ঢাকামঙ্গলবার , ২৭ জুলাই ২০২১

বাংলাদেশের ফুটবলপ্রীতি ও রাতজাগা বাঙালী

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জুলাই ২৭, ২০২১ ৬:২১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

অঞ্জন কুমার রায় :  খেলায় নান্দনিকতা দর্শকদের আনন্দ দান করে। আর সেটা যদি ইউরোপের শৈল্পিক ফুটবল কিংবা ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার মধ্যকার খেলা হয় তাহলে তো কথাই নেই। দর্শকদের উত্তেজনা অনেকগুণ বেড়ে যায়। সদ্য সমাপ্ত কোপা আমেরিকার ফাইনালে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল দ্বৈরথে সেরকমই কিছু ইঙ্গিত বহন করে। রূপকথার ফাইনালে ব্রাজিলকে হারিয়ে আর্জেন্টিনা জয়ের নায়ক। আবেগ প্রবণ বাঙালী আবেগের বশবর্তী হয়ে প্রিয় দলকে সমর্থন করে।

তবে, বাঙালীর আর্জেন্টিনা কিংবা ব্রাজিল প্রীতি দেখে আমি মুগ্ধ না হয়ে পারি না। সেখানে যে শুধু আবেগ আছে তা নয়। সুন্দর বা শিল্পীত খেলার প্রতি একটা মোহ জন্মে। তাই প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম ধরে তারা ফুটবল খেলা উপভোগ করে আসছে। এর ব্যত্যয়ে আমি নই। আমিও রাত জেগে ফুটবল খেলা উপভোগ করি। কোন একটা প্রিয় দলকে সমর্থন দিয়ে যাই। তবে সে সমর্থন ক্ষণস্থায়ী। নিজ দেশের খেলা হলে প্রগাঢ় ভালবাসা জন্মাতো।

কিন্তু, আমাদের দেশের ফুটবল খেলায় উল্লেখ করার মতো অর্জন নেই কিংবা ফুটবল খেলার বড় র্টুণামেন্টও আয়োজন করা হয় না। তারপরও মাঝে মাঝে নিজ দেশের ফুটবল খেলা নিয়ে মেতে উঠি। ইচ্ছে হয়; দেশের লাল- সবুজ পতাকা গ্যালারিতে উঁচিয়ে ধরি! ফুটবলপ্রেমী সবাই মিলে উৎসাহ নিয়ে খেলা দেখি। বাংলাদেশ বাংলাদেশ বলে গ্যালারি মাতিয়ে রাখি।

 

 

 

 

 

 

ছবি : লেখক অঞ্জন কুমার রায়ের ফাইল ছবি

 

 

 

 

কিন্তু; প্রত্যাশা অনুযায়ী আমাদের ফুটবল এখনো কাঙ্ধিসঢ়;ক্ষত স্থান লাভ করতে পারেনি। কয়েক দশক আগে ভাল মানের ফুটবল খেলা উপহার দিলেও বাংলাদেশের ফুটবলে আজ মলিনতার ছাপ। ফুটবল খেলার মত অন্য কোন খেলা আজও বাঙালীর মনে জায়গা করে নিতে পারেনি। তাই এখনো গ্রাম-বাংলায় ফুটবল টুর্ণামেন্ট অনুষ্ঠিত হলে আশে-পাশে কয়েক গ্রামের লোকজন মিলে খেলা উপভোগ করে।

টুর্ণামেন্টে ছেলে-বুড়োদের উপস্থিতি খেলাকে আরো প্রাণবন্ত করে তুলে। অতীতে আমাদের ফুটবল খেলার বিচরণ দেশের বাইরেও ছিল। যেমন ছিল ঘরোয়া টুর্ণামেন্টের আয়োজন তেমনি ছিল ফুটবল খেলার ঐতিহ্য। খেলার ব্যাপ্তি গ্রামে-গঞ্জে সর্বত্র ছিল। ফলে, ফুটবলপ্রেমী বাঙালীদের মনে ঠাঁই করে নিয়েছিল ক্লাবের ফুটবল।

সময়ের সাথে সাথে আমরা ফুটবল অঙ্গনে পিছিয়ে পড়ছি। বিশ্বের বহুদেশ ফুটবলকে সুন্দর রূপায়ন দিতে পারলেও আমরা সেটা পারিনি। আমরা ক্রিকেট দুনিয়ায় পাঁচ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন দলকে হারাতে পারি। ক্রিকেট বিশ্বে সাকিবের মতো বিশ্বসেরা অল রাউন্ডার কিংবা মাশরাফির
মতো অসাধারণ নেতৃত্ব গুণাবলী সম্পন্ন একজন অধিনায়ক তৈরি করতে পারি! সে অপার সম্ভাবনাময় ক্রিকেট খেলুড়ে দল একদিনে তৈরি হয়নি।

বহু চেষ্টায় তা অর্জিত হয়েছে। আমরা ক্রিকেটে পারি, ফুটবলে পিছিয়ে পড়ি। তার বহুবিধ কারণ রয়েছে। বর্তমান প্রজন্ম খেলা-ধূলার মানদ-কে প্রাধান্য না দিয়ে ছেলে- মেয়েদেরকে লেখা-পড়ার প্রতি আগ্রহী করে তুলে।

ফলে, পেশাদারিত্ব ফুটবল খেলা এদেশে অনেকটা চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। যার ফলে আমাদের ফুটবলে দেখা দেয় যোগ্য নেতৃত্বের অভাব এবং ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তা। দেশে ক্লাব পর্যায়ে এক সময় ভাল খেলোয়াড় থাকলেও বর্তমান অবস্থা তেমনটি নয়। বর্তমানে ক্লাবগুলোতে মুল স্ট্রাইকারের ভূমিকায় বিদেশী খেলোয়াড়দের প্রাধান্য দেয়া হয়। ফলে, দেশের ভাল খেলোয়ারদের সুযোগ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

উদীয়মান খেলোযাড়রা খেলা থেকে ছিটকে পড়ছে। নিরন্তর চেষ্টা থাকলেও তা ব্যর্থতায় পর্যুবসিত হয়। বাংলাদেশের ফুটবলে রয়েছে ঐতিহ্য। আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ‘স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল’ ভারতের বিভিন্ন স্থানে প্রদর্শনী ফুটবল খেলে জনমত গঠনে সহায়তা করেছে। এর মাধ্যমে বিশ্বে স্বাধীনতার দাবী যৌক্তিক রূপ লাভ করে।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করার পর ১৯৭২ সালের ১৫ জুলাই বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) প্রতিষ্ঠত হয়। ১৯৭৩ সালে ২৬ জুলাই প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ থাইল্যা-ের বিপক্ষে অংশগ্রহণ করে। ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়েছিল। ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে ১৯৮৫ সালে প্রথমবার অংশ গ্রহণ করে। দক্ষিণ এশিয় গেমসে ১৯৯৫ সালে ভারতের কাছে হেরে প্রথম বারের মত রৌপ্য পদক অর্জন করে। ২০০৩ সালে সাফ চ্যাম্পিয়নশীপে মালদ্বীপকে হারিয়ে বাংলাদেশ জয়লাভ করে।

২০১৫ সালে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ফাইনালে মলেয়েশিয়ার বিপক্ষে খেলে। সে ম্যাচে ৩-২ গোলের ব্যবধানে বাংলাদেশ শিরোপ থেকে বঞ্চিত হয়। আন্তর্জাতিক ফুটবল অঙ্গনে উল্লেখ করার মতো তেমন কোন সফলতা পায়নি। কয়েক দশক আগেও যেখানে বাঙালীরা ক্লাবের ফুটবলে ভাল খেলা উপহার দিয়েছে সে ধারাবাহিকতা আজ নেই।

ফিফা বিশ্ব রাংকিয়ে ১৯৯৬ সালে ১১০ তম স্থানে অবস্থান করে। পরবর্তী সময়ে ২০১৮ সালে সর্বনিম্ন র‌্যাংকিং ১৯৭ তম। বৈশ্বিক ফুটবলের সাথে তুলনা করলে আমাদের দেশের র‌্যাংকিং ব্যবস্থা অনেক নিচে, বর্তমানে ১৮৪ তম। র‌্যাংকিংয়ের অবস্থান থেকে বুঝা যায়, বাংলাদেশের ফুটবল ভাল অবস্থানে নেই। যেটুকু ছিল সেটুকুও হারিয়ে গেছে। আগেকার মতো গ্রামের মাঝেও ফুটবল খেলার আমেজ চোখে পড়ে না। আমরা যারা গ্রামে বেড়ে উঠেছি জমির মাঠেও ফুটবল টুর্ণামেন্টের আয়োজন করেছি।

বর্তমানে গ্রামগুলোতেও আগের মতো তেমন ফুটবল প্রীতি ম্যাচ আয়োজন করা হয় না। বিশ্বকাপ ফুটবল শুরুর আবহে শহরাঞ্চলে দু’একটা খেলার আয়োজন করা হলেও পরবর্তী সময়ে ধারাবাহিকতা বজায় থাকে না। তার অন্যতম কারণ মাঠের স্বল্পতা। অথচ গ্রাম-গঞ্জে এখনো ফুটবলের জনপ্রিয়তার কমতি নেই। বর্তমানে করোনা মহামারির কারণে ফুটবল খেলা বিভিন্নভাবে বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে। অনেকদিন যাবৎ মাঠে ফুটবল গড়ায়নি। ক্লাবগুলো ইচ্ছা করলেই খেলার আয়োজন করতে পারছে না। করোনার কারণে নতুনভাবে সঙ্কটে পতিত হচ্ছে।

সব মিলিয়ে ফুটবল খেলার অবস্থান তেমন ভাল যাচ্ছে না। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ ফুটবল গত মৌসুমে কয়েক রাউ- খেলা চালিয়ে যাবার পর করোনার কারণে বন্ধ করে দিতে হয়। এ বছরও প্রথম পর্ব শেষে বন্ধ হয়ে যায়। যদিও আবার করোনার মধ্যে খেলা শুরু করা হয়। সবকিছু বিবেচনায় আমাদের ফুটবলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

খেলাধূলার জগতে উন্নতির জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে। এক্ষেত্রে এমন দক্ষ লোক প্রয়োজন যারা আমাদের ফুটবলকে সফলতার স্বপ্ন দেখাতে পারবে। তার জন্য বাফুফে (বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন)’কে সঠিকভাবে কাজ করতে হবে। খেলোয়াড়,
কোচ কিংবা ক্লাবেরও বিশেষ দায়িত্ব রয়েছে।

তবে বহুমুখী ফুটবল টুর্ণামেন্টের মাধ্যমে গ্রাম-গঞ্জ থেকে ভাল খেলোয়াড় বের করে নিয়ে আসতে হবে। আমাদের আশা, আমাদের দেশের ফুটবল আস্তে আস্তে অনন্য প্রত্যাশায় এগিয়ে যাবে। আমরা রাত জেগে খেলা উপভোগ করব, যে খেলা ঘিরে আমাদের আবেগ জড়িয়ে থাকবে। সে খেলায় স্বত:স্ফূর্ত ভালবাসার স্থান হবে বাংলাদেশ, শুধুই বাংলাদেশ!

Developed By The IT-Zone