ঢাকামঙ্গলবার , ৩১ মার্চ ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জে ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ : ক্ষোভ জানিয়েছেন শ্রমজীবিরা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মার্চ ৩১, ২০২০ ৫:২১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সলিল বরণ দাশ, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) থেকে :    হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় করোনা ভাইরাস দূর্যোগে শ্রমজীবি মানুষের জন্য প্রধানমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলের ত্রান বিতরণকে কেন্দ্র করে নবীগঞ্জের শ্রমজীবি মানুষেরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।এদিকে পর্যাপ্ত অর্থের অভাবে ত্রান বিতরন করতে পারছে না উপজেলা প্রশাসন এমনটাই জানা গেছে। এান বিতরণে দুই ধরনের প্যাকেট পাওয়ার অভিযোগ করেছে ত্রান গ্রহীতারা।

এলাকাবাসীর সূত্রে জানা যায়,করোনা ভাইরাসে সারা দেশ লকডাউনের কারনে উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ১৩ টি ইউনিয়নের ১৭৭টি ওর্য়াডে ক্ষতিগ্রস্থ শ্রমজীবি মানুষের মধ্যে বিতরনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিল থেকে ত্রান হিসাবে ১০ কেজি চাল ২ কেজি আলু ১ কেজি পেঁয়াজ আধা লিটার তেল, ১কেজি ডাল ও ১টি সাবান দেওয়ার কথা থাকলে প্রশাসনের অর্থ সংকটের কারনে দুই ধরনের প্যাকট করে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন। যার জন্য অনেকে পেয়েছেন ১০ কেজি চালের সাথে পেয়েছেন ১টি মাত্র সাবান। সেই হিসেবে গত কয়েকদিনে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারগুলোকে দুই ধরনের প্যাকেটে ত্রান বিতরন করা হয়। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমজীবি ১৪০০ জনের নাম তালিকাভুক্ত করে ত্রান বিতরন করা হচ্ছে। আরো ১৪০০ জনের তালিকা করা হয়েছে।

 

এদের মধ্যে উপজেলার পূর্ব বড় ভাকৈর ইউনিয়নের হলিমপুর ও আউশকান্দি ইউনিয়নের আউশকান্দি বাজারের কয়েকজন ত্রাণ গ্রহীতা জানান, তারা শুধু চালের সাথে ১টি সাবান পেয়েছেন এমনকি ১০ কেজি চালের জায়গায় ৫-৬ কেজি চালও পেয়েছেন বলে অনেকে জানান। এাছাড়া অনেক জায়গায় এক পরিবারের দুইজন ও অনেক সঞ্চল দোকান মালিকও ত্রান পেলেও অনেক প্রকৃত শ্রমজীবি পরিবারগুলো ত্রান থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।

বিশেষ করে উপজেলার অনেক ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারা স্বজনপ্রীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে তালিকা করায় অনেক প্রকৃত শ্রমজীবি মানুষ তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন।

এদিকে উপজেলার আউশকান্দি বাজারে ত্রান গ্রহীতাদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বুলবুল আহমেদ নামে স্থানীয় এক সাংবাদিকের ফেইসবুক আইডি থেকে ফেইসবুক লাইভের মাধ্যমে ত্রানের ব্যাপারে ক্ষোভ প্রকাশ করলে এই খবর সমগ্র উপজেলায় ছড়িয়ে পড়ে।

ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ ছাদু মিয়া জানিয়েছেন, ইউপি চেয়ারম্যান যে তালিকা করেছেন তার ভিত্তিতেই তারা ত্রাণ বিতরণ করেছেন। চাল কম দেওয়ার বিষয়টি সত্য নয় আমরা তদন্তে করে এর সত্যতা পাইনি।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কুমার পাল বলেন, অর্থ সংকটের কারনে আমরা প্রতি ইউনিয়নে ১০০ প্যাকেট করে ত্রান বিতরন করি।এর মধ্যে ৪০ প্যাকেটে ১০ কেজি চালের সাথে ৫টি আইটেম দিলে ও ৬০টি প্যাকেটে শুধু সাবান দিয়ে ত্রান বিতরন করি। এছাড়া তালিকা তৈরিতে যদি কোনো অনিয়ম হয় তাহলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone