ঢাকাবুধবার , ৪ ডিসেম্বর ২০১৯
আজকের সর্বশেষ সবখবর

‘নানা অপকর্মে জড়িয়ে এমপি জাহিরের নাম’ শীর্ষক সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন আবু জাহির এমপি

অনলাইন এডিটর
ডিসেম্বর ৪, ২০১৯ ১১:৫৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

প্রেস রিলিজ।। হবিগঞ্জ সদর-শায়েস্তাগঞ্জ-লাখাই আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব মোঃ আবু জহির এমপি দৈনিক সমকালে ২ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রি. তারিখে ‘নানা অপকর্মে জড়িয়ে এমপি জাহিরের নাম’ শীর্ষক সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

আজ ৪ ডিসেম্বর রোজ বুধবার এক ইমেইল বার্তায় তিনি বলেন, দৈনিক সমকালে ২ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রি. তারিখে ‘নানা অপকর্মে জড়িয়ে এমপি জাহিরের নাম’ শীর্ষক সংবাদটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাটি সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত, মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।

সংবাদের শুরুতেই বলা হয়েছে এগার বছর আগে আমি ভাড়া বাসায় থাকতাম। বর্তমানে সাততলা বাড়ি। এছাড়াও অনেক জমি এবং বিল্ডিংয়ের বর্ণনা প্রদান করা হয়েছে। এটি আদৌ সত্য নয়। কারণ আমি এমপি নির্বাচিত হওয়ার অনেক আগেই নিজের পাকা বাসা নির্মাণ করি। আর অন্য যে জমির কথা ও মূল্যের কথা বলা হয়েছে তাও সঠিক নয়। অনেক কম মূল্যের কিছু জমি আমার আছে তা সকলেই অবগত। এছাড়া আমার নির্বাচনী হলফনামায় যে তথ্য উপস্থাপন করেছি এবং গত আয়কর বছরেও যে রিটার্ন জমা আমি দিয়েছি তাতে আমার সম্পদ এবং আয়ের সম্পূর্ণ হিসাব বিবরণী দাখিল আছে। যদি আমার আয় বহির্ভুত কোন প্রকার সম্পত্তি থাকতো তাহলে অবশ্যই হবিগঞ্জবাসী তা জনতো।

হবিগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের জায়গা ও ধুলিয়াখালের পাশে নিরীহদের জমি দখলের বিষয়টিও আদৌ সত্য নয়। হবিগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের জায়গা আমি এমপি নির্বাচিত হওয়ার অনেক আগেই আমার ছোট ভাই নির্ধারিত ভাড়া প্রদান সাপেক্ষে ব্যবহার করে। আরও অনেকেই এই প্রতিষ্ঠানের দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করছেন। রাজধানী ঢাকায় সরকারী বরাদ্ধের বাইরে আমার কোন প্লট বা ফ্ল্যাট নেই। এছাড়াও উক্ত সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে লন্ডন, আমেরিকা এবং কুয়েতে আমার দামি ফ্ল্যাট রয়েছে। যা আদৌ সত্য নয়, আমি এ বিষয়ে চ্যালেঞ্জ করছি। মূলত আমাকে আমার নির্বাচনী এলাকার জনগণের কাছে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এ ধরণের সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে। দামি বিলাশবহুল যে গাড়ীর কথা বলা হয়েছে তা সরকারী ট্যাক্স ফ্রি সুবিধায় এবং ব্যাংক ঋণের মাধ্যমে ক্রয় করা। ইতোপূর্বেও আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সংবাদপত্রে কল্পনাশ্রীত সংবাদ পরিবেশন করে বলেছিল যে- আমি বাংলাদেশে একাধিক জাহাজের মালিক। আমি এ বিষয়ে পরবর্তীতে চ্যালেঞ্জ করেছিলাম। যার প্রমাণ কেউ দিতে পারেনি।

সংবাদে বলা হয়েছে আমার কোন ব্যবসা নেই। এটিও সঠিক নয়। আমি হবিগঞ্জ জেলা বারের আইনজীবী। কর্মজীবনের শুরু থেকেই প্রথমে আয়কর আইনজীবী ছিলাম। পরবর্তীতে হবিগঞ্জ বারে যোগদান করে আইন পেশায় নিয়োজিত হই। হবিগঞ্জ শহরের সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক কেন্দ্র চৌধুরীবাজারে আমার পৈত্রিক ব্যবসা ও দোকান ভিট রয়েছে। আমাদের যৌথ পরিবারের অন্য সদস্যরাও ব্যবসা করছেন। এখান থেকে আমাদের পরিবারের উল্লেখযোগ্য পরিমাণ আয় হয়। যা দিয়ে আমার পরিবারের ব্যয় নির্বাহ এবং দলকে সংগঠিত করতে ব্যয় করি।

সংবাদে বলা হয়েছে আমি প্রবাসীর টাকা আত্মসাৎ, সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে চাঁদাবাজি, ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদাবাজি, সমালোচনাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা, বনাঞ্চল থেকে সিরামিকসের মাটি উত্তোলন করে বন ধ্বংস, নিয়োগ-বাণিজ্য- এ রকম অসংখ্য অভিযোগে জড়িয়ে রয়েছে। যা আদৌ সত্য নয়। বরং প্রবাসীরা বিভিন্ন সমস্যায় আমার

কাছে আসলে আমি সমাধান করে দেই। প্রবাসীরা আমাকে আপনজন মনে করেন বলেই দেশ বিদেশে আমাকে সংবর্ধনা প্রদান করেন। আমি এমপি হওয়ার আগে বা পরে আমার সমালোচনাকারী বা অন্য কারো বিরুদ্ধে কোন ধরনের মামলাই করিনি। আমি বাদী হয়ে কারো বিরুদ্ধে মামলা করেছি এমন কোন প্রমাণ দিতে পারলে প্রয়োজনে আমি এমপি পদ হইতে পদত্যাগ করতে রাজী আছি।

সংবাদে বলা হয়েছে আমার রোষানল থেকে সাংবাদিকরাও রেহাই পাননি। মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল খাটিয়েছি এবং নানাভাবে হয়রানি করেছি। এটিও সঠিক নয়। সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত।

সংবাদে উল্লেখ করা হয় স্থানীয় সাংবাদিক শোয়েব চৌধুরী আমার অপকর্মের বিরুদ্ধে সোচ্চার হলে তার বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা করা হয়। ওই মামলায় জেল খাটেন শোয়েব চৌধুরী। এ ছাড়া হাফিজুর রহমান নিয়ন নামে স্থানীয় আরেক সাংবাদিককেও মামলা দিয়ে হয়রানি করেছি। এটিও সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমার বিরুদ্ধে সাংবাদিক শোয়েব চৌধুরী কখনও কোন সংবাদ প্রকাশ করেননি । মূলত শোয়েব চৌধুরী এবং হাফিজুর রহমান নিয়নের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে তাদেরই আরেক সহকর্মী ও বর্তমান হবিগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি হারুনুর রশীদ চৌধুরী। মামলায় স্বাক্ষীও ছিল বিশিষ্ট সাংবাদিকগণ। আমি সেই মামলার বিষয় আপোষ মিমাংশা করে দেই। শুধু তাই নয় হবিগঞ্জের সাংবাদিকদের দীর্ঘদিনের পেশাগত বিরোধ নিস্পত্তি, সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনকে অনুদান প্রদান ও তাদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমি নিয়মিত উপস্থিত থাকি।

অলিপুর এলাকায় শিল্প প্রতিষ্টান থেকে কখনও কোন চাঁদা নেইনি। আর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কোন নৈশ প্রহরীর নিয়োগে টাকা নেয়ার কোন প্রশ্নই আসে না। তাছাড়া কেউ এ ধরনের অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে করতেও পারবে না। জলমহালও ইজারা হয় প্রশাসনের মাধ্যমে সরকারী নীতিমালায়। হবিগঞ্জ-লাখাই সড়কের টেন্ডার থেকে কোন টাকা গ্রহণের প্রশ্নই উঠে না। বরং আমি বার বার সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলীকে তাগিদ দিয়েছি দ্রুত এবং মানস্মতভাবে কাজ সম্পন্ন করার জন্য। এমনকি আমি মাননীয় সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রীর সহযোগিতা নিয়ে জনগনের দুর্ভোগ দ্রুত লাগবের চেষ্টা করেছি। আর আমার এলাকায় কোন কাজের জন্য কমিশন দিতে হয় এটি আমার কোন শত্রু বা কোন ঠিকাদার বলতে পারবে না। হবিগঞ্জ শহরে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকতে তারা চাঁদাবাজী করেছে। কিন্তু আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর আমি কোন চাঁদাবাজী করা দূরে থাক আমার কোন নেতাকর্মীও কারও কাছ থেকে এক টাকাও চাঁদা নেয়নি। এমনকি দলীয় সভা ও সম্মেলনেও আমরা কাহারও কাছ থেকে চাঁদা না নিয়ে নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় আয়োজন করি।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাজ সমগ্র জেলাব্যাপী। বরং আমার নির্বাচনী এলাকায় কাজ কম। এখানে আমার নিয়ন্ত্রনের প্রশ্নই আসে না। আমার একমাত্র মেয়ের বিয়েতে আমার নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেছেন বলে একটু বড় পরিসরে আয়োজন করেছি। মফস্বল শহরে বড় কোন কমিউনিটি সেন্টার না থাকায় স্টেডিয়ামে আয়োজন করেছিলাম। এর অধিকাংশ ব্যয় নির্বাহ করেন আমার প্রবাসে থাকা আত্মীয় স্বজন। কানাডা প্রবাসীর কোন জায়গা আমি দখল করিনি।

আপনার পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদে আমার বিরুদ্ধে যে সমস্ত অভিযোগ আনয়ন করা হয়েছে তার কোনটিতেই কোন তথ্য সূত্র নেই। আর কেউ অভিযোগ দিলেই তা সত্য নয়। বরং সেই অভিযোগের বিষয়ে কোন প্রকার সত্যতা যাছাই না করে পত্র পত্রিকায় প্রকাশ করাও এক ধরনের অপরাধ বলে গণ্য হয়। এছাড়া উক্ত সংবাদে সুনির্দিষ্টভাবে কোন প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কত টাকা চাঁদা নিয়েছি আর কোন ঠিকাদার বা ব্যাক্তির নিকট হতে সুবিধা গ্রহণ করেছি তারও কোন উল্লেখ নেই কিংবা তাদেরও আমার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ আছে কিনা তারও উল্লেখ নাই। আপনার পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে এই ধরনের বিভ্রান্তিমূলক সংবাদ প্রকাশের কারনে আমার মানহানীসহ রাজনৈতিক ও সামাজিক সম্মান বিনষ্ট হয়েছে।

আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি সংবাদে প্রদত্ত তথ্যের কোন প্রমাণ বা স্বাক্ষী কেউ দিতে পারবে না। বরং আমার জনপ্রিয়তা ধ্বংস করার জন্য ও হবিগঞ্জে আওয়ামীলীগের দূর্গের পতন ঘটাতে কতিপয় ষড়যন্ত্রকারীর মদদে এবং আগামী ১১ ডিসেম্বর জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনকে ন্যাসাৎ করার ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে এই সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। আমি এই উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাই।

Developed By The IT-Zone