ঢাকামঙ্গলবার , ২৮ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জে কম্বাইন হারভেস্টার মেশিন দিয়ে চলছে ধান কাটা

অনলাইন এডিটর
এপ্রিল ২৮, ২০২০ ৭:২৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোঃ হাসান চৌধুরী, নবীগঞ্জ।। নবীগঞ্জ উপজেলায় বোরো ধান কাটা পুরোদমে শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে হাওরের প্রায় ৬৫ শতাংশ ধান কর্তন করা হয়েছে। এবার দ্রুত ফসল ঘরে তুলতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার কম্বাইন হারভেস্টার মেশিন দিয়ে চলছে ধান কর্তন।প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় হাওরবাসীর জন্য সনাতন পদ্ধতির বাইরে ভর্তুকি দিয়ে এই ডিজিটাল সেবা ব্যাপকভাবে চালু হওয়ায় খুশি কৃষকরা। এদিকে কৃষকদের পাশে থাকতে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসন বদ্ধ সংকল্পবদ্ধ। ধান কর্তনে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগেও বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।শ্রমিক সঙ্কট রোধ, জরুরী ভিত্তিতে ধান কাটার পরামর্শ,বাইরের শ্রমিকদের জন্য খাদ্য সহায়তা ও স্বাস্থ্যঝুঁকি কমাতে মাঠ পর্যায়ে নানা কার্যক্রম চালানো হচ্ছে।এছাড়া নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কুমার পাল প্রায়ই বিভিন্ন হাওরে গিয়ে কৃষকদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন এবং খাদ্য সহায়তা প্রদান করছেন।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলায় এবার ১৭ হাজার ৭৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধান আবাদ হয়েছে। আগাম বন্যা বা অন্য কোনও দুর্যোগ থেকে রক্ষা পেতে শতকরা ৮০ ভাগ পাকলেই এই ধান কেটে ফেলার পরামর্শ দেয় কৃষি বিভাগ। ইতিমধ্যে গত ২০ এপ্রিল থেকে পুরোদমে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। দ্রুত ফসল ঘরে তুলতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ১৫টি কম্বাইন হারভেস্টার মেশিন বরাদ্দ হয়েছে এ উপজেলায়। তাই সোনার ফসল তুলতে কর্মযজ্ঞ চলছে জোরেশোরে। শ্রমিক সঙ্কটের সমস্যা দূর করছে এই কম্বাইন হারভেস্টার মেশিন। কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন দিয়ে একদিনেই প্রায় ৫ একর জমির ধান কাটা ও মাড়াই করা যায়।

উপজেলার গজনাইপুর গ্রামের কৃষক আবুল মিয়া বলেন, আমাদের এলাকায় এক একর জমিতে ধান কাটা মাড়াই করতে সব মিলিয়ে শ্রমিকের খরচ প্রায় ১০ হাজার টাকার মতো লাগে। তাও এখন করোনার মহামারীর মাঝে শ্রমিক পাওয়া যায় না। হারভেস্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটা মাড়াই ও বস্তাবন্দী করে বাড়িতে বহন করা যায় ৬-৭ হাজার টাকার মধ্যে।

নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ.কে.এম মাকসুদুল আলম বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে হওয়ায় এ বছর নবীগঞ্জ উপজেলায় ভালো ফলন হয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ, আগাম বন্যা, ভারী বৃষ্টিপাত থেকে বোরো ধান রক্ষায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে শ্রমিক সঙ্কট রোধ, বাইরের জেলা থেকে শ্রমিক সংগ্রহ করা হয়েছে। এমনকি প্রত্যেক ইউনিয়নে শ্রমিকদের তালিকা করে দল গঠন করা হয়েছে।

হবিগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. তমিজউদ্দিন খান বলেন, মাঠে ফলন ভাল হয়েছে। কোথায় কোনও সংকট নেই। জেলা প্রশাসক শ্রমিকদেরকে ত্রাণ প্রণোদনা দিচ্ছেন, তাতে শ্রমিকরা উৎসাহ পাচ্ছে। কৃষি বিভাগ মনিটরিং করছেন। ৮০ ভাগ ধান পাকতে সময় লাগবে প্রায় ১৫ থেকে ২০ দিন। তবে ধান কাটা চলছে। মেশিনের ও শ্রমিকের কোনও সমস্যা নেই।সম্প্রতি নবীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন হাওরপাড়ে গিয়ে খোঁজ খবর নেন হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান। এ সময় তিনি শ্রমিকদের খাদ্য সহায়তা, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার উদ্যোগ, কম্বাইন্ড হারভেস্টার মাধ্যমে দ্রুততম সময়ে ধান কাটার পরামর্শ দেন। পরে শ্রমিকদের মাস্ক, সাবান, তেল, চাল, আলুসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাবার প্রদান করেন। যাতে কৃষকরা শ্রমিক নিয়ে সঙ্কটে না পড়েন।

হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, সামান্যতম ফসলের ক্ষতি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা হচ্ছে এবং নেওয়া হয়েছে সমন্বিত উদ্যোগ। শ্রমিক সংকট লাগব করতে মৌসুমী বেকার শ্রমিকদের তালিকা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, আবহাওয়া ভালো রয়েছে। আশা করি কৃষক ধান ঘরে তুলতে পারবে। শ্রমিক সঙ্কট নেই। সঙ্কটের ব্যাপারে অবগত করলে তাৎক্ষনিক সমাধান হচ্ছে। প্রশাসন রয়েছে সজাগ।

এদিকে কৃষকগণ জানান, জেলা প্রশাসন যে উদ্যোগ নিয়েছেন তাতে তারা খুশি। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে ধান ঘরে তুলতে পারবেন কৃষকরা। তারা কাজ করতে কোন সমস্যায় পড়ছেন না। তবে কাজ শেষে ঘরে ফেরা ও ফসলের মাঠে আসা-যাওয়াতে পরিবহন সংকট রয়েছে। কৃষকদের সকল সমস্যা সমস্যা সমাধান করতে কৃষিবান্ধব সরকারকে আরও আন্তরিক হওয়ার আহবান সচেতন মহলের।

Developed By The IT-Zone