ঢাকাসোমবার , ৯ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জে থেমে নেই শিক্ষকদের রমরমা কোচিং বাণিজ্য :

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মার্চ ৯, ২০২০ ৮:০২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোঃ হাসান চৌধুরী নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ  নবীগঞ্জে প্রাইভেট টিউশনি ও কোচিং বাণিজ্য ব্যবসা শিক্ষার্থী এবং অভিভাবক মহলে বর্তমানে সবচেয়ে উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। গ্রাামাঞ্জলের স্কুল-কলেজ পড়ুয়া একজন শিক্ষার্থীকে একাধীক বিষয় শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়তে হয় আর শহরাঞ্জলে শিক্ষার্থীকে করতে হয় বাধ্যতামুলক কোচিং।

নবীগঞ্জে ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠেছে অবৈধ কোচিং সেন্টার।এসব কোচিং সেন্টারের নামে সরকারী কিছু এমপিওভূক্ত স্কুলের অসাধু শিক্ষকরা পাশের নিশ্চয়তার আশ্বাস দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন মোটা অংকের টাকা। সরকারি নীতিমালা লঙ্ঘন করে চলছে এসব কোচিং সেন্টারগুলো।অভিভাবকরাও অসহায় তাদের ছেলে মেয়েদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে বাধ্য হয়ে কোচিং সেন্টারে পড়াচ্ছেন।সম্প্রতি প্রশাসনের অভিযানে শহরে কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ হলেও সরকারী স্কুল নবীগঞ্জ জে,কে মডেল উচ্চ বিদ্যলয় ও শহরের হীরা মিয়া গার্লস হাই স্কুলে শিক্ষকের উপজেলা ওসমানী রোড মাদ্রাসা মার্কেটের সামনে রত্না ব্রাদার্স,সাবাজ সড়কের ডাক বাংলা সংলগ্নে গড়ে উঠেছে কোচিং সেন্টার গুলো। নবীগঞ্জ হীরা মিয়া গালর্স হাই স্কুলের ইংরেজীর শিক্ষক সাইফুল, জে,কে সরকারি মডেল স্কুলের গনিতের শিক্ষক সলিল দাশ, শলিল,পল্টন,সিন্ধু পৃথকভাবেস্কুল ক্যাম্পাসে ও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিপুল দেবসহ অনেকই শিক্ষকই এই অবৈধ কোচিং সেন্টার পরিচালনা করে আসছেন। এমনকি শিক্ষকরা লাইব্রেরী ব্যবসায়ও জড়িয়ে পড়েছেন, কোচিং এর পাশাপাশি তাদের মালিকানাধীন লাইব্রেরীতেও নোট বই, খাতা, কলমসহ যাবতীয় জিনিস কিনতে বাধ্য করা হয় বলেও জানা গেছে বিভিন্ন সূত্রে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বিনা মূলধনে কোচিং ব্যবসা খোলার সুযোগ থাকায় নবীগঞ্জ শহর ও বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে উঠছে এসব কোচিং সেন্টার। কিন্তু শিক্ষকরা রমরমা কোচিং বাণিজ্য চালিয়ে আসছে শহরে। প্রশাসনের চোখ আড়াল করে বললেই চলে।দেখা গেছে, একটি কোচিং সেন্টারে দিনে প্রায় তিন থেকে চারটি ব্যাচ পড়ানো হয়। প্রত্যেকটি ব্যাচে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ জন শিক্ষার্থীকে পড়ানো হয়। কোচিং সেন্টারে একটি ব্যাচ ১ ঘণ্টা থেকে দুই ঘণ্টা পড়ানো হয়। এক একটি ক্লাস ৩০ থেকে ৪০ মিনিট পর্যন্ত নেয় কোচিং সেন্টারের শিক্ষক।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক শিক্ষার্থী জানান, পরীক্ষায় ফেলের ভয় দেখিয়ে এবং শতভাগ পাসের আশ্বাস দিয়ে সারা বছরই কোচিং সেন্টারে পড়তে বাধ্য করা হয়। শিক্ষক তাদের স্কুল ফাকি দিয়ে ও ক্লাসে সঠিকভাবে পাঠদান না করে কোচিং সেন্টারে আসার কথা বলে দেন। শিক্ষকের খাঁচায় বন্দি হয়ে আছেন কোমলমতি ছাত্র ছাত্রীরা।সচেতন অভিভাবকরা মনে করেন, এটা প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের গাফিলতি। প্রাইভেট কোচিং এর সাথে জড়িত শিক্ষকদের আজ পর্যন্ত কোন ব্যবস্থাগ্রহণ করার দৃষ্টান্ত নেই নবীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে। সাধারণ মানুষের দাবী শিক্ষার নামে কোচিং বাণিজ্যের সাথে জড়িত শিক্ষকদের খোঁজে বের করে তাদের শাস্তির ব্যবস্থা করা। তা না হলে, সব শিক্ষা প্র্রতিষ্ঠান হয়ে পড়বে সার্টিফিকেট বিক্রির অন্যতম ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এসব কোচিং সেন্টার বন্ধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন স্থানীয় লোকজন।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জের উপজেলার শিক্ষা অফিসার বলেন,আমি অফিসে শিক্ষকদেরকে ডেকে এনে নিষেধ করে দিয়েছি কোচিং সেন্টার না চালানোর জন্য।

 

নবীগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী অফিসার বিশ্বজিত কুমার পাল বলেন, সরকারী নীতিমাল লংঙ্গনকারী শিক্ষকদের আইনুক ব্যবস্থা গ্রহন করবো। সরকারী স্কুলে কোচিং বানিজ্য চলছে আমরা জানা নেই তবে আমি নবীগঞ্জ জে,কে সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের সাথে এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করে ব্যবস্থা নিব।

Developed By The IT-Zone