ঢাকামঙ্গলবার , ১৯ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ডিজিটাল যুগেও বাঁশের আড় বেঁধে ঢেউয়ের সাথে সংগ্রাম করেন হাওরবাসী

ইমদাদুল হোসেন খান
জুলাই ১৯, ২০২২ ৭:৪৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বর্ষা মৌসুমে আফাল (তীব্র বাতাসে সৃষ্ট ঢেউ) এর তান্ডব থেকে বসতভিটা রক্ষায় প্রাচীনকাল থেকে বাড়ীঘরের চতুর্দিকে বাঁশের আড় বেঁধে (নিরাপত্তা বেষ্টনী) ঢেউয়ের সাথে সংগ্রাম করে আসছেন হাওরাঞ্চলের মানুষেরা।

ডিজিটাল যুগেও হাওরবাসীকে এভাবে প্রকৃতির সাথে বাঁচার সংগ্রাম করতে হবে কেনো এমন প্রশ্ন হাওর ভ্রমণকারী পর্যটকদের। সাম্প্রতিক বন্যায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মানবিক মানুষেরা ত্রাণ নিয়ে হাওর অধ্যুষিত হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, সিলেট ও নেত্রকোনার বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়াতে আসেন।

এছাড়া বন্যা পরবর্তী ঈদুল আযহা উপলক্ষে দূরদূরান্তের অসংখ্য পর্যটক হাওরাঞ্চলে নৌকা ভ্রমণে আসেন। তারা ডিজিটাল যুগেও সনাতনী কায়দায় বাঁশের আড় বেঁধে হাওরবাসীর বসতভিটা রক্ষায় জীবনসংগ্রাম দেখে দুঃখভারাক্রান্ত হয়ে বিষ্ময় প্রকাশ করেন। তারা হাওর উন্নয়নের নামে যেসব প্রকল্প চালু করা হয়েছে এবং কোটি কোটি টাকা খরচ করা হচ্ছে তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেন।

তারা বলেন, হাওরাঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের নামে বিভিন্নভাবে টাকা খরচ করা হয়। এসব অর্থ দিয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রথমে হাওরের সকল গ্রামের মানুষের বসতভিটার চতুর্দিকে টেকসই পাকা দেয়াল নির্মাণ করে দেয়া উচিত। কারণ, প্রতিবছর বর্ষায় পূর্বে হাওরবাসী বসতবাড়ির চতুর্পাশে যে বাঁশের বেষ্টনী তৈরি করেন তা ঢেউয়ের তান্ডবে প্রতিবছরই নষ্ট হয়ে যায়।

বর্ষার পানি নেমে গেলে এগুলো শুকিয়ে এমন অবস্থা হয় জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করে নিঃশেষ করতে হয়। পরবর্তীতে আবার বর্ষা মৌসুম সন্নিকটে আসলে কাঁচা বাঁশ কিনে নতুন করে আড় বাঁধতে হয়। এভাবে হাওরবাসীর উৎপাদিত ফসলের আয়ের একটি অংশ বছরের পর বছর ঘরবাড়ি রক্ষায় খরচ করতে হয়।

এজন্য সরকারি উদ্যোগে হাওরাঞ্চলের মানুষদের বসতবাড়ীর চতুর্দিকে স্থায়ী টেকসই পাকা দেয়াল নির্মাণ করে দিলে যে অর্থ হাওরবাসীর উদ্বৃত্ত হতো তাতেই হাওরাঞ্চলের মানুষের জীবনমান অনেকটা উন্নত হয়ে যেতো বলে তাদের অভিমত। কেউ কেউ এমনও মন্তব্য করেন, পর্যটক আকৃষ্ট করতে ইটনা-মিটামইনে যে অলওয়েদার সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে হাওরের সকল বাড়ীঘর তথা গ্রামগুলোর চতুর্দিকে সুন্দর করে পাকা দেয়াল নির্মাণ করলে তাতে হাওরের যে সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে তা দেখতে আরও বেশি পর্যটক হাওরাঞ্চল ভ্রমণে আসবেন।

এ ব্যাপারে জানতে এলজিইডি’র বানিয়াচং উপজেলা কার্যালয়ের অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক কামরুল ইসলাম সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, হাওরাঞ্চলের মানুষের ঘরবাড়ি পানির ঢেউয়ের কবল থেকে রক্ষার জন্য একসময় হিলিপ’র একটি প্রজেক্ট ছিলো। এটি এখন শেষ হয়ে গেছে। যখন প্রজেক্ট ছিলো তখন কিছু কিছু এলাকায় মানুষের বাড়ির চতুর্পাশে পাকা দেয়াল তৈরি করে দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

 

 

Developed By The IT-Zone