ঢাকারবিবার , ১৪ নভেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জের বড় ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়নে লড়াই হবে ত্রিমুখী

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
নভেম্বর ১৪, ২০২১ ৭:০৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মোঃ হাসান চৌধুরী নবীগঞ্জ থেকে  :   আগামী ২৮ই নভেম্বর নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। তন্মধ্যে ১নং বড় ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন ৩ জন প্রার্থী। আর এই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৩জনের মাঝেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই  হবে বলে আগাম ধারনা সাধারন ভোটারদের।
ইউপি নির্বাচনে-আওয়ামীলীগ মনোনীত ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান সমর চন্দ্র দাশ (নৌকা) স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সত্যজিত দাশ(চশমা) ও রঙ্গলাল (ঘোড়া) প্রতীক  নিয়ে নির্বাচনী মাঠে লড়ছেন।
এ ইউনিয়নে মোট ভোটার হচ্ছেন ১৩ হাজার ৩৩৪ জন। তন্মধ্যে পুরুষ ৬ হাজার ৫৮৫ জন ও মহিলা ৬ হাজার ৭৪৯ জন। নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীরা চালাচ্ছেন উঠান বৈঠক, প্রচার-প্রচারণা। ইতিমধ্যে প্রার্থীদের প্রচারনায় সরগরম হয়ে উঠেছে নির্বাচনী মাঠ। প্রত্যেক প্রার্থী এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। প্রার্থীদের  অব্যাহত প্রচারণায় দিন দিন বদলে যাচ্ছে ভোটের সমীকরণ । এর মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে  প্রচারণায় থাকার কারণে , প্রচারণায় দুই  স্বতন্ত্র প্রার্থী সত্যজিত দাশ ও রঙ্গলাল দাশ প্রচারণায় এগিয়ে আছেন।

ছবি : নবীগঞ্জের বড় ভাকৈর পশ্চিম ইউনিয়নে লড়াই হবে এই তিন প্রার্থীর

আওয়ামী লীগের প্রার্থী যাচাই বাছাইয়ের  জটিলতায় একক ভাবে কোন প্রার্থী আগে থেকে প্রচারণায় না থাকায়,দলীয় নেতা কর্মীরা দিন রাত শ্রম দিয়ে সেই ঘাটতি পূরণ করছেন। সময় যত যাচ্ছে আওয়ামীলীগের মনোনীত  প্রার্থী  সমর চন্দ্র দাশ ও চলে এসেছেন সামনের কাতারে । সাধারন ভোটারদের সাথে আলাপ করে এমন তথ্য পাওয়া যায়।
ভোটাররা বলছেন অত্র ইউনিয়নে সব সময় ভোট সুষ্ঠু  ও নিরপেক্ষ ভাবে অনুষ্ঠিত  হয়। তাই শেষ বিজয়ের হাসি কে হাসবেন তা এই মূহুর্তে  বলা কঠিন। ইউনিয়নের  গ্রাম, পাড়া-মহল্লা চষে বেড়াচ্ছেন প্রার্থীরা দিবা-রাত।
সাধারণ ভোটারদের সাথে আলাপ করে জানা যায় এ ইউনিয়নে প্রতিদ্বন্ধী ৩ জনই নিরলসভাবে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। ফলে সরকার দলীয় প্রতীক  নৌকার প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান সমর চন্দ্র দাশ, বর্তমান চেয়ারম্যান  সত্যজিত দাশের চশমা প্রতীক এবং হঠাৎ করে উড়ে আসা টাকার কুমির, রঙ্গলাল দাশের ঘোড়া মার্কার ত্রিমুখী লড়াই হবে।
এ ইউনিয়নের অধিকাংশ প্রার্থী ও ভোটারদের ধারনা উক্ত ইউনিয়নে সর্বোচ্চ ভোট হলো সনাতন ধর্মালম্বী সম্প্রদায়ের, আর ওই ইউনিয়নের ৩জন চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সনাতন ধর্মালম্বী। জন্মলগ্ন  থেকে এই ইউনিয়নে অন্য ধর্মাবলম্বী কেউ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে পারে নি।
ভোটারদের সাথে  আলোচনায় জানা যায়, মুসলিম সম্প্রদায়ের ভোট এই ইউনিয়নের নির্বাচনে একটা বড় ভূমিকা রাখে। এই ভোট যার দিকে যায় তার জয়ের পাল্লা ভারী হয়ে উঠে। বিগত নির্বাচন গুলোতে এর প্রমাণ পাওয়া গেছে বিভিন্ন সময়। বর্তমান চেয়ারম্যান সত্যজিত দাশ  ও রঙলাল দাশ দুইজনই এই ভোট নিয়ে  টানাটানি করছেন।
এইখানে সত্যজিৎ দাশের ভোট ব্যাংকে ভাগ বসিয়েছেন রঙলাল দাস। যদিও রঙলাল দাশ স্থানীয় বাসিন্দা না হওয়াতে শুধু টাকা বিলিয়ে  চেয়ারম্যান হয়ে যাবেন বলে মনে করছেন না সাধারণ সচেতন মানু্ষজন। আর এই জায়গায় ভাল অবস্থানে আছেন নৌকার প্রার্থী সমর চন্দ্র দাশ।
কারণ প্রত্যেক গ্রামেই নৌকা প্রতীকের নির্দিষ্ট  ভোট আছে। তাই সবাই  অপেক্ষা  করছেন ২৮ তারিখের। তবে অনেকেই অভিযোগ করছেন, অতীতে এই ইউনিয়নে টাকার ছড়াছড়ি কিংবা টাকা দিয়ে ভোট কেনার কোন ইতিহাস ছিল না। এইবারের নির্বাচনে টাকা দিয়ে ভোট কেনার যে প্রচলন শুরু হয়েছে, তা আমাদের ঐতিহ্য ও সম্প্রিতীর মধ্যে ফাটল ধরাবে।
 ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে কোন ঝামেলা ছাড়াই হওয়ার ভোট হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ভোটারা।
আগামীকাল থাকছে নির্বাচনী হালচাল-২য় পর্ব

Developed By The IT-Zone