ঢাকামঙ্গলবার , ৭ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পইলের ঐতিহ্যবাহী খেলার মাঠ রক্ষার্থে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার
জুন ৭, ২০২২ ৯:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পইলের (নতুন বাজার) ঐতিহ্যবাহী খেলার মাঠ রক্ষার্থে বিশাল মানববন্ধন করেছে ওই এলাকার জনসাধারণ। সম্প্রতি ভূমিহীন গৃহহীনদের জন্য সরকারি ঘর নির্মাণের প্রতিবাদে এলাকাবাসী এই মানববন্ধন করে। এলাকাবাসীর দাবি পইল ইউনিয়নে আরও একাধিক সরকারি জায়গা আছে এই মাঠে ঘর নির্মাণ না করে অন্য জায়গায় স্থানান্তর করা হোক।

মঙ্গলবার (৭ জুন) বিকেল ৫টার সময় নতুন বাজার মাঠের পাশের রাস্তায় এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে আব্দুল মতিন নামের এক ব্যক্তি বলেন , ৬ থেকে ৭ মাস আগে ঘর তৈরীর জন্য এই মাঠের জায়গা নির্ধারণ করেছে প্রশাসন । বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানলেও সাধারণ মানুষকে জানানো হয়নি। যার জন্য আজ এলাকাবাসীর এই দুর্দশা , প্রশাসনের কোনো দোষ নেই ।

বিষয়টি নিয়ে আমাদের মত প্রশাসনও বিপদে আছে। আজ থেকে ৬-৭ মাস আগে বিষয়টি অবগত হলে হয়তো প্রশাসনের জন্য স্থানান্তর করা খুবই সহজ ছিল। আব্দুল মান্নান নামের আরেক ব্যক্তি বলেন , ভূমিহীন গৃহহীনদের জন্য সরকারি ঘর নির্মাণ বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসনীয় উদ্যোগ, আমরা চাই এই কর্মকাণ্ড অব্যাহত থাকুক।

এর আগে গত (৩০ মে) খেলার মাঠ রক্ষার্থে পইল এলাকাবাসী জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। লিখিত স্মারকলিপিতে এলাকাবাসী উল্লেখ করেন, বাংলাদেশ সরকারের প্রশংসনীয় উদ্যোগ ভূমিহীনদের জায়গাসহ ঘর বরাদ্দ দেওয়া। আমরাও চাই ভূমিহীনদের পূনর্বাসন অব্যাহত থাকুক । কিন্তু পইল গ্রামের যেখানে ৯১ টি পরিবারের জন্য গৃহ নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়েছে, সেখানে সারাবছর সদর উপজেলার বৃহৎ গ্রাম পইলের শিশু – কিশোররা খেলাধুলা করে। প্রতিবছর বৈশাখ মাসে ফসল তোলার মৌসুমে এই মাঠের চারপাশের বাসিন্দারা ধানের খলা তৈরি করে হাজার হাজার মণ ধান উত্তোলন করেন ।

সারা বছর এই মাঠে পইল গ্রামের মানুষ গরু চড়ায়। এছাড়া পৌষ সংক্রান্তিতে প্রায় ২ শত বছরের ঐতিহ্যবাহী সিলেট বিভাগের শ্রেষ্ঠ মাছের মেলা এই মাঠেই অনুষ্ঠিত হয় । ওই মেলায় অংশগ্রহণ করেন জেলা ও জেলার বাহির থেকে আগত কয়েক লক্ষ মানুষ । ধর্ম – বর্ণ নির্বিশেষে এই উৎসব এক মিলন মেলায় পরিণত হয় । এখানে ঘর নির্মাণের ফলে একদিকে যেমন শিশু – কিশোরদের খেলাধুলার জায়গার সংকট হবে, অন্যদিকে বৈশাখে ধানের মৌসুমে খলা তৈরির জায়গারও সংকট হবে ।

সারা বছর গবাদি পশু চরানোর মাঠও থাকবে না, এছাড়া পৌষ সংক্রান্তিতে ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলার সময় আরো বেশি জায়গার সঙ্কট তৈরি হবে। অনেকের দাবি ইতিপূর্বে যে সমস্ত জায়গায় সরকারি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে , সেই এলাকাগুলিতে মদ জুয়া মাদকের ছড়াছড়িসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ বেড়ে যায় ।

আরো জানতে পারছি তাদের নিজেদের মধ্যে লাগাতার ঝগড়াঝাঁটি লেগেই থাকে । এই ঝগড়া এসিল্যান্ড অফিস , ইউএনও অফিস , এমনকি আদালত পর্যন্ত গড়ায় । পইল এলাকা একটি বৃহৎ গ্রাম হলেও তারা শান্তি প্রিয় মানুষ , আমরা চাই আমাদের এলাকার শান্তিশৃঙ্খলা বজায় থাকুক।যাতে শিশু – কিশোররা সুস্থ বিনোদন খেলাধুলা করে বেড়ে উঠুক ।

বৈশাখে মাসে ধানের মৌসুমে আমরা এই মাঠে খলা তৈরি করে সুন্দর ভাবে ধান উত্তোলন করতে পারি । ২ শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলাও প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হয় । সারাবছর গরু চরানোর মাঠ হিসাবেও ব্যবহার হোক। এই মাঠ ছাড়াও আরো ৩ থেকে ৪ টি সরকারি নিষ্কণ্টক জায়গা আমাদের এলাকায় আছে । পইল নতুন বাজার খেলার মাঠে ঘর নির্মাণের সিদ্ধান্তটি পরিবর্তন করে অন্য জায়গায় স্থানান্তর করলে আমরা এলাকাবাসী আজীবন এর সুবিধা ভোগ করবো ।

Developed By The IT-Zone