ঢাকারবিবার , ১২ জানুয়ারি ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জের পাহাড়ের পাদদেশে শিম চাষ : বিদেশে রপ্তানীর সম্ভাবনা

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
জানুয়ারি ১২, ২০২০ ৫:৫৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সলিল বরণ দাশ, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) থেকে॥ নবীগঞ্জে পাহাড়ের পাদদেশে জৈব সার ব্যবহার করে অল্প খরচে বেশি লাভ হওয়ায় শীতকালের জনপ্রিয় সবজি শিম চাষ করে স্বাবলম্বী হয়ে উঠছেনে নবীগঞ্জ উপজলোর পানিউমদাসহ বেশ কয়কেটি ইউনয়িনের কয়েকটি গ্রামের শতাধিক কৃষক। প্রতি বছরের মতো এবছরও নবীগঞ্জের বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে ব্যাপক আবাদ হয়েছে শীতের সবজি শিম। ঢাকা-সিলটে মহাসড়ক সংলগ্ন পাহাড়ী এলাকা দিনারপুর অঞ্চলের পানিউমদা ইউনয়িনের মাঠজুড়ে শুধু শিম বাগান আর শিমের বাগান। এছাড়াও নবীগঞ্জের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বাণজ্যিকিভাবে বাড়ছে শিমের চাষ। এখানকার আবাদি জমির একটি বড় অংশে গত দুই যুগের মতো নিজ উদ্যোগে কৃষকরা নানা পদ্ধতিতে বিভিন্ন জাতের শিম চাষ করে আসছেন। গত কয়েক বছর সবজি আবাদের তালিকায় সবচেয়ে বেশি যোগ হয়েছে শিম। এ আবাদ প্রতিবছরই বেড়ে চলছে। এলাকার শিক্ষিত বেকার যুবকও পড়াশোনার পাশাপাশি অনেকেই অল্প পুজিঁতে বেশি আয়ের আশায় এই সবজি চাষ শুরু করেছেন।
নবীগঞ্জ কৃষি অফিসের হিসাব মতে, উপজলোয় এ মৌসুমে প্রায় ৪৫০ হেক্টর জমিতে পুটি, কাইট্টা, গোয়ালগাধা ও আশ্বিনা জাতের কয়েকপ্রকার শিমের চাষ করা হয়েছে।

সরেজমিনে উপজলোর বড়চর, বড়গাঁও, রোকনপুর, খাগাউরা, দত্তগ্রামসহ এলাকা বিভিন্ন গ্রামের মাঠ ঘুরে দেখা যায় এলাকাগুলো যেন শিম দিয়ে ঘেরা। এসব গ্রামে শিমের ব্যাপক আবাদ হওয়ায় শিমরে বাগান দেখলে যনে মনে হয় ‘শিমের মহাসাগর’। প্রতিটি কৃষক পরিবারই তাদের আবাদি জমিতে নানা পদ্ধতিতে শিম চাষ করছেন। মাঠের পর মাঠ ঘিরে রয়েছে সবুজ শিম ক্ষেত।

 

কৃষি অফিস ও এলাকাবাসী জানান, এ সব এলাকার অধিকাংশ জমিই শিম চাষের জন্য উপযোগী। মাঠের পর মাঠ এক সময় বিভিন্ন সবজিতে ঠাসা থাকলেও প্রায় এক যুগ ধরে স্থানীয় কৃষকরা নিজ উদ্যোগে শিম চাষ শুরু করেছেন।
বড়চর গ্রামের কলেজ ছাত্র রুয়েল আহমদে জানান তিনি লেখাপড়ার পাশাপাশি শিম চাষ করেন। এ মৌসুমে এক একর জমিতে শিম চাষে ব্যয় করেছেন ৩০ হাজার টাকা এবং এখন পর্যন্ত প্রায় ৪০ হাজার টাকার শিম বিক্রি করেছেন, আরো ৩০-৩৫ হাজার টাকার শিমি বিক্রি করতে পারলে ব্যাপক লাভবান হবেন বলে তিনি আশাবাদী।

মাসুম আহমদে, আব্দুল্লা-আল মামুনসহ বেশ কয়কেজন প্রান্তিক চাষী জানান, ৭-৮ বছর ধরে তারা শিম চাষ করছেন। অন্য সবজির চেয়ে এর ফলন ভাল হওয়ায় শিম চাষে ব্যাপারে কৃষকদের আগ্রহ ক্রমে বৃদ্ধি পাচ্ছে।
স্থানীয় কৃষকদের ভাষ্যমতে ভালো ফলন ও ভালো দাম ফলে বিঘাপ্রতি ২০/২৫ হাজার টাকার মতো খরচ করে এক লাখ টাকার শিম বিক্রি করা সম্ভব।

পাইকারদের কাছে প্রতি কেজি শিম ২৫ টাকা ধরে বিক্রি করছেন কৃষকরা। অনেকস্থানে সবজি বাজারে শমি খুচরা মূল্য ৪৫-৫০ টাকা প্রতি কেজি ধরে বিক্রি হচ্ছে। শিম কেনা-বেচাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় দিগাম্বর এলাকার গড়ে উঠেছে পাইকারী কাঁচা বাজার।
স্থানীয় দিগম্ভর ও বড়চর পাইকারী কাঁচা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, পুরো বাজার শিমে ভরে গেছে। এখান থেকে মৌলভীবাজার, সিলেট, সুনামগঞ্জ ও সিলেটের বাহিরের অনেক পাইকাররা সবচেয়ে বেশি শিম কিনে নিয়ে যায়। প্রতিদিনই ট্রাক লোড হয় এখান থেকে। এখনকার কৃষকরা শিম চাষ করে তাদের জীবন-জীবিকা নির্বাহ করছে ও র্আথিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে কৃষকরা।

 

চাষীরা জানান, আধুনিক প্রশিক্ষণ ও সংশ্লিষ্ট দফতরের নিয়মিত তদারকি থাকলে কৃষকরা শিম সহ বিভিন্ন সবজি চাষ করে গোটা নবীগঞ্জ উপজলোর র্অথনীতিকে শক্তিশালী ও নিজিদেরও র্আথসামাজিক মর্যাদাও বাড়াতে সক্ষম হবে। সবজি চাষে আগ্রহ বাড়াতে সার-বীজসহ সার্বিক সহযোগীতার মাধ্যমে সরকারকে আরো আন্তরকি হওয়ার দাবী কৃষকদের।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজলো কৃষি র্কমর্কতা একেএম মাকসুদুল আলম জানান, কৃষি র্কমকর্তারা সার্বক্ষণিক শিম চাষীদের পরার্মশ দিয়ে যাচ্ছে কিভাবে জৈব সার ও পোকা-মাকড় নাশক প্রযুক্তি ব্যবহার করে বীষমুক্ত শিমরে বাম্পার ফলন করা যায় । এ মৌসুমে প্রায় ৪৫০ হেক্টর জমিতে ৮১০০ টন শিম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, নবীগঞ্জবাসীর জন্য খুশির সংবাদ হচ্ছে, নবীগঞ্জের শিম দেশে বাহিরে রপ্তানির জন্য শিম পরীক্ষা নিরিক্ষা করা হচ্ছে। খুব শীঘ্রই নবীগঞ্জের শিম দেশের বাহিরে ইউরোপ-আমেরিকা সহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে ও রপ্তানি করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশাবাদী।

Developed By The IT-Zone