ঢাকাবুধবার , ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ডিপো ইনচার্জ ও বিরতিহীন বাস মালিকদের যোগসাজসে অস্তিত্ব সংকটে বিআরটিসি বাস

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২১ ১০:০৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার :   হবিগঞ্জ জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্ন বিআরটিসি বাস। গত ২২ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ-সিলেট রুটে বিআরটিসি বাস সার্ভিসের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। প্রাথমিক অবস্থায় সিলেট-মৌলভীবাজার-শ্রীমঙ্গল এবং সিলেট-হবিগঞ্জ রুটে ২টি করে মোট ৪টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়ি চালু করে। সম্প্রতি হবিগঞ্জ-সিলেট বিরতিহীন মালিক-শ্রমিকদের তান্ডবে বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে বিআরটিসি বাস।

 

 

 

 

অভিযোগ আছে, বিআরটিসি বাসের কতিপয় কর্মকর্তা ও বিরতিহীন মালিকদের যোগসাজসে একটি চক্র সরকারের সম্পত্তির ক্ষতি সাধনের অপতৎপরতায় লিপ্ত রয়েছে। এ ব্যাপারে সচেতন মহলের পক্ষ থেকে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে হবিগঞ্জ-সিলেট মটর মালিক সমিতির পরিচালিত বাসের ড্রাইভার, কন্ডাক্টর ও হেল্পাররা দীর্ঘদিন ধরে সাধারণ যাত্রী সাধারণকে জিম্মি করে একচেটিয়া ব্যবসা করে আসছেন।

পরে সাধারণ জনগণের দাবীর মুখে বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ নিজ ব্যবস্থাপনায় হবিগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে ১২টি বাস চালু করার সিদ্ধান্ত নেয়। তবে এর আগে বিআরটিসি’র সিলেট ডিপো ইনচার্জ জুলফিকার আলী হবিগঞ্জ-সিলেট মটর মালিক সমিতির সাথে গোপন আঁতাত করে কৌশলে বিরোধীতা করেন বিআরটিসি বাসের। অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, সিলেট ডিপো ইনচার্জ জুলফিকার আলী  দীর্ঘদিন ধরেই হবিগঞ্জ-সিলেট মটর মালিক সমিতির কাছ থেকে মোটা অংকের মাসোয়ারা নিয়ে আসছিলো।

 

মূল উদ্দেশ্য ছিলো হবিগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে যেন কোনভাবেই বিআরটিসি’র বাস নামতে না পারে। আর যদি একান্ত নামাতে হয়, সেক্ষেত্রে ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব যেন কোনভাবেই বেসরকারী কোন সংস্থাকে দেয়া না হয়। এরই প্রেক্ষিতে, পরবর্তীতে বেশ কয়েকজন বেসরকারী উদ্যোক্তা আগ্রহী থাকা সত্তে¡ও সিলেট ডিপো ইনচার্জ জুলফিকার আলী চতুরতার সাথে নিজেই বাস ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নিয়ে হবিগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে বিআরটিসি’র চালু করেন। শুধু তাই নয়, জুলফিকার আলীর ইশারায় বিরতিহীন শ্রমিকরা সরকারী সম্পত্তির ক্ষতি সাধনের চেষ্টা করছেন। তাদের ধারণা এক সময় এভাবেই অস্তিত্ব সংকটের মুখে পড়ে এক সময় হবিগঞ্জ থেকে হারিয়ে যাবে বিআরটিসি বাস।

 

এ ব্যাপারে সিলেট ডিপো ইনচার্জ জুলফিকার আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগগুলো সম্পূর্ণ মিথ্যা। বিআরটিসি’র বাস সুষ্ঠুভাবে চলাচলের লক্ষ্যে আমি কাজ করে যাচ্ছি। যত বাধাঁ-বিপত্তিই আসুক সরকারী সম্পত্তি রক্ষা করতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাব। এ ব্যাপারে সিলেট বিভাগীয় কমিশনার ও হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ হচ্ছে’।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান জানান, অভিযোগটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সরকারী সম্পত্তি রক্ষায় প্রয়োজনীয় যেকোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে, সচেতন মহল মনে করেন হবিগঞ্জ-সিলেট মহাসড়কে বিআরটিসি বাস পরিচালনার দায়িত্ব বিআরটিসি’র নিজের কাছে না রেখে বেসরকারী উদ্যোক্তাদের হাতে ছেড়ে দিলে বিআরটিসি বাস ভাল চলাচল করবে এবং সরকারের যথাযথ রাজস্ব আদায় হবে।

Developed By The IT-Zone