ঢাকামঙ্গলবার , ২৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ: পাক্ষিক সংবাদ বিশ্লেষণ

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ২৮, ২০২০ ১১:৫৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আব্দুল হাই চৌধুরী সানু।। ”বাক –স্বাধীনতার পক্ষে, নিরপেক্ষ সংবাদপত্র” স্লোগান নিয়ে গত ১৪এপ্রিল যাত্রা শুরু করেছে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ। পত্রিকার প্রথম সংখ্যায় পত্রিকার নবাগত সম্পাদক সম্পর্কে কিছু মন্তব্য/মতামত ও নতুন এই পত্রিকাটির কাছে প্রত্যাশা সংক্রান্ত একটি লেখা লিখেছিলাম। লেখাটি ছাপা হবে কিনা সেই অনিশ্চয়তা থাকলেও দেখতে পেলাম সম্পাদক ১ম সংখ্যার লীড আইটেমেই লেখাটি ছাপিয়ে দিয়েছেন। বিষয়টা কেমন যেন ব্যাতিক্রমীই মনে হয়েছিল। গতকাল পত্রিকার ১৫ তম সংখ্যাটি ছাপা হলো। এই পনের দিনে প্রত্যাশার প্রাপ্তি কতটুকু হলো তা পর্যালোচনার জন্যই এ লেখার অবতারনা।

ছবিঃ আব্দুল হাই চৌধুরী সানু এর ফাইল ছবি

মূলতঃ স্থানীয় সংবাদপত্রে পাঠকের চাহিদার জায়গাগুলি হলো উন্নয়ন সংবাদ, মানুষের জীবন জীবিকা, পরিবেশ, সংস্কৃতি, সামাজিক অসংগতি ও সর্বোপরি স্থানীয় রাজনীতির গতি প্রকৃতি এবং গুরুত্বপূর্ন সংবাদের ফলোআপ সম্পর্কে জানা। এ ছাড়াও বিভিন্ন পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি, সরকারী কর্মকর্তা ও সুশীল সমাজের সাক্ষাতকার এবং নানা বিষয়ভিত্তিক প্রবন্ধের প্রতিও সচেতন পাঠক মহলের আগ্রহ থাকে। তাছাড়া বর্তমান সমাজ ব্যবস্থায় চারিদিকে যখন নেতিবাচক সংবাদের ছড়াছডি সেখানে আমাদের চারপাশের অনেক ইতিবাচক সংবাদ ও পাঠক মনে সুবাতাস বইয়ে দিতে পারে।

সকালের সূর্য দেখে যেমন দিনটা কেমন যাবে তা বুঝা যায়, তেমনি পনের দিন অতিবাহিত হওয়া পত্রিকাটিও কোন দিকে এগুচ্ছে বা তার গতি প্রকৃতি কি তা অনুমান করা বোধহয় কোন সচেতন পাঠকের জন্যই তেমন কঠিন হবে না। তাই গত পনের দিনে পত্রিকাটিতে প্রকাশিত সংবাদগুলো বিষয়ভিত্তিক ভাবে একটু পর্যালোচনা করে দেখা যেতে পারে।

উন্নয়নমূলক সংবাদঃ স্থানীয় পত্রিকায় স্থানীয় উন্নয়নমূলক সংবাদগুলি প্রকাশ করা খুরই প্রয়োজন। এতে অনেক উপকার আছে। এর ফলে মানুষ কাজের বর্তমান অবস্থা,গুনগত মান সম্পর্কে জানতে পারে এবং অন্যদিকে উন্নয়ন কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের জন্য একটা জবাবদিহীতার জায়গা তৈরী হয়, উন্নয়ন কাজে দুর্নিতির মাত্রাটা কমে আসে। আবার এ ধরনের সংবাদের নিয়মিত ফলোআপ থাকা প্রয়োজন। অনেক সময় দপ্তর গুলির এ ধরনের খবর ইচ্চাকৃত এড়িয়ে যাওয়ার একটা মানষিকতা থাকে। তাই ফলোআপ নিউজ হলে বিষয়টি এডানোর আর সুযোগ থাকে না। যেমন : পত্রিকার ১৬ এপ্রিল ৩য় সংখ্যার শেষ পাতায় ”আজমীরিগঞ্জে কালভার্ট যেন মরন ফাঁদ -সংস্কারের দাবী জানিয়েছে এলাকাবাসী” সংবাদটি খুবই তাৎপর্যপূর্ন। কিন্তু সংবাদটির দূর্বলতা হচ্ছে এখানে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কোন মতামত নেয়া হয়নি। একই ভাবে গত ২৬ এপ্রিল ১৩ম সংখ্যার শেষ পাতায় বানিয়াচং এ ঝুকিপূর্ন ব্রিজ মেরামতের দাবী এলাকাবাসীর ও আজমিরিগঞ্জের রাস্তা মেরমতের দাবী কৃষকদের সংক্রান্ত প্রতিবেদনে ও গত ২৭ এপ্রিল ১ম বর্ষ ১৪ তম সংখ্যায় ”আজও নির্মান হয়নি রবিউল সেতু”র প্রতিবেদনেও কর্তৃপক্ষের কোন মতামত নেয়া হয়নি। এ ধরনের প্রতিবেদনে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মতামত থাকা সমীচিন। উন্নয়নমূলক সংবাদ পরিবেশনের সময় এ সংক্রান্ত সফলতার গল্পগুলিও তুলে আনা দরকার।

স্থানীয় রাজনীতির গতি প্রকৃতি: স্থানীয় রাজনীতি নিয়ে শুরু থেকেই সরব দেখা যাচ্ছে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকাকে। স্থানীয় রাজনীতির গতি প্রকৃতি জানা সচেতন পাঠক মহলের একটি চাহিদাও থাকে। গত ২২ শে এপ্রিল ১ম বর্ষ ৯ম সংখ্যার শেষের পাতায় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির এগার মাস বাড়ীভাড়া না দেওয়া সংক্রান্ত সংবাদ এবং তদপরবর্তী ফলোআপ সহ বিষয়টি আপোস নিষ্পত্তি পর্যন্ত প্রদত্ত সংবাদটি নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ন ও সাহসী রাজনৈতিক সংবাদ। গত ১৮ শে এপ্রিল ১ম বর্ষ ৫ম সংখ্যার যুদ্ধপরাধীদের রাজনৈতিক আশ্রয় প্রশ্রয় সংক্রান্ত খবরটিও সচেতন পাঠক মহলের দৃষ্টি আকর্ষন করেছে নিঃসন্দেহে। এ সংক্রান্ত পরবর্তী কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতাদের মন্তব্য সহ প্রতিবেদন এ বিষয়টিকে সমৃদ্ধ করেছে। স্বাভাবিক ভাবেই এ সংক্রান্ত ফলোআপ নিউজের জন্য পাঠক সমাজের আগ্রহ থাকবে। তবে এ ধরনের নিউজের শিরোনামের ক্ষেত্রে আরও সচেতন হতে হবে। শিরোনাম যদি আক্রমনাত্মক হয় তাহলে তা পত্রিকার নিরক্ষেতাকে প্রশ্লবিদ্ধ করে। যেমন ঃ ১৬ শে এপ্রিল ১ম বর্ষ ৩ম সংখ্যায় সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা সৈয়দ কামরুলের ফেইজবুক মতামতের উপর ভিত্তিকরে করা সংবাদটির বিষয় বস্তুর সাথে শিরোনামটি অতিরঞ্জিত মনে হয়েছে। আর একটা বিষয় লক্ষনীয় যে, রাজনৈতিক প্রতিবেদনের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র আওয়ামীলীগকে টার্গেট করা হচ্ছে, অন্যান্য রাজনৈতিক দলের কোন প্রতিবেদন পাওয়া যাচ্ছে না, যদি অন্যান্য রাজনৈতিক দলের কার্যক্রমে স্থবিরতা থাকে তাহলে সে বিষয়টির প্রতিও পাঠক মহলের আগ্রহ থাকে। তাই ভবিষ্যতে এ বিষয়টি নজর দেয়া উচিত বলে মনে হয়।

মানুষের জীবন জীবিকা সংক্রান্ত সংবাদঃ ১৫ই এপ্রিল ১ম বর্ষ ২ম সংখ্যার শেষের পাতায় অধুনিকতার ছুয়ায় হারিয়ে গেছে করাতি সম্প্রদায়ের পেশা। এই প্রতিবেদনটি খুবই ভাল একটি প্রতিবেদন হয়েছে। এ ছাড়াও বিভিন্ন সংখ্যায় হাওরে বোরো ধান কাঠার প্রতিবেদন গুলির মাধ্যমে পাঠক বরো ধান কাটার বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। গত ২৭ তারিখ ১ম বর্ষ ১৪ তম সংখ্যায় ”মাধবপুরে কৃষকের ক্ষেতে ধান কাটছেন স্কুল শিক্ষিকা’ নামক প্রতিবেদনটি খুবই উৎসাহব্যাঞ্জক। তবে উক্ত প্রতিবেদনের ছবিটা আরও গুনগতমান সম্পন্ন হতে পারতো। প্রসংগক্রমে পত্রিকায় প্রকাশিত সকল ছবি গুলো মনে হয় মোবাইলে ধারনকৃত। যে কারনে ছবির মান ও ছবির বক্তব্য অনেক সময় অর্থবহ হয়না বলে প্রতিয়মান হচেছ। এ বিষয়টি নজর দেয়া দরকার।

পরিবেশ সংক্রান্ত সংবাদ : ১ম বর্ষ ১১ তম সংখ্যায় ২৮ এপ্রিল সংখ্যায় নবীগঞ্জের বিজনা নদী থেকে কুচক্রী মহলের বালি উত্তোলন সংক্রান্ত প্রতেিবদনটি পরিবেশ সুরক্ষার কথা বলে। একই ভাবে ১৬ই এপ্রিল সংখ্যায় ড্রেজারের মাধ্যমে বালি উত্তোলন সংক্রান্ত প্রতিবেদন ও পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের ব্যবস্থা গ্রহন সংক্রান্ত ফলোআপ প্রতিবেদনটিও প্রসংসনীয়। এছাড়াও গত ১ ম বর্ষ ১৪ তম সংখ্যায় ২৭ এপ্রিল করোনা সংক্রামনে প্রশাসনের কাছে কিছু দারী তুলে ধরেছে বাপা। এখানে উল্লেখ্য যে, হবিগঞ্জের পরিবেশ সুরক্ষার বিষয়ে বাপা হবিগঞ্জ খুরই গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা পালন করছে। খোয়াই নদী পুনরুদ্ধার সহ বিভিন্ন বিষয়ে হবিগঞ্জ বাপা অনেক সচেষ্ট। বাপা যেহেতু একটি সিভিল সোসাইটি অর্গনাইজেশন তাই পত্রিকার পক্ষ থেকে পরিবেশ সংক্রান্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে বাপার সহযোগীতা নেয়া যেতে পারে। আর পরিবেশ সংক্রান্ত ভাল ভাল প্রতিবেদন প্রকাশ করে মানুষকে পরিবেশ সম্পর্কে সচেতন করা এখন একটি সময়ের দাবী। কারন হবিগঞ্জের মরা খোয়াই নদীর পরিবেশও কর্তমান বিশ^ায়নের এ যুগে বৈষিক উঞ্চতা নিরসনে পজেটিভ ভুমিকা রাখতে পারে।

সংস্কৃতি সংক্রান্ত সংবাদ : সাংস্কৃতিক অংগনে হবিগঞ্জ অনেক সমৃদ্ধ। অনেক সাংস্কৃতিক সংগঠন জাতীয় এবং আন্তঃর্জাতিক পর্যায়ে হবিগঞ্জের জন্য সুনাম বয়ে এনেছে। হবিগঞ্জের অনেক সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব জাতীয় ভারেও পরিচিত। আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় বিগত পনের দিনে হবিগঞ্জের সাংস্কৃতি নিয়ে কোন বিশ্লেষনধমী প্রতিবেদন চোখে পরেনি। বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নজর দেয়া প্রয়োজন ছিল। আশা করি ভবিষ্যতে এ বিষয়টি কর্তৃপক্ষ বিশেষ নজর দিবেন। সংস্কৃতি যেহেতু মানুষের মনন তৈরীতে সবচেয়ে বেশী ভুমিকা রাখে সেহেতু জেলার সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডকে উৎসাহিত করে আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা একটি গুরুদায়িত্ব পালন করতে পারে।

শিক্ষা সংক্রান্ত সংবাদ : ১৪ই এপ্রিল ১ম বর্ষ ১ম সংখ্যার ১ম পাতায় লাখাইয়ে শিক্ষা প্রতিষ্টানের টিন আত্মসাতের চেষ্টা করছেন প্রধান শিক্ষক। ২৭ই এপ্রিল ১ম বর্ষ ১৫তম সংখ্যার শেষের পাতায় ”হবিগঞ্জের কিন্ডার গার্টেন স্কুলের শিক্ষকদের মানবেতর জীবন’ বিযয়ক সংবাদগুলো কেমন যেন সংবাদ হয়ে উঠেনি। এখানে স্বাভাবিকভাবেই আরও বিশ্লেষন দেয়া যেতো। আর চুনারুঘাটের কিন্ডারগার্টেনের সংবাদের শিরোনামে হবিগঞ্জ জেলার সকল কিন্ডারগর্টেনের সাথে জড়ানো হয়েছে। এতে করে সংবাদটি অসম্পূর্ন মনে হয়েছে। এ বিষয়গুলো আরও নজর দেয়া দরকার। শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। তাই জেলার শিক্ষার প্রকৃত চেহারা নিয়ে বিশ্লেষনধর্মী প্রতিবেদন প্রকাশ করলে হবিগঞ্জবাসী উপকৃত হবে। এ সংক্রান্ত বিষয়ে হবিগঞ্জর নবীন ও প্রবীন শিক্ষাবিদদের সাথে পরামর্শ করা যেতে পারে।

সামাজিক অসংগতি : ১৪ই এপ্রিল ১ম বর্ষ ১ম সংখ্যার শেষের পাতায় একজন ইউপি চেয়ারম্যান এর ত্রানের মালামাল আত্মসাৎ ও একই দিনে বানিয়াচং উপজেলার একজন ইউনিয়ন পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতার অপকর্মের চিত্র ও পরের দিন ফলোআপ হিসাবে লীড নিউজ এবং তার ব্যাপারে জেলা সাধারন সম্পাদকের মতামত সহ প্রতিবেদনটি খুবই প্রসংশনীয়। এছাড়াও১৫ই এপ্রিল ১ম বর্ষ ২ম সংখ্যার শেষের পাতায় করোনা আতংকের মাঝেও বানিয়াচং এ জুয়ার আসর সংক্রান্ত সংবাদ,২০ শে এপ্রিল ১ম বর্ষ ৭ম সংখ্যার লীড নিউজে বাহুবলে দুই ভাইয়ের সন্ত্রানী কর্মকন্ডের লীড নিউজটিও ভাল হয়েছে। তবে দুইভাইয়ের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের এ নিউজটির কোন ফলোআপ দেখা যাচ্ছে না। এ ধরনের সামাজিক অসংগতিপূর্ন সংবাদ যত প্রচার হবে ততই এ ধরনের অপকর্মকারীরা ভীত থাকবে যা হবিগঞ্জের আইন শৃংখলা পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রনে রাখা এবং জেলাকে দূর্নীতিমুক্ত করতে খুবই সহায়ক হবে। দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা এ ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা পালন করতে পারে।

সমসাময়িক প্রসঙ্গঃ  ১৪ই এপ্রিল ১ম বর্ষ ১ম সংখ্যার প্রথম পাতায় হবিগঞ্জে বাড়ছে করোনা সংক্রামনের ঝুকি ও তৎবর্তী পরিসংখ্যানগত তথ্য প্রদান, করোনার ত্রান বিতরন বিষয়ে সাংবাদিক প্রদীপ দাস সাগরের ধারাবাহিক মানবিকতা ও অমানবিকতার সত্যকথন বিষয়ক সমসাময়িক সংবাদগুলি পাঠকের তথ্য চাহিদা মেটাতে সাহায্য করবে। এ ছাড়াও ১ম বর্ষ ১৩ তম সংখ্যা ২৬ এপ্রিল – আতংকিত হবিগঞ্জ বাসী, করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪৮, মৃত ১ সংক্রান্ত নিউজটি ”লীড নিউজ” না করলে ভাল হতো। কারন এ ধরনের সত্য সংবাদ ও অনেক সময় আতংক ছড়াতে সাহায্য করে। তাই লীড নিউজ করার ক্ষেত্রে খুব চিন্তা ভাবনা করা দরকার।

সাক্ষাতকারঃ  পত্রিকার দুটি সংখ্যায় পৈল ইউপি চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়রের দুটি সাক্ষাতকার ছাপানো হয়েছে। এ ধরনের স্বাক্ষাতকার তাৎপর্যপূর্ন যা সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তির জবাবদিহীতা নিশ্চিত করে। কিন্তু দুটি স্বাক্ষাতকার পড়ে মনে হয়েছে যে, স্বাক্ষাতকার গ্রহনকরী এ সংক্রান্ত বিষয়ে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে প্রশ্ন করেননি। ফলে দুটি স্বাক্ষাৎকারই পাঠক মহলের কাছে সুখপাট্য হয়ে উঠেনি বলে মনে হয়েছে। তাই এ ধরনের সাক্ষাতকার গ্রহনের পূর্বে স্বাক্ষাতকার গ্রহনকারীকে প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করে পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে স্বাক্ষাৎকার গ্রহন করা উঠিত।

নিবন্ধঃ  ২৪ এপ্রিল ১ম বর্ষ ১১তম সংখ্যায় কবির কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধক্ষ্য জালাল উদ্দিন শাওনের ”ভয়ংকর মহামারী প্লেগ বনাম করোনা ভাইরাস- স্থরিব অর্থনীতি” সংক্রান্ত নিবন্ধটি নানা কারনে গুরুত্বপূর্ন। প্রথমত বিষয়টি খুবই সময়উপযোগী ও চমৎকার বিশ্লেষনধর্মী একটি লিখা। দ্ধিতীয়ত ঃ লেখক শহরের একটি পরিচিত কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ। স্থানীয় পত্রিকায় এ ধরনের স্থানীয় পরিচিত সুশীল প্রতিনিধিদের লেখা ছাপানো হলে তা হবিগঞ্জের জন্য খুবই উপকারী বিষয় হবে। এ প্রক্রিয়ায় ধীরে ধীরে হবিগঞ্জে একটা বু্িদ্ধভিত্তিক শ্রেনী তৈরী হবে যারা আন্তঃর্জাতিক, জাতীয় প্রেক্ষাপটের সাথে মিলিয়ে স্থানীয় বিভিন্ন বিষযে বিভিন্ন বিশ্লেষন প্রদান করতে সক্ষম হবেন। এতে করে বুদ্ধিভিক্তিক চর্চার মাধ্যমে হবিগঞ্জ অনেক উপকৃত হতে পারবে। বিষয়টি পত্রিকা কর্তৃপক্ষ বিবেচনা করে দেখতে পারেন। আর নিবন্ধ ছাপানোর জন্য দ্ধিতীয় পাতার একটা অংশ বরাদ্ধ রাখা যেতে পারে।

হবিগঞ্জের স্থানীয় সংবাদপত্রের ইতিহাস তিন দশকের কম নয়। ইতোমধ্যে প্রকাশিত বিভিন্ন স্থানীয় পত্রিকা জেলার সাংবাদিকতার প্রসারের ক্ষেত্র তৈরীতে অনেক গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা পালন করেছে। কিন্তু দীর্ঘদিন যাবৎ এ পত্রিকাগুলো প্রযুক্তিগত দিকে, সংবাদ উপস্থাপনের ক্ষেত্রে, নীতি নৈতিকতার দিক দিয়ে কেমন যেন নতুনত্ব দিয়ে পাঠক মহলকে আকৃষ্ট করতে পারছে না প্রতিয়মান হচ্ছে। দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এ বিষয়টিতে কতটুকু সফল হতে পারবে তা হয়তো সময় বলে দিবে।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার উদ্ধোধনী সংখ্যায় অনেক প্রত্যাশা ও সংশয় এর কথা বলেছিলাম। পত্রিকা প্রকাশের মাত্র এই পনের দিনে প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির হিসাব মিলানোটা ঠিক হবে না বলেই মনে হচ্ছে। অদ্যকার লেখায় প্রত্যাশার বিষয়গুলো সুনিদৃষ্ট ভাবে উপস্থাপন করে মূলতঃ ভবিষ্যতে মূল্যায়নের মাপকাঠির কিছু নির্দেশক নির্ধারন করার প্রয়াস চালানো হয়েছে। আজকের আলোচনার উপর ভিত্তি করে হয়তো ভবিষ্যতে প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির হিসাবটা আরও সুচারুরুপে সম্পন্ন করা যাবে।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের জন্য শুভকামনা।

Developed By The IT-Zone