ঢাকাবুধবার , ১৫ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পুলিশের সঙ্গে লুকোচুরি খেলছে শাহজিবাজারবাসী : অন্যদিকে ত্রাণ পায়নি অধিকাংশ মানুষ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ১৫, ২০২০ ১২:৪২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এস এ হাসান, মাধবপুর প্রতিনিধি:   বর্তমানে বিশে^র সকল দেশের মানুষ নভেল করোনা ভাইরাসে আতংকিত। এই কারণে বিশে^র অধিকাংশ দেশের রাষ্ট্রপ্রধানগণ তাদের দেশে লক ডাউনের ঘোষণা দিয়েছেন। আমাদের দেশেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৬শে মার্চ থেকে লক ডাউনের ঘোষণা দেন। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে লক ডাউন আইন মেনে চললেও গ্রামাঞ্চলে তার ছিটেফোঁটাও নেই। উল্লেখ্য, ঔষধপত্রের দোকানপাট সবসময়ের জন্য এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যদ্রব্য ও কাঁচাবাজারের দোকান নির্দিষ্ট সময়ের জন্য খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন মাধবপুর থানা কর্মকর্তা। কিন্তু অনেক দোকানদার যাদেরকে দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দিলেও তারা দোকানপাট বন্ধ রাখছে না। কেউ খোলামেলা খাবার বিক্রি করছে, কেউ দোকানের সাটার বা দরজা অর্ধেক খোলা রেখে জিনিসপত্র বিক্রি করছে। কেউবা পেছনের দরজা দিয়ে বেচাকেনা করছে।

ছবি : শাহজিবাজারে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে দোকান খোলা রাখছে ব্যবসায়ী

পুলিশ বা সামরিক বাহিনীর আসার খবর পাওয়ামাত্র দোকানপাট বন্ধ রাখে। তারা চলে যাওয়ার পর দোকানদাররা আগের মতই বেচাকেনা শুরু করেন। কয়েক দফায় পুলিশবাহিনী ও অন্যান্য সামরিক বাহিনী আসলেও কোনো কাজ হচ্ছে না। অনেক দোকানদারকে আর্থিক জরিমানা করা হলেও তারা দোকান বন্ধ করছে না। এ যেন চোর পুলিশের লুকোচুরি খেলা। এলাকার অনেক সচেতন নাগরিকদের সাথে কথা বললে তারা জানায়, “লক ডাউন আইনের ব্যাপারে প্রসাশনকে আরো সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। এর সাথে সরকারকে আরো কঠোর আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ হবে।” অন্যদিকে শাহজিাবাজার খেলার মাঠে এলাকার কিশোর ও যুবক বয়সী ছেলেরা নিয়মিত খেলাধুলা করে চলছে। তাছাড়া জুয়াড়িরা জুয়া খেলায় মেতে উঠেছে। রাতের বেলা বাড়ছে নেশাখোরদের আনাগোনা। ফতেহগাজী মাজার এলাকার আশেপাশে নিযমিত বসছে মদ গাজার আসর। এতে কোনো মাথাব্যথা নেই এলাকার জনপ্রতিনিধিদের। তারা দেখেও না দেখার মত আচরণ করছে।

ছবি : শাহজিবাজারে লকডাউনের মধ্যে ও দোকান খোলা রেখে ব্যবসা করে যাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা

এদিকে সারাদেশে সরকারিভাবে ত্রাণ বিতরণ করা হলেও শাহজিবাজারে অধিকাংশ মানুষ এখনও ত্রাণ পায়নি। নাম জানাতে নারাজ একজন বলেছেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে ত্রাণ পাঠিয়েছেন। আমরা এখনও এর কিছুই পাই নি। ফলে কোনো রকম বেঁচে আছি।” আরেকজন বলছেন, “দেশে বর্তমানে করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতিতে আমরা মধ্যবিত্তরা সবচেয় বেশি কষ্টে আছি। কারণ লাজ-লজ্জ্বায় কারো কাছে কিছু চাইতেও পারছি না, কেউ আমাদের খোঁজ খবরও নিচ্ছে না। ফলে আমরা খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছি। আবার কারো কাছে কিছু চাইতে গেলেও ছবি না তুলে কিছু দিতে চায় না।”

Developed By The IT-Zone