ঢাকামঙ্গলবার , ২৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ফেসবুকে মহিলার অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট: মেয়র মিজান

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ২৮, ২০২০ ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

প্রেস বিজ্ঞপ্তি॥ করোনা সংক্রমন নিয়ে হবিগঞ্জ শহরবাসী যখন আতংকগ্রস্থ তখন বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাবারসামগ্রী পৌঁছে দিতে ব্যস্তসময় পার করছিলেন হবিগঞ্জের মেয়র মিজানুর রহমান মিজান। দেশের এই ক্রান্তিকালেও পুরনো জেদকে বাস্তবায়ন করতে একটি মহল নগ্নভাবে মেতে উঠেছে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে। ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম করার মত ঘটনা সাজিয়ে মেয়রকে কলংকিত করার মোক্ষম সময়টি নষ্ট করতে চাচ্ছে না তারা। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে সচেতন পৌরবাসী তাদের হীন মতলব বুঝে যাওযায় সকল ফন্দি ফিকির মাঠেই মারা গেছে।

গত ০৪ এপ্রিল পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডে ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ এনে সম্প্রতি এক বিতর্কিত নারীকে দিয়ে ভিডিও বক্তব্যের মাধ্যমে মেয়রকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করছেন।

ত্রাণ বিতরণকারীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত ০৪ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডে যান মেয়র মিজানুর রহমান মিজান। এসময় উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ সদর, লাখাই ও শায়েস্তগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব অ্যাডভোকেট মোঃ আবু জাহির ও রাজনগর এলাকার রাজধানী ডেকোরেটার্সের মালিক নাসির উদ্দিনসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। এসময় নিরাপদ সামাজিক দূরুত্ব নিশ্চিত করতে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার কয়েকজন পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করেন। এই ত্রাণ বিতরণের পূর্বেই ওয়ার্ডের ত্রাণ সহায়তা ভোগীদের তালিকা প্রস্তুত করেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর। এখানে কোন ব্যাক্তি বিশেষের হস্তক্ষেপ গ্রহণ করেননি মেয়র।

ওই দিনের ত্রাণ বিতরণের প্রায় ১৯ দিন পর এক মহিলার মিথ্যা ও বানোয়াট বক্তব্য ফেইসবুকে দিয়ে মেয়রকে ত্রাণ বিতরণে অনিয়মে অভিযুক্ত করা হয়। যেহেতু ভিডিওতে অভিযোগকারী মহিলা পৌরসভার কোন কাউন্সিলর কিংবা সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর না সেহেতু তিনি তার মনগড়া তালিকা প্রস্তুত করলেই মেয়র সেটা আমলে নিতে পারেন না।

এই ঘটনাকে মেয়র বিরোধী একটি কুচক্রী মহল মিথ্যা, বানোয়াট কল্পকাহিনীকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছে এবং তাদের অনুসারীরা সেই মিথ্যা কাহিনী রটিয়ে বেড়াচ্ছেন।

এ ব্যাপারে ওই দিন উপস্থিত রাজধানী ডেকোরেটার্সের মালিক নাসির উদ্দিন বলেন, ওই দিন ত্রাণ বিতরণের সময় মেয়র কারো সাথে কোনো খারাপ ব্যবহার করেননি। ওই মহিলা যা অভিযোগ করেছেন সব মিথ্যা। মূলত ওই মহিলা ও তার পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন ধরনের খারাপ কাজে লিপ্ত থাকে সবসময়। চুরির দায়ে তার পিতা তাদের সহ এলাকা থেকে বিতারিত হন। এরপর কামরাপুর, গরুরবাজার, আনোয়ারপুর এলাকায় বিভিন্ন সময় তারা বসবাস করে। কিন্তু তারা বিভিন্ন খারাপ কাজে লিপ্ত থাকায় কোনো এলাকায়ই তারা বেশিদিন থাকতে পারেনি। মূলত ওই মহিলার উদ্দেশ্য খারাপ তাই মেয়রকে বিতর্কিত করতে স্থানীয় একদল নব্য আওয়ামী লীগ নেতা এই নারীকে ব্যবহার করে মেয়রের দুর্নাম ছড়াতে চাচ্ছে।

তিনি বলেন, দীর্ঘ দিন পর হবিগঞ্জবাসী একজন যোগ্য মেয়র পেয়েছেন। এই করোনার সময়ও তিনি নিজের নিরাপত্তার কথা না ভেবে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাবার দিয়ে আসছেন। তার বিরুদ্ধে এ ধরনের মিথ্যাচার তাকে ভাল কাজ করতে নিরুৎসাহীত করবে। তাই স্থানীয় সচেতন মহলের উচিত এসব নব্য আওয়ামী লীগদের প্রতিহত করা।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মিজানুর রহমান মিজান বলেন, যথাযত নিয়মে আমি ৭ নং ওয়ার্ডে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছি। এসময় আমার সাথে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ সদর, লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির ও রাজনগর এলাকার রাজধানী ডেকোরেটার্সের মালিক নাসির উদ্দিনসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। ওই মহিলা যে অভিযোগ করেছেন সব মিথ্যা ও বানোয়াট। যদি তার অভিযোগ সত্য হয়ে থাকে তাহলে ওইখানে উপস্থিত অন্যান ব্যক্তিদের জিজ্ঞাস করলে সঠিক তথ্য পাওয়া যাবে।

মেয়র বলেন, ত্রাণ বিতরণের প্রায় ১৯ দিন পর ওই মহিলার বক্তব্য ফেসবুকে দিয়ে আমাকে ত্রাণ বিতরণে অনিয়মে অভিযুক্ত করা হচ্ছে। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও কাল্পনিক। প্রতিটি ওয়ার্ডের ত্রাণ সহায়তা ভোগীদের তালিকা প্রস্তুত করেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর, এখানে কোন ব্যাক্তি বিশেষের হস্তক্ষেপ আমি গ্রহণ করি না। যেহেতু ভিডিওতে অভিযোগকারী মহিলা পৌরসভার কোন কাউন্সিলর কিংবা সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর না সেহেতু তিনি তার মনগড়া তালিকা প্রস্তুত করবেন আর তা আমি একজন মেয়র হিসেবে আমলে নিবো তা হতে পারে না। পৌরসভার ত্রাণ বিতরণের জন্য তালিকা করার এখতিয়ার উনি কোথায় পেয়েছেন? আর ০৪ তারিখে যদি আমি উনার সাথে দুর্ব্যবহার করে থাকি তাহলে এতদিন কোথায় ছিলেন? যেখানে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, ট্যাগ অফিসার ও পুলিশ সদস্য উপস্থিত থাকে সেখানে আদৌ কি এমন হতে পারে কি?

মেয়র মিজানুর রহমান মিজান বলেন, কোনো কুচক্রী মহলের এই মহিলাকে ব্যবহার করে মিথ্যা, বানোয়াট কাহিনী রটাচ্ছেন। হবিগঞ্জ পৌরবাসীর প্রতি আহবান, কুচক্রী মহলের অসৎ উদ্দ্যেশ্যে প্রচারিত কোনও তথ্য বা ভিডিওতে বিভ্রান্ত না হয়ে সত্য ও ন্যায়ের সাথে থাকুন। সত্য ও ন্যায় যাচাই করুন। আমি সব সময় আপনাদের পাশে আছি এবং থাকবো।

Developed By The IT-Zone