ঢাকাশুক্রবার , ৩ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জে কোচিং সেন্টারের আড়ালে চলছে অনৈতিক কর্মকাণ্ড

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ৩, ২০২০ ৯:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি॥ নবীগঞ্জে জ্ঞানের আলো কোচিং সেন্টারে ছাত্র-ছাত্রী পড়ানের সুযোগ ব্যবহার করে প্রতিষ্ঠানটির মালিক মুছা মিয়া তালুকদার নামে এক কথিত শিক্ষকের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকজন ছাত্রীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, মুছা মিয়া তালুকদার নবীগঞ্জ উপজেলার রসুলগঞ্জ বাজারের জ্ঞানের আলো কোচিং সেন্টারের শিক্ষক ও পাইকপাড়া গ্রামের মুজিবুর রহমান তালুকদারের পুত্র।  সম্প্রতি দেশে করোনা ভাইরাস ও জাতীয় শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে কোচিং-প্রাইভেট নিষিদ্ধ করার কথা থাকলেও তিনি তার কোচিং সেন্টারে ১৫ মার্চ ২০২০ তারিখ পর্যন্ত  ব্যবসা চালিয়েছেন। শুধু কোচিং বাণিজ্যই নয়, এর আড়ালে তিনি ছাত্রীদের সাথে প্রেমের অভিনয় করে  শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলছেন মর্মে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গত কয়েকদিন যাবত বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমসহ ফেসবুকে চলছে নানান আলোচনা-সমালোচনা।

ছবিঃ আলোচিত সেই কোচিং সেন্টার; ইনসেটে মুছা মিয়া।

স্থানীয় রসুলগঞ্জ বাজারের সুমন মিয়ার মার্কেটের ২য় তলা ভাড়া নিয়ে গত ১ বছর যাবত মুছা মিয়া তালুকদার কোচিং সেন্টারটি পরিচালনা করে আসছিলেন। শুরু থেকেই তার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানিসহ নানান অপকর্মের অভিযোগ পাওয়া যায়। ‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’ পত্রিকায় প্রদত্ত ১ মিনিট ৩৯ সেকেন্ডের ভিডিওতে জনৈক ছাত্রীর সাথে কোচিং সেন্টারের ভেতরে অনৈতিক সম্পর্কে লিপ্ত থাকা অবস্থায় তাকে দেখা যায়। অন্য আরেকটি স্বীকারোক্তিমূলক রেকর্ডেমুছা মিয়া তালুকদারের অনৈতিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকার বিষয়টির প্রমাণ পাওয়া যায়।

অভিযুক্ত শিক্ষক মোসা তালুকদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ষড়যন্ত্রমূলক ভাবে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হয়েছে। আমি এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছি। আমার কোচিং সেন্টারের ঘটনাটির সাথে আমি জড়িত নই। ভিডিওতে দৃশ্যমান পুরুষও আমি নই। আমার কোচিং সেন্টারের দরজা ভেঙ্গে কে বা কারা ভেতরে প্রবেশ করে এ ধরনের অনৈতিক কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছে।

এ প্রতিবেদকের কাছে নিজেকে নির্দোষ দাবী করে একটি কথিত জিডির কপিও পাঠান তিনি। তবে ওই জিডিতে সংশ্লিষ্ট থানার কোন রিসিভ বা ক্রমিক নাম্বার না থাকায়, নবীগঞ্জ থানায় যোগাযোগ করা হলে নবীগঞ্জ থানার ওসি মোঃ আজিজুর রহমান জানান, এ ব্যাপারে এখনও কোন জিডি পাওয়া যায়নি। কোচিং সেন্টার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। কোন অনৈতিকতার অভিযোগ পাওয়া গেলে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ছবিঃ অভিযুক্ত মুছা মিয়ার পাঠানো কথিত জিডি’র কপি।

রসুলগঞ্জ বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক সামাদুল হক চৌধুরী বলেন, ‘ইতোমধ্যে তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ পাওয়া গেছে। অনেকগুলো বাদ দেয়া হয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিক বিষয়টি বাদ দেয়া যায় না। যা ঘটেছে তা সত্য। ভিডিও টি আমরাও দেখেছি। এর সাথে মুছা মিয়া তালুকদারের পুরোপুরি মিল আছে। আগামীকাল (৪ এপ্রিল) শালিস বিচারের মাধ্যমে এর সমাধান করার চেষ্টা করা হবে।

স্থানীয় অধিবাসী মোহাম্মদ কবির আলী জানান, আমরা আমাদের ছেলে মেয়েদের নিয়ে আতংকে আছি। কোচিং সেন্টারে যদি এই ধরনের অনৈতিক কার্যক্রম চলে তাহলে অভিভাবক হিসেবে আমরা খুবই শঙ্কিত আশা করি, আইন শৃংখলাবাহিনী বিষয়টি তদন্ত করে যথাযথ আইনী পদক্ষেপ নিবে।

Developed By The IT-Zone