ঢাকাসোমবার , ২৭ এপ্রিল ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দুঃসময় পার করছেন আজমিরীগঞ্জের মৃৎশিল্পীরা : পাশে দাঁড়ায়নি কেউ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
এপ্রিল ২৭, ২০২০ ৩:২৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

মামুনূর রশীদ,আজমিরীঞ্জ প্রতিনিধি :   আজমিরীগঞ্জ পৌরসভার নগর গ্রামে অবস্থিত কুমার হাটি নামে পরিচিত প্রায় ৬০টি মৃৎশিল্পী পরিবারের ২৫০ মানুষের বসবাস। তারা সবাই হিন্দু জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত। প্রায় ৩০০ বছর ধরে মাটির তৈরী নান্দনিক কারুকার্য করে আসছেন অনেকটা পারিবারিক সূত্রেই। এদের আর কোনো পেশা নেই, পেশা একটাই “মৃৎশিল্প”,স্থানীয় লোকজন যাদেরকে কুমার সম্বোধন করে থাকেন। ওরা নিজেদেরকে গর্বের সাথে পরিচয় দেয় আমি মৃৎশিল্পী। এদেশে মৃৎশিল্পের সমৃদ্ধ ঐতিহ্য রয়েছে কিন্তু মৃৎশিল্পীরা নিজেদেরকে সমৃদ্ধ করার ইতিহাস নেই। তার পরেও ক্রমবর্ধমান কাঠ,বাশ ও সিরামিকসের আসবাবপত্রের ব্যবহারের বিপুরীতে মৃৎশিল্পীরা টিকে আছেন অনেকটা মাটি কামড়িয়ে। এদেরকে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান করা ও পাশাপাশি প্রতিটি জেলায় মৃৎশিল্প সংরক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করা এখন সময়ের দাবি।

ছবি ; তৈরীকৃত মাটির হাঁড়িপাতিলের কাছে দাঁড়িয়েন আছেন মৃৎশিল্পীরা

সম্প্রতি এই প্রতিবেদক সরেজমিনে ঘুরে এদের জীবন ও জীবিকার খুঁজ নেন। নগর মৃৎশিল্প সমবায় সমিতির সভাপতি সচিন্দ্র চন্দ্র পাল বলেন, আমরা লকডাউনে খুব সমস্যায় আছি। আমাদেরকে সরকার কোন সাহায্য সহযোগিতা করেনি। প্রায় ২ মাস যাবত মজুদকৃত মাটির আসবাবপত্র বিক্রি করতে পারতেছিনা। মাঝেমধ্যে কোন গ্রামে নিয়ে গেলেও মানুষজন করোনার ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়।তিনি জোর দিয়ে বলেন আমরা সবাই ত্রাণ পাবার যোগ্য কিন্তু কেউই কিছু পাইনি।

ছবি : কজে ব্যস্ত এক মৃৎশিল্পী

তিনি আরো বলেন আমরা প্রায় ৫ বছর আগে একটা সমিতি করেছিলাম যেখানে প্রতি মাসে ৪৫০ টাকা করে জমা দিতাম।সেই টাকা এজেন্ট মারফতে আজমিরীগঞ্জ সোনালী ব্যাংকে জমা হত।কিন্তু চার বিছরেও সেখান থেকে কোন কিছু না পেয়ে টাকা দেওয়া বন্ধ করে দেই।পরে মূল এজেন্ট টাকা না দিয়েই নরসিংদী পালিয়ে যান। তিনি আক্ষেপের সুরে বলেন এই সমিতির টাকাটা পেলে হয়তো আজ এত কষ্ট হতনা। আমাদের এখন সরকারি সাহায্য ছাড়া কোন গতি নেই। ঠিক কি কারণে তারা কোন সহযোগিতা পাননি, জানতে চাইলে ওয়ার্ড কমিশনার স্বপন কুমার বলেন সরকারি সাহায্যের সাথে পৌরসভার পক্ষ থেকেও কিছু টাকা যোগ করে দেই।
কুমার হাটির প্রায় ২৬ জনকে ১০ কেজি চাল ও সাথে তেল, ডাল দেওয়া হয়েছে। বস্তুতপক্ষে তাদের কষ্টের কোন সীমা নেই।একদিকে ঘরে যেমন খাবার নেই অন্যদিকে কাজও নেই। কৃষিকাজে তেমন পটু না হওয়ায় কেউ কৃষি কাজেও নিচ্ছে না। অনেকের ঘরে জাগতিক সম্পদ বলতে কিছুই নেই শুধু কিছু মজুদকৃত মৃৎশিল্প ছাড়া। শুধু মুড়ি ভিজিয়ে খেয়ে না খেয়ে দিন পার করছেন অনেকে। অনেকটা মানবেতর জীবন পার করছে। এই লকডাউন কর্মসূচি স্থায়ী থাকলে মানবিক বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিশিষ্টজনেরা।

Developed By The IT-Zone