ঢাকাশুক্রবার , ২৪ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

প্রতিবন্ধী ও বয়স্ক ভাতা তুলতে ‘জনপ্রতি ১’শ টাকা চাঁদা’ আদায়ের ‘অভিযোগ’

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ২৪, ২০২০ ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার॥ চুনারুঘাট উপজেলার সুন্দরপুর বাজার কৃষি ব্যাংকে প্রতিবন্ধী ও বয়স্ক ভাতা প্রদান করতে জন প্রতি ১’শ টাকা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। মাসের নির্ধারিত তারিখে ভাতা নিতে এসে লাইনে ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়েও কোন লাভ হয় না বরং জনপ্রতি ১’শ টাকা দিলেই কাজ হয়ে যায় তড়িৎ গতিতে। যদি কেউ টাকা দিতে না চায় তাহলে শুনতে হয় নানান কথা-বার্তা। আর কোন ভাবে যদি লাইনে দাঁড়িয়ে ভাতা পেয়েও যান তাহলে আবার সেখান থেকে ১’শ টাকা কর্তন করে রাখা হয়। তবে কে টাকার ভাগ নেন আর কে-ই-বা টাকা আদায় করেন এ নিয়ে বিস্তারিত জানতে গিয়েই দৈনিক আমার হবিগঞ্জ প্রতিবেদক পেয়ে যান চাঞ্চল্যকর তথ্য।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের প্রতিবেদকের সাথে আলাপ হয় কয়েকজন ভুক্তভোগীর। এদের মধ্যে রৌশন আলী জানান, আমি আমার বোনসহ আমার প্রতিবন্ধী ভাগ্নেকে নিয়ে আসি। তখন আমার কাছে ব্যাংকের একজন কর্মচারী আসেন। তিনি তাড়াতাড়ি ভাতা দেয়ার বিনিময়ে ১০০ টাকা দাবি করেন । পরবর্তীতে আমি বিকাল চার’টার দিকে নগদ ভাতা হাতে পাই। এখান থেকে ১০০ টাকা কর্তন করা হয়।

মিরাশি গ্রামের আড়াই মিয়া এই বলে তিনি অভিযোগ করেন, আমি গত মঙ্গলবার বয়স্ক ভাতার টাকা নিতে আসি। সকাল ১১ টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অপেক্ষা করার পর টাকা না পেয়ে বাড়ি যাই। কিন্তু যারা টাকা দিয়েছে তারা ঠিকই ভাতা পেয়েছে ।‘গোবিন্দ’ নামে একজন পিয়ন ১০০ টাকার বিনিময়ে তাড়াতাড়ি পাইয়ে দেয়।

অপর ভুক্তভোগী মীর হোসেন জানান, গত কিস্তিতে আমি যখন টাকা তুলি তখন আমার মোট ১৫০০ টাকা থেকে ১০০ টাকা কর্তন করা হয়। ব্যাংকের একজন কর্মচারী গোবিন্দ’র মাধ্যমে সেই টাকা আমি ম্যানেজারের কাছে পৌছাই।

খুদেজা বেগম কান্না জড়িত কণ্ঠে আমাদের প্রতিবেদককে জানান, আমি গত মঙ্গলবার সকালে আসার পর থেকে আমি বসে আছি। টাকা দিতে না পারায় সেদিনও টাকা পাইনি। কিন্তু আমার আশেপাশের লোকেরা টাকা দেওয়ার শর্তে রাজি হয়ে খুব দ্রুত টাকা পেয়ে বাড়ি ফিরে।

এ ব্যাপারে অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে সুন্দরপুর বাজার শাখার ম্যানেজার মোঃ মহসীনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি ও জেনেছি আমাদের এক সিকুরিটি গার্ড গোবিন্দ সুবিধাভোগীদের কাছ থেকে টাকা নেয়। বিষয়টি আমি জানার পর আমার নির্দেশে সে আবার সবার টাকা ফেরত দিয়েছে। গোবিন্দ আমাদের কোন কর্মচারী নয়, সে ‘ফিমা’ নামে একটি সিকিউরিটি কোম্পানীর লোক। আমরা তাকে শাস্তি দেবার কোন এখতিয়ার নেই। তার ব্যাপারে আমরা অফিসিয়ালী সিকিউরিটি কোম্পানীকে চিঠি দিবো।

যখন ম্যানেজার মহসীনকে জিজ্ঞাসা করা হয় যে, আমরা জেনেছি গোবিন্দ টাকা নিয়ে দিন শেষে আপনার কাছেই সব বুঝিয়ে দেয়, এই ব্যাপারে আপনার বক্তব্য কি? তিনি সাথে সাথেই সে অভিযোগ অস্বীকার করেন এবং গোবিন্দকে ফোনে ধরিয়ে দেন।

ফোনে গোবিন্দ জানায়, অনেকেই খুশি হয়ে টাকা দেয়। আমি জোর করে টাকা নেই না।

যখন গোবিন্দকে বলা হয়, আপনার ম্যানেজার তো বলেছেন আপনি যে টাকা নিয়েছিলেন সেগুলো ফেরত দিয়েছেন। খুশি হয়ে দিলে ফেরত দিয়েছেন কেন? আর আমাদের কাছে তথ্য আছে এখনো অনেকেই টাকা ফেরত পায় নাই।

এই পর্যায়ে ম্যানেজার গোবিন্দকে নির্দেশ দেন যে যারা যারা এখনো টাকা ফেরত পায় নাই সেগুলো অতিসত্বর সুবিধাভোগীদের খুঁজে ফিরিয়ে দিতে।

সামগ্রিক বিষয় অবহিত করতে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ আলাপ করে চুনারাঘাটের উপজেলা নির্বাহী অফিসার সত্যজিত রায় দাশের সাথে। তিনি জানান, বিষয়টি আমি জেনেছি এবং উপজেলা সমাজসেবা অফিসার বারীন্দ্র চন্দ্র রায়’কে তদন্তের জন্য নির্দেশ দিয়েছি। তদন্ত শেষে যদি অভিযোগ প্রমাণিত হয় তাহলে সর্বোচ্চ শাস্তির জন্য আমি যথাযথ কর্তৃপক্ষকে সুপারিশ করবো।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার বারীন্দ্র চন্দ্র রায় এর সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, হ্যাঁ বিষয়টি ইউএনও স্যার আমাকে জানিয়েছেন। আমি অন দ্যা স্পটে ভিজিট করে সরাসরি ব্যবস্থা নিবো।

Developed By The IT-Zone