ঢাকারবিবার , ২৪ এপ্রিল ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি ও ভোক্তার দায়

অনজন কুমার রায়
এপ্রিল ২৪, ২০২২ ৪:৪৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পাড়ার গলির দোকানে এক কেজি বিস্কুটের দাম ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা। বর্তমান সময়ে মধ্যবিত্ত্বের জন্য সস্তা দামই মনে হয়। তাই, পাড়ার অন্যদের মতো আমিও সেখান থেকে এক কেজি টোস্ট বি¯কুট কেনার চেষ্টা করি। যদি পাড়ার গলি ধরে দুই মিনিট হাঁটি সেখানে এক কেজি বিস্কিটের দাম ৪০০ থেকে ৫৫০ টাকা! এত দাম দিয়ে বিস্কুট কেনার সাধ্য হয়তো কিছু মানুষের আছে তবে অনেকের নেই।

শুধু আমাদের পাড়ার গলির সামনের দোকানে নয়, সারা দেশেই এমন দৃশ্য দেখতে পাওয়া যায়। পার্থক্য শুধু নামি-দামী ব্র্যাণ্ড এবং স্থান কালের। ব্র্যাণ্ডের জিনিস হলে দাম বাড়বে তা আমরা অতি সহজেই মেনে নেই। আমাদের বদ্ধমূল ধারণা, দামী জিনিস মানেই ভাল জিনিস, ‘অর্গ্যানিক’ মানেই ফ্রেশ খাবার! সুপারশপ মানেই ব্র্যাণ্ড।

তাই, অর্গ্যানিক খাবার কিংবা সুপারশপে জিনিপত্রের দাম বেশি হবে। ফলে, সে সকল দোকানগুলোতে দাম বাড়ানো অতি সহজ। তাই, সুপারশপে এক কেজি কাঠ বাদাম বা কাজু বাদামের দাম মুদির দোকানের প্রায় দ্বিগুণ! ব্র্যাণ্ডের তফাৎ হলে অবশ্যই এক কেজি কাজু বাদাম কিংবা কাঠ বাদামের দাম দ্বিগুণ হবার কথা নয়। তারপরও, সে সকল জায়গা থেকে বেশি দাম দিয়ে পণ্য কিনতে আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি।

তাই, সেক্ষেত্রে এক কেজি বিস্কুটের দামের হের-ফেরে কিছু যায় আসে না। আবার এমন অনেক দোকান আছে তাদের স্বকীয়তা বজায় রাখতে দাম নির্ধারণে উচ্চ মূল্যকে প্রাধান্য দিয়ে থাকে। গ্রাহক, দামের বিবেচনায় ভাল জিনিস ভেবে চাহিদা তৈরি হয়।

চাহিদা বেড়ে গেলে স্বাভাবিকভাবেই দাম বেড়ে যায়। আবার, পণ্যদ্রব্য উৎপাদন কিংবা সরবরাহের ক্ষেত্রে এক নীতি প্রবর্তন থাকায় বিদ্যমান বাজার ব্যবস্থায় ভোক্তাদের ভোগান্তিতে ফেলে দিচ্ছে। যার ফলে প্রভাবশালী প্রতিষ্ঠানগুলো সম্পূর্ণ বাজার ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। তাই, উৎপাদন থেকে শুরু করে খুচরা পর্যন্ত দ্রব্যমূল্য নির্ধারণে এ সকল প্রতিষ্ঠান প্রধান নিয়ামক ভূমিকা পালণ করছে।

প্রায় বছর চারেক আগের কথা। আমার অসুস্থ বাবার জন্য একটি ভাল কোম্পনীর এক কৌটা ঔষধ কিনতাম ১৫০ টাকা দিয়ে। কয়েক মাস কেনার পর দেখি, পাত্রটির মোড়ক পাল্টিয়ে ২৪০ টাকা মূল্য পুন:নির্ধারণ করা হলো! এক লাফে দাম বৃদ্ধি ৬০ শতাংশ! যদিও কোন দ্রব্যের দাম সাধারণত দ্রব্যের চাহিদা এবং ভোক্তার আয়ের সাথে সম্পর্কিত।

মূল্যস্ফীতির সাথে দাম বৃদ্ধির কোন সম্পর্কই খুঁজে পেলাম না। জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর থেকে কয়েকদিন আগে হবিগঞ্জে একটি নামী-দামী জুতা দোকানের শো- রুমে অভিযান চালায়। সেখানে দেখতে পায় প্রকৃত দামের উপরে নতুন দাম নির্ধারণ করে ট্যাগ লাগানো হয়েছে।

আমাদের পকেটে টাকা থাকলে দাম-দর করার ফুরসত হয় না। সেক্ষেত্রে পণ্য পছন্দই মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। অল্প টাকার জিনিস বেশি টাকা দিয়ে কিনতে কার্পণ্যবোধ করি না। কিন্তু, বাজারে ভোজ্য তেল কিংবা পেয়াজের দাম হঠাৎ করে বেড়ে গেলে আমরা হাফিয়ে উঠি। অথচ, প্রতিদিন খাবারের জন্য শুধু ভোজ্য তেল এবং পেয়াজের হিসাব কষলেই তো হয় না।

একটি পণ্যের দাম বাড়লে, অন্য পণ্য কেনা সাধ্যের বাইরে চলে যায়। জিনিস পছন্দ হলেই যে অতিরিক্ত দামে কিনতে হবে তা তো নয়। একজন বেশি দামে পণ্য কিনলে তা অন্যকেও ভোগান্তির শিকার হতে হয়।

বিশ্লেষকদের মতে, কোভিডকালীন সময়ে জিনিসপত্রের দাম বাড়ার বিষয়টি প্রত্যাশিত। ইতোমধ্যে, কর্পোরেট জগত কোভিডের বিপর্যয় কাটিয়েছে। তবে, কোভিড পরিস্থিতিতে ব্যবসায়িক মন্দাজনিত কারণে ব্যবসা আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। যার নেতিবাচক প্রভাব এখনো রয়েছে। ফলে, কিছু কিছু ব্যবসায়ী ভোক্তাদের উপর সেটা চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। মূলত: মূল্যস্ফীতিকে দাম বাড়ানোর হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে। তাই করোনা মহামারীর কারণে নিত্যপণ্য থেকে সবকিছুর দাম চড়া। ফলে, মানুষের জীনযাত্রার মান বেড়ে যাচ্ছে।

তবে, ২০০৮ সালের পর পৃথিবী এখন সর্বোচ্চ মূল্যস্ফীতির সামনে। অন্যদিকে, ব্যাংকগুলো থেকে ঋণের বিপরীতে কম সুদের হারের মতো ব্যবস্থা ভোক্তাদের ক্রয় ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। সেক্ষেত্রে ভোক্তার চাহিদা পণ্যমূল্যের দাম বাড়াতে ভূমিকা রাখে।

অপরদিকে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে শস্য উৎপাদন বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। ২০২১ সালে ঋঅঙ সতর্ক করে বলেছে, জলবায়ুর প্রভাবজনিত বিপর্যয় কৃষি সরবরাহকে প্রভাবিত করবে। যা নিম্ন ও নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশগুলোয় ফসলের এক তৃতীয়াংশ ক্ষতির জন্য দায়ী। যদিও ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি বৈশ্বিক মূল্যস্ফীতি ও জীবন যাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির সাতটি কারণ চিহ্নিত করেছেন।

কারণগুলো হচ্ছে জ্বালানি তেলের উচ্চ মূল্য, ভোগ্যপণ্য ও গৃহস্থালী উপকরণের সরবরাহে ঘাটতি, পরিবহন ও শিপিং ভাড়ার ঊর্ধ্বমুখিতা, মজুরি বৃদ্ধি, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব, বাণিজ্যে বাধা এবং মহামারি কেন্দ্রিক সহায়তা হ্রাস। অনেক ক্ষেত্রে মূল্যস্ফীতি ক্ষণস্থায়ী হয়ে থাকে। যার ফলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ঠিক হয়ে যায়। কিন্তু, আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে সে অবস্থা সুখকর নয়।

একবার কোন দ্রব্যের দাম বেড়ে গেলে দ্রব্যটির দাম কমানো খুব কঠিন হয়ে যায়। সরকার চেষ্টা করলেও বাজার ব্যবস্থাকে পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। তার প্রকৃষ্ট উদাহরণ হলো ভেনেজুয়েলা। ২০১০ সালে ভেনেজুয়েলায় খাদ্য ঘাটতি এবং উচ্চ মূল্যস্ফীতি দেখা দেয়। তার কারণ ছিল সরকার কর্তৃক বাজার ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণে নেয়া।

দেশটির সরকার বেসরকারী বিক্রেতাদের কাছ থেকে খাদ্য সবরাহ করে মূল্য নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিল। ফলে, দ্রব্যের সরবরাহ কমে গিয়েছিল এবং সরকার দুর্নীতির অভিযোগের সম্মুখীন হয়েছিল। অন্যদিকে, ভোক্তার দায় নিয়ে কথা থেকে যায়। বাজারে কোন একটি জিনিসের চাহিদা বেড়ে গেলে আমরা ক্ষেত্র বিশেষে কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি করে থাকি।

চাহিদা বাড়তে থাকলে এক পর্যায়ে চাহিদার সাপেক্ষে সরবরাহ দেয়া সম্ভব হয় না। ফলে, দ্রব্যমূল্য বাড়তে থাকে। আমাদের দেশে বছরের কোন একটা সময়ে এক বিশেষ ধরণের পণ্যের চাহিদা বেড়ে যায়। তাই, দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়ার ভয়ে আমরা (ভোক্তা) দ্রব্যটি বেশি পরিমাণে কেনার চেষ্টা করি। ফলে, কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি হয়।

গেল বছর হঠাৎ করে পেয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় আমার এক বন্ধুকে একই সাথে ২০ কেজি পেয়াজ কিনতে দেখলাম। আমি অনেকটা বিস্ময়ের সাথে তাকে জিজ্ঞাসা করি, এত পেয়াজ দিয়ে কি করবে? তার সচকিত উত্তর, পেয়াজের দাম বেড়ে যাচ্ছে তাই বেশি কিনে নিয়েছি। বিশ কেজি পেয়াজ কিনে সে কতো টাকা সেইভ করলো জানি না। তবে, পেয়াজের দাম বৃদ্ধিতে তার অবদান খাটো করে দেখার কিছু নেই। শুধু সে নয়, তার মতো আরো অনেকেই এভাবে বেশি পণ্য কিনে বাজারে কৃত্রিম সঙ্কট তৈরি করছে।

ফলে, চাহিদা অনুযায়ী দ্রব্যের যোগান দেয়া সম্ভব হয়ে উঠে না। তাই, দ্রব্যমূল্যের দামের ভারসাম্যহীনতার জন্য আমরাও (ভোক্তা) অনেকাংশে দায়ী। সরকার ইতোমধ্যে এ ব্যাপারে ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

দাম সহনীয় রাখতে ভোজ্য তেলের ভ্যাট প্রত্যাহার করা হয়েছে। পণ্যের মূল্য নিয়ে কেউ যাতে মনোপলি (এক চেটিয়া ব্যবসা) অবস্থার সৃষ্টি না হয় সেজন্য প্রতিযোগিতা কমিশন কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়া জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে।

কলামিস্ট

Developed By The IT-Zone