ঢাকারবিবার , ১ ডিসেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পাসপোর্ট জব্দ, গাড়ি জব্দঃ অতপর প্রবাসী গাজীর সংবাদ সম্মেলন

অনলাইন এডিটর
ডিসেম্বর ১, ২০১৯ ২:১২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ  লন্ডন প্রবাসী গাজীউর রহমানের শনির দশা যেন পিছ ছাড়ছেই না। এন আই এক্টের এক মামলায় জামিন নিতে গিয়ে তার পাসপোর্ট জব্দ করেছিলেন হবিগঞ্জ এর মাননীয় আদালত; যদিও পরবর্তীতে তিনি মাননীয়  আদালত থেকে পাসপোর্ট ফেরত পান।

ছবিঃ শুল্ক গোয়েন্দা কর্তৃক জব্দকৃত গাড়ি।

পাসপোর্ট এর ঝুট ঝামেলা শেষ না হতেই, কার্নেট সুবিধায় বাংলাদেশে আনা মডেল থ্রি জিরো ডি বিএমডব্লিউ এক্স ৫ গাড়িটি চুনারুঘাট উপজেলার নরপতি গ্রাম থেকে সিলেট শুল্ক গোয়েন্দা তদন্ত অধিদপ্তরের একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে জব্দ করে।

গাড়ি জব্দ করার বিষয়ে কথা বললে জনাব গাজী জানান যে, গাড়িটির টেকনিক্যাল ত্রুটির কারনে তিনি লন্ডনে সময় মতো ফেরত নিতে পারেননি। এই বিষয়ক rac carnet de passage কর্তৃক প্রদত্ত একটি চিঠির কপিও ‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’ পত্রিকার কাছে দিয়েছেন।

ছবিঃ rac carnet de passage প্রদত্ত চিঠির কপি।

এরই মধ্যে আজ ৩০ নভেম্বর শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ সেগুন রেস্তোরাঁয় এক সংবাদ সম্মেলনে  করেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত বৃটিশ নাগরিক মোহাম্মদ গাজীউর রহমান গাজী। সম্মেলনে তিনি বলেন, আমি মোহাম্মদ গাজীউর রহমান বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত বৃটিশ নাগরিক। বাংলাদেশে ও যুক্তরাজ্যে আমার ব্যবসা-বাণিজ্য রয়েছে। যুক্তরাজ্যে পড়ালেখা শেষ করে আমি দীর্ঘ ২৫ বৎসর যাবত সততার সহিত ব্যবসা করে আসছি। বাংলাদেশে ব্যবসা করার নিমিত্তে আমি ২০০৭ সালে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে, হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার কদমতলী এলাকায় আমি ও আমার ভাই সাইদুর রহমানের নামে জমি ক্রয় করি। আমি বাংলাদেশে ব্যবসা শুরু করতে যাচ্ছি, এই সংবাদ যুক্তরাজ্যস্থ আমার বন্ধু মহলে ছড়িয়ে পড়লে, আমার বন্ধু আবুল কালাম ও সামছুল ইসলাম ২০০৯ সালের শুরুর দিকে আমার সাথে ব্যবসা করতে আগ্রহ প্রকাশ করে। কালাম ও সামছুলের আগ্রহের ভিত্তিতে ভিত্তিে আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে তাদেরকে স্লিপিং পার্টনার (নিস্ক্রিয় অংশিদার) হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করি। ২০০৯ সালে ব্যবসা শুরুর পর থেকে এখন পর্যন্ত সুনামের সঙ্গে ব্যবসা করে আসছি। পরিতাপের বিষয় হলো ২০১৩ সালে আমি ও আমার পার্টনারগণ যুক্তরাজ্যে অবস্থানকালে কে বা কারা রাতের অন্ধকারে জি-এস(গাজীউর-সাইদুর) ব্রাদার্স সিএনজি ফিলিং স্টেশনের গ্যাস মিটার ভাংচুর করে। এই গ্যাস মিটার ভাংচুরকে কেন্দ্র করে আমরা পার্টনারগনের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়।  এই বিরোধ নিস্পত্তির লক্ষ্যে আমরা পার্টনারগণসহ যুক্তরাজ্যস্থ বাংলাদেশী কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ বেশ কয়েকটি সালিশ বৈঠকে বসি। কিন্তু বিরোধ নিস্পত্তি হয়নি। অত:পর আমার বন্ধু কালাম ও সামছুল ইসলাম আমার বিরুদ্ধে ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সে, বাংলাদেশে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এবং হবিগঞ্জের পুলিশ সুপারের কাছে আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ দায়ের করে। যা সম্পুর্ণ অসত্য, কাল্পনিক ও বানোয়াট। ইতিমধ্যে আমাদের শুভাকাঙ্খিদের মাধ্যমে আমাদের ব্যবসার বিরোধটি হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি আবু জাহিরের নিকট উপস্থাপিত হয়। এমপি আবু জাহির মহোদয় প্রায় সময়ই লন্ডনে যাতায়াত করেন। লন্ডনে অবস্খানকালে আমাদের পার্টনারগনের সাথে বিরোধ সংক্রান্ত বিষয় আলাপ আলোচনা করে বিষয়টি সম্পর্কে উনি ধারণা লাভ করেন। অত:পর ১২-৩-২০১৮ ইং তারিখে শালিস বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শালিস বৈঠকের আলোচনার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত হয় কালাম ও সামছুল ইসলাম লভ্যাংশসহ পুঁজি ফেরত নিয়ে যাবে। ব্যবসায় তাদের অংশ আমার নামে হস্তান্তর করে দিয়ে যাবে। শালিস বৈঠকে আরও সিদ্ধান্ত হয় যে, কালাম ও সামছুল সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে অামার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করেছে তা প্রত্যাহার ও নিস্পত্তি করিবে। কিন্তু কালাম ও সামছুল ইসলাম আমার নামে দেয়া কোন অভিযোগতো প্রত্যাহার করেইনি বরং নতুন কল্পে অসত্য, কাল্পনিক ও বানোয়াট তথ্যের আশ্রয় নিয়ে দুদকে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে। বৈঠকে সিদ্ধান্ত ছিল, কালাম ও সামছুল আমার বিরুদ্ধে অানা সবগুলো অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিবে। এম এমপি মহোদয়ের মাধ্যমে আমি তাদের সকল দেনাপাওনা পরিশোধ করবো। টাকার অঙ্কে অামার আপত্তি থাকলেও এমপি আবু জাহিরের চাপে ও ভয়ে আমি ৫৫ লাখ টাকার চেক প্রদান করি। তিনি এই টাকার প্রকৃত দাবিদার আমার পার্টনারদের নামে চেকগুলো না নিয়ে তার(এমপি) পিএস, ছেলে, মেয়ে ও ভাইয়ের নামে চেক লিখিয়ে নিয়ে ব্যাংক থেকে গোপনে তিনি টাকা উত্তোলন করে নিয়ে যান। এই টাকা উত্তোলন করার পর তার মধ্যে লোভ আরও বেড়ে যায়। তিনি আমাকে ভয়ভীতি দেখান, প্রাণে হত্যার হুমকি দেন। আমি এমপি মহোদয়ের ভয়ে তার কথামতো এবং চাপে আবারও উনার ছেলে, মেয়ে ও ভাইয়ের নামে ৪টি চেক(মোট ৬৯ লাখ ৫৪ হাজার ৩৬৫ টাকা) লিখে দিতে বাধ্য হই। আমি এমপি মহোদয়কে বলি এই টাকা এখন আমার ব্যাংকে নেই। তখন তিনি আমাকে বলেন, তুমি একটা তারিখ উল্লেখ করো। ওই তারিখের মধ্যে টাকা জমা করবে নতুবা তোমার ব্যবসা বন্ধ করে দিব। তোমার লাশও খুঁজে পাওয়া যাবে না। আমি এই ভয়ে ৪টি চেক প্রদান করি। এরপর আমি প্রাণভয়ে লন্ডনে চলে যাই। আত্মীয় স্বজনের সাথে পরামর্শ করি। তারা সকলেই আমাকে পরামর্শ দিয়ে বলেন, তোমার ব্যাংকে যেহেতু এই পরিমাণ টাকা নেই, সেহেতু ভয়ের কোন কারণ নেই। তুমি চুপ করে থাকো। ব্যাংকে জানিয়ে আইন আদালতের স্বরনাপন্ন হও। পরবর্তিতে আমি দেশে ফিরে আমার প্রথম ধাপের চেকের টাকা ও দ্বিতীয় ধাপের চেক ফেরত চাইয়া আদালতে মামলা করি। আমার দেশে ফিরে মামলা করতে বিলম্ব হওয়ার সুযোগে এমপি মহোদয় ব্যাংকে চেক ৪টি ডিজঅনার করান। আমাকে চাপে ও বিপদে ফেলতে তার পরিবারের সদস্যদের দিয়ে আমার বিরুদ্ধে তিনি হবিগঞ্জের আদালতে পৃথক পৃথক তিনটি মামলা দায়ের করান। বর্তমানে আমার জীবন ও ব্যবসা বানিজ্য হুমকির মধ্যে পড়েছে। আমি আমার হবিগঞ্জের বাসায় নির্ভয়ে যেতে পারছি না। মাস্তান বাহিনী প্রায়শই আমার বাসায় ইট-পাটকেল মারছে। আমাকে গুন্ডা বাহিনী টেলিফোনে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। যা আমি রেকর্ড করে রাখি এবং এসব প্রমাণপত্রসহ হবিগঞ্জ সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করি। আমি শঙ্কিত! এমপি সাহেব ও তার লোকজন মোটা অঙ্কের টাকা আত্মসাতের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। আমি আমার জীবনের নিরাপত্তা ও এসব বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে আপনাদের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। একইসাথে আমি আমার জানমালের নিরাপত্তার স্বার্থে গণমাধ্যম ও দেশবাসির সহযোগিতা কামনা করছি।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর তদন্তে দেখা যায় যে, জনাব গাজীউর রহমানের কাছে প্রকৃতপক্ষেই তার ব্যবসায়িক পার্টনার আবুল কালাম ও সামছুল ইসলাম প্রায় এক কোটি বিশ লাখ পাওনা আছেন। এই এক কোটি বিশ লাখ টাকার মধ্যে জনাব গাজী ইতোমধ্যেই ৫৫ লাখ টাকা মাননীয় আবু জাহির এমপি মহোদয়ের মাধ্যমে পরিশোধ করেছেন। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জনাব গাজী বাকি টাকাগুলো ও মাননীয় এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি মহোদয়ের মাধ্যমে পরিশোধ করে দিলেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ মতামত দেয়। অপরপক্ষ আবুল কালাম এবং সামছুল ইসলামের ও উচিত হবে জনাব গাজীউরের নামে করা নানা মামলা তুলে নিয়ে বিষয়টি সুরাহা করতে এগিয়ে আসা। তাছাড়াও এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে যেসব জিডি/মামলা হয়েছে, সেগুলাও তুলে নিয়ে হবিগঞ্জের সুষ্ট পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য ‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’ উভয় পক্ষের কাছে আবেদন জানায়।

Developed By The IT-Zone