায়ও যেতে চান তাহলে তার উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের কাছে ছুটির আবেদন করতে হবে। ছুটি ছাড়া কেউ কর্মস্থল ত্যাগ করতে পারবে না।

অভিযোগের বিষয়ে ইউএনও পদ্মাসন সিংহকে জানালে এই প্রতিনিধির উপস্থিতিতে তিনি তাৎক্ষনিক নির্বাচন অফিসার আরমান ভুইয়াকে ফোন দেন। তিনি কোথায় আছেন জানতে চাইলে আরমান ভুইয়া জানান,ব্যক্তিগত কাজে আমি শায়েস্তাগঞ্জে রয়েছি। অফিস টাইমে আপনি শায়েস্তাগঞ্জে কেন জানতে চাইলে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি আরমান ভুইয়া।

Developed By The IT-Zone