ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নবীগঞ্জের দেবপাড়া ইউপি সচিব তৌফিক ইমামের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত

তাজুল ইসলাম ,নবীগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২২ ৯:০৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়ন সচিবের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে অফিস কার্যক্রম বুঝিয়ে না দেওয়া এবং বিভিন্ন দূর্নীতির লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন উক্ত ইউনিয়নের নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান শাহরিয়াজ নাদির সুমন।

১৪ ফেব্রুয়ারি অভিযোগের ভিত্তিতে বুধবার (২৩ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টার সময় তদন্তে আসেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন আহমদ।

অভিযোগে উল্লেখ,বিগত ৯জানুয়ারি ২০২২ইং তারিখে দ্বায়িত্বভার গ্রহণ করেন শাহরিয়াজ নাদির সুমন। কিন্তু (প্রশাসনিক কর্মকর্তা) সচিবকে বারবার বলার পর ও দ্বায়িত্বভার বুঝিয়ে দিতে অনীহা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, গত ২০২১ ইং সালের জানুয়ারি মাস থেকে ভিজিডির চাল দেওয়া হয় এবং প্রত্যেক কার্ডধারীদের সঞ্চয়ের টাকা জমা নেওয়া হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো কার্ডধারীদের হাতে কার্ড পৌছায়নি এবং প্রত্যেক কার্ডধারীর ব্যাংক এশিয়াতে একাউন্ট থাকার কথা থাকলে ও এখন পর্যন্ত কারো কোনো একাউন্ট খুঁজে পাওয়া যায় নি।

নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান দ্বায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে ইউনিয়ন সচিব ঠিক মতো অফিসে ও আসেন না যার ফলে জন্ম নিবন্ধনসহ নানা কার্যক্রমের ব্যাঘাত ঘটছে। এবং ভিজিডির কার্ড ও সঞ্চয়ের টাকার কথা জানতে চাইলে তিনি জানান,কার্ড এবং টাকা উনার কাছে জমা আছে।

প্যানেল চেয়ারম্যান গঠন, ওয়ার্ড সভা,কম্বল বিতরণ, সচিব চেয়ারম্যানকে অফিসের দায় দ্বায়িত্বে বুঝিয়ে না দেওয়ায় অসম্পূর্ণতার কারণে এগুলো অসমাপ্ত রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিস থেকে অভিযোগ তদন্তের জন্য সশরীরে উপস্থিত থাকার জন্য সচিবকে চিঠি দিলে ও তিনি হাজির হননি এবং উনার সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে মোবাইল ফোন ও বন্ধ দেখায়।

সচিবের অনুপস্থিতিতেই তদন্তে ইউএনও জানতে চাইলে ইউনিয়নের (সাবেক সদস্য) সদস্য আব্দুল মুকিত চেয়ারম্যানের দায়ের করা অভিযোগ সত্য বলে জানান এবং তিনি ও ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে উনার ওয়ার্ডের তিনজন ভিজিডির চালের উপকারভোগী চাল পান না। বর্তমানে তাদের কার্ডের কোনো হদিস নেই।

সাবেক (প্যানেল চেয়ারম্যান) সদস্য বশির আহমদ, (সাবেক সদস্য) সংরক্ষিত মহিলা সদস্য মায়ারুন আক্তার, তারা জানান, জানুয়ারি ২০২১ ইং থেকে জুন ২০২১ পর্যন্ত চাল পান নাই,পরবর্তীতে ২০২১ ডিসেম্বরে চাল দেওয়া শুরু করলে ও বই দেওয়া হয় নাই।

উপকার ভোগীর বইগুলো বর্তমানে সচিবের কাছে রয়েছে। সাবেক পরিষদের সদস্যরা বিগত দুই বছর যাবৎ কোনো সম্মানী পান নাই।

কিন্তু সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মুহিত চৌধুরীর ক্ষমতা হস্তান্তরকালে তিনি উনার বক্তব্যে বলেছিলেন,বিদ্যুৎ বিল এবং সাবেক সদস্যদের সম্মানি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে দেখা যায় ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত ৬৮৩৮৩ টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে।

বিগত দিনে ইউনিয়নের সদস্যরা কোনো প্রকল্পের কাজ করলে ও সচিবের কাছ থেকে চেকে কোনো টাকা পান নাই। তিনি নিজে টাকা তুলে এনে পরিমাণের চাইতে ও কম টাকা হাতে দিতেন। এমনকি ৭,৮,৯ সংরক্ষিত মহিলা সদস্য মায়ারুন জানান,উনার ২০২০ সালের একটা প্রকল্পের কাজের ২০ হাজার টাকা এখনো বাকি আছে। এছাড়াও জন্ম নিবন্ধন, ওয়ারিশান সার্টিফিকেট সহ সব জাগাতেই দূর্নীতির সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছিলেন সচিব তৌফিক ইমাম (পলাশ)।

উক্ত ইউনিয়নের সকলই সদস্যদের ও অভিযোগ সচিব নিয়মিত অফিসে না আসার ফলে জন্মনিবন্ধন সহ বিভিন্ন কাজে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

তদন্তে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ মহিউদ্দিন আহমদ বলেন,সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী কর্মকর্তা কর্মচারীগণ জনগণের কাজে ২৪ ঘন্টা নিয়োজিত থাকবে। কিন্তু দেবপাড়া ইউনিয়নের সচিব এইচ এ এম তৌফিক ইমাম (পলাশের) বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়।

যেহেতু ভিজিডির আনুমানিক ৪ লাখ ৪৪ হাজার টাকা আত্মসাত করে নিজের কাছে গচ্ছিত রাখা,এমনকি নিয়মবহির্ভূত ভাবে ভিজিডির কার্ড নিজের কাছে গচ্ছিত রাখা,সদস্যদের সম্মানি আত্মসাৎ ,কম্বলসহ বিভিন্ন ধরনের বিতরণ না হওয়া,ইউনিয়ন পরিষদের কোনো ধরনের কাগজ পত্র নবনিযুক্ত চেয়ারম্যানকে বুঝিয়ে না দেওয়া,ভিজিডি সঞ্চয়ের কার্ডে সাবেক চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর না নেয়া এবং হিসাব ও অসম্পূর্ণ, সেহেতু পরবর্তী নির্দেশনা দেওয়ার আগ পর্যন্ত তার সকল প্রকার সম্মানি বন্ধ এবং সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ প্রদান করা হয়।

তদন্তে সচিবের বিরুদ্ধে আনিত সর্বপ্রকার অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। খুব দ্রুত তাকে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন ইউএনও শেখ মহি উদ্দিন ।

 

Developed By The IT-Zone