ঢাকাবুধবার , ৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জে ত্রাণ বিতরণ নিয়ে অনিয়মের সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিকদের উপর মামলা দায়ের

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ৮, ২০২০ ১:১০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

 মোঃ তাজুল ইসলাম, নবীগঞ্জ থেকে :  হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে ৫ নং আউসকান্দি ইউনিয়নে  ত্রান বিতরণের অনিয়মের সংবাদ প্রচার করায় সাংবাদিকদের উপর হামলা এরপর উল্টো সাংবাদিকদের উপর মিথ্যা মামলা। সাংবাদিকরা এ মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। সেই সাথে এইসব মামলা প্রত্যাহার করার দাবি জানান সাংবাদিক মহল। সাংবাদিক শব্দ সহজ হলেও এই পেশায় কাজ করা সহজ নয়, পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ও সম্মানজনক পেশা হচ্ছে সাংবাদিকতা, তবে এটা সবার জন্য না। মানুষ শুধু চাওয়া পাওয়া নিয়ে হিসাব করে, সকল শ্রেণি পেশার মানুষেরই রয়েছে না পাওয়ার বেদনা। বর্তমানে বিশ্বে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে করোনাভাইরাস।প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে প্রতিদিনই বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা, থেমে নেই মৃত্যুর মিছিলও।

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ভাইরাসের মধ্যে ও সংবাদ সংগ্রহ করতে হয় সাংবাদিকদের। জানাযায়, গত ৩০ মার্চ ত্রাণে অনিয়মের অভিযোগে সংবাদ প্রকাশ করায় আউশকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহিবুর রহমান হারুন সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে সাংবাদিক শাহ সুলতান আহমেদ উপর অতর্কিত হামলা চালান। এসময় চেয়ারম্যান হারুন নিজেই ক্রিকেট খেলার ব্যাট দিয়ে পেটান সাংবাদিককে। খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে আহত হন সাংবাদিক এম মুজিবুর রহমান ও সাংবাদিক বুলবুল আহমেদ। নবীগঞ্জ উপজেলায় এবার ৫ জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে ফরজুন আক্তার মনি। যৌন হয়রানির অভিযোগে দায়েরী মামলায় সম্প্রতি সাংবাদিক নির্যাতনকারী নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিবুর রহমান হারুন এর মালিকানাধীন অরবিট হসপিটাল দেখানো হয়েছে ঘটনাস্থল। এদিকে ফের অভিযোগ উঠেছে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘদিন কারাভোগ করে জামিনে এসে নানা অপকর্ম শুরু করেছে মনি নামের এই প্রতারক নারী। নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের বর্তমান সাধারণ সম্পাদকসহ ৫ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দায়েরের ঘটনায় ক্ষোভ বিরাজ করছে সাংবাদিক মহলে।

মামলার আসামী সাংবাদিকরা হলেন- নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক কালের কন্ঠের প্রতিনিধি মোঃ আলমগীর মিয়া, সম্প্রতি ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক নির্যাতনের শিকার (চিকিৎসাধীন) দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদের প্রতিনিধি, নবীগঞ্জ সাংবাদিক ফোরামের সাবেক সভাপতি ও নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য শাহ সুলতান আহমেদ, নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক সমকালের প্রতিনিধি এম এ আহমদ আজাদ, দৈনিক আমার সংবাদের প্রতিনিধি এম মুজিবুর রহমান, চ্যানেল এস এর প্রতিনিধি বুলবুল আহমেদ।

৫ জন সাংবাদিক ছাড়াও সাকির আহমেদ নামের স্থানীয় এক যুবককে আসামী করা হয়েছে।

এ ঘটনায় সাংবাদিক এম মুজিবুর রহমান বাদি হয়ে পরের দিন ইউপি চেয়ারম্যান হারুনকে প্রধান আসামী করে ১০ জনের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় অভিযান চালিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে এক আসামীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় চেয়ারম্যান হারুন। এরপর থেকেই কিভাবে সাংবাদিকদের সায়েস্থা করা যায় এমন নিল নকশা তৈরী করেন চেয়ারম্যান হারুন ও তার বাহিনী। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান খুঁজে আনেন বহু অপকর্মের হুতা নারী প্রতারক ফরজুন আক্তার মনিকে। অসুস্থ শাহ সুলতান ওইদিন আউশকান্দি বাজারে অবস্থিত তার ভাড়াটিয়া বাসা থেকে তার মেয়েকে নিয়ে ঔষধ কিনতে নিচে নেমে ফার্মেসিতে যাওয়ার সময় দেখেন বহুরূপী মনি ও চেয়ারম্যানের বাহিনী তার পথরোদ্ধ করে। সাংবাদিক হতে চাইলে তা হওয়া অনেক কঠিন। নিউজ না করেই কার্ড গলায় ঝুঁলিয়ে মনি পরিচয় দেন যে, আমি সাংবাদিক! ওই মনি নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে শাহ সুলতানকে নানান ভাবে অপদস্ত করে।

কিন্তু ওই ঘটনাটিকে এখন সাজানো হয়েছে অন্যভাবে। বিতর্কিত নারী মনিকে দিয়ে সাংবাদিকদের উপর ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা দায়ের করেন। মামলায় সাংবাদিকদের উপর যৌন হয়রানী, ও চুরির অভিযোগ তোলা হয়। মামলাটি গত ৬ এপ্রিল রাতে নবীগঞ্জ থানায় রেকর্ড হয়। এ ঘটনায় সাংবাদিকদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।সচেতন মহলের দাবি-জনসচেতনতার অভাবেই অপরাধমুলক কর্মকান্ড বাড়ছে। সাংবাদিকরা কোনো চোর বা ডাকাত নয়, কেন সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হয়।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আজিজুর রহমান।

Developed By The IT-Zone