ঢাকাশুক্রবার , ২৯ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নিজে দেখা হবিগঞ্জে আওয়ামী রাজনীতি । পর্ব-২

সৈয়দ কামরুল হাসান
জুলাই ২৯, ২০২২ ১০:০২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

যখন হবিগঞ্জ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়ি , তখন রিচি থেকে হেঁটে স্কুলে আসতাম । হবিগঞ্জ লাখাইর রাস্তার অবস্থা ও ভাল ছিল না । বর্ষায় নৌকায় সুবিধা ছিল ।

প্রতিদিন বৃন্দাবন কলেজের সামনে দিয়ে স্কুলে যেতাম । ক্লাস এইটে যখন পড়ি , তখন এরশাদ বিরোধী আন্দোলন তুঙ্গে । প্রায়ই কলেজে মিছিল দেখতাম ।

আমার মিছিলে যাওয়ার খুব শখ ছিল । কিন্তু স্কুলে পড়ি কলেজে তো যেতে পারি না । ১৯৮৪ সালে হবিগঞ্জ শহরের আজিজ ছাত্রাবাসে এসে উঠলাম । রামকৃষ্ণ মিশনের পাশে পুরাতন কৃষি ব্যাংকের পিছনে ।

এইখানে তখন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু জাহির সাহেব ও থাকেন । উনার ফুফু ছাত্রাবাসের মালিক । তখন জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন হবে ।

আমি সুযোগ পেয়ে গেলাম , প্রতিদিন মিছিলে যাওয়ার । সম্মেলন পর্যন্ত একজন একনিষ্ট কর্মী হয়ে কাজ করলাম। সবার নজরে পড়লাম ।

আমি ভাল শ্লোগান দিতাম । এবং শ্লোগান দিতে ভাল লাগত । জেলা ছাত্রলীগের কমিটি হল জাহির – ফজল – অজিত পরিষদ ।

তখন থেকে বৃন্দাবন কলেজে আমাদের ছাত্রলীগের অবস্হার উন্নতি হতে লাগল । আমি ও সুযোগ পেলে কলেজে মিছিলে যাই । ৮৫ সালে কলেজে ভর্তি হয়ে সার্বক্ষনিক ছাত্রলীগের কর্মীর দায়িত্ব পালন করি । লেখাপড়ার চেয়ে রাজনীতি বেশী ভাল লাগত ।

যদিও ছাত্রলীগ করার কারনে গ্রামসহ অনেকের কাছ থেকেই বাধা পেয়েছি । তবে আমার আব্বা কখনো রাজনীতি করতে বারণ করেন নাই ।

তখন জয়বাংলা বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগ বলা ছিল অনেকটা ঘৃনিত । যাই হোক কলেজে তখনের নিয়ম ছিল টিফিনের ঘন্টা দেওয়ার সাথে সাথে শ্লোগান শুরু ।

একই সাথে সব সংগঠন মিছিল করত। সমস্যা হত জাসদ ছাত্রলীগ এবং ছাত্রদলের মিছিল অতিক্রম করার সময় । আমরা যখন বুঝতে পারলাম , তখন আবু জাহির বর্তমান এমপি বলল পাল্টা আঘাত করতে হবে । তাই হত । প্রায়ই মারামারি হত জাসদ ছাত্রলীগের সাথে ।

১৯৮৫ সালে হবিগঞ্জ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে যারা এসএসসি পাশ করেছে। তাদের মধ্যে থেকে একমাত্র আমি এবং আব্দুস সবুর সাদেক মুজিববাদ ছাত্রলীগ করেছি । অন্যরা বেশীর ভাগই জাসদ ছাত্রলীগ , ছাত্রদল , বাসদ করেছে । চলবে  —

Developed By The IT-Zone